Sheersha Media

ব্রেকিং নিউজ

রাত ১০:৩৭ ঢাকা, বৃহস্পতিবার  ১৫ই নভেম্বর ২০১৮ ইং

পরীক্ষায় যৌনতা
পরীক্ষার রসায়ন খাতায় যৌন কল্পনার কথা লেখায় ব্যবস্থা নেয় গুজরাট শিক্ষা বোর্ড। পরীক্ষার সংগৃহীত নমুনা ফটো

পরীক্ষায় খোলামেলা নিজের ‘যৌনতার’ বর্ণনা লেখায় বহিষ্কার

দ্বাদশ শ্রেণির এক শিক্ষার্থীর বোর্ড পরীক্ষার রসায়ন খাতার মূল্যায়ন করতে বসেছিলেন এক শিক্ষিকা। কিন্তু উত্তরগুলো দেখে চমকে যান ওই নারী শিক্ষক। কারণ রসায়নের খাতাভর্তি ওই শিক্ষার্থীর ‘যৌন কল্পনার’ খোলামেলা বর্ণনা রয়েছে।

শিক্ষার্থী পরীক্ষার খাতায় তার ভাইয়ের স্ত্রী, পছন্দের অভিনেত্রী এমনকি বাসার রাধুনিকে নিয়ে পর্যন্ত তার যৌন কল্পনার কথা খোলামেলাভাবে লিখেছে।

খাতা মূল্যায়নকারী নারী শিক্ষক তার খাতার তার কল্পনার যৌন গদ্য পড়ে থমকে যান। পরে তিনি ওই খাতা কেন্দ্রীয় পরীক্ষা নিয়ন্ত্রকের কাছে পাঠান। পরীক্ষা নিয়ন্ত্রকও এ খাতা পড়ে চমকে যান। তিনি ওই শিক্ষার্থীর বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়ার সিদ্ধান্ত নেন।

ভারতের গুজরাট রাজ্যের আনন্দ জেলায় এ ঘটনা ঘটে।

পরীক্ষা নিয়ন্ত্রক ওই শিক্ষার্থীর বিরুদ্ধে স্থানীয় থানায় একটি প্রতারণা মামলা করেন। তা ছাড়া খাতায় নিয়ম বহির্ভূত উত্তর প্রদানের কারণে বোর্ডও তার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিয়েছে।

এর আগে পরীক্ষা নিয়ন্ত্রণ কমিটি তাকে আত্মপক্ষ সমর্থনের সুযোগ দিলেও সে তাতে সাড়া দেয়নি। এ সম্পর্কে গুজরাটের মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিক শিক্ষা বোর্ডের (জিএসএইচএসইবি) চেয়ারম্যান এ জে সাহা বলেন, ‘বোর্ড তার পরীক্ষা ফলাফল বাতিল করে বোর্ড পরীক্ষা থেকে তাকে এক বছরের জন্য বহিষ্কার করবে।’

জিএসএইচএসইবি সূত্র আরো জানায়, ওই শিক্ষার্থী সব প্রশ্নেরই উত্তর করেছে। তবে তার এসব উত্তর একটাও প্রশ্নের সঙ্গে সামঞ্জস্যপূর্ণ নয় বরং তার ভাবিসহ ভিন্ন ভিন্ন ব্যক্তিকে নিয়ে তার যৌন কল্পনার গল্পে ভরা।

এ জে সাহা আরো বলেন, ‘সে বিকৃত মানসিকতায় ভুগছে। তার সংশোধন হওয়া উচিত। আমরা তার বাবা-মাকে ডেকে পাঠনোর সিদ্ধান্ত নিয়েছি। তাদেরকে নম্বরপত্র দেখাব। যাতে তারা সঠিক ব্যবস্থা নিতে পারে।’

এ বছর গুজরাট শিক্ষাবোর্ড দশম ও দ্বাদশ শ্রেণির পরীক্ষার্থীদের বিরুদ্ধে দুই হাজারের মতো প্রতারণা মামলা করেছে। তাদের বেশির ভাগই নকল করতে গিয়ে ধরা পড়েছে। তবে খাতায় যৌন কল্পনার গল্প লেখা বিরল।-ইন্ডিয়া টাইমস