ব্রেকিং নিউজ

রাত ৩:০৩ ঢাকা, শনিবার  ১৭ই নভেম্বর ২০১৮ ইং

ফাইল ফটো

পরিবহন সেক্টর নিয়ে সমস্যায় রয়েছি

হরতাল অবরোধ দিয়ে নতুন প্রজম্মের ভবিষ্যত নষ্ট না করার জন্য বিএনপির প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের। বুধবার সচিবালয়ে সড়ক পরিবহন ও সেতু মন্ত্রণালয়ের সভাকক্ষে সংবাদ সম্মেলনে সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে এ আহবান জানান তিনি।
হরতাল অবরোধের মধ্যে দিয়ে বিএনপি আমাদের ভবিষ্যৎ প্রজম্ম নষ্ট করছে বলে মন্তব্য করে ওবায়দুল কাদের বলেন, এই অবরোধের কারণে পরিবহন খাতে ব্যাপক ক্ষতি হয়েছে। সারাদেশের সাথে ঢাকার যোগাযোগ স্বাভাবিক রাখতে সরকার চেষ্টা করে যাচ্ছে। হরতাল-অবরোধকারীদের এসএসসি পরীক্ষার্থীদের ভবিষ্যৎ নষ্ট না করার আহ্বান জানান তিনি।
মন্ত্রী বলেন, অবরোধের কয়েক দিনে প্রায় পাঁচ শতাধিক গাড়ি ভাংচুর করা হয়েছে। পুড়িয়ে দেয়া হয়েছে দুই শতাধিক গাড়ি। এখন পর্যন্ত সাত জন ড্রাইভার ও হেলপাড় নিহত হয়েছে। সব কিছু নিয়ে পরিবহন সেক্টর নিয়ে সমস্যায় রয়েছি। তার পরও জনগনের জানমাল রক্ষায় যা যা করার প্রয়োজন সরকার তাই করবে।
ওবায়দুল কাদের বলেন, ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কের বিদ্যমান কাঁচপুর, মেঘনা ও গোমতী সেতুর পাশেই নতুন তিনটি সেতু নির্মাণের উদ্যোগ নেয়া হয়েছে। ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়ক চারলেনে উন্নীতকরণ কাজ দ্রুতগতিতে এগিয়ে চলেছে। ইতোমধ্যে মহাসড়কের প্রায় ১০৮ কিলোমিটার চারলেনে উন্নীতকরণের কাজ শেষ হয়েছে।
তিনি বলেন, দেশের অন্যতম প্রধান উন্নয়ন সহযোগী জাপানের আন্তর্জাতিক সহযোগী সংস্থা জাইকা’র অর্থায়নে চারলেন বিশিষ্ট ২য় কাঁচপুর, ২য় মেঘনা ও ২য় গোমতী সেতু নির্মাণ করা হবে। সেতু তিনটি নির্মাণে গতকাল আন্তর্জাতিক দরপত্র আহ্বান করা হয়েছে। নতুন তিনটি সেতু নির্মাণের পাশাপাশি বিদ্যমান তিনটি সেতুর (কাঁচপুর, মেঘনা ও গোমতী) প্রয়োজনীয় সংস্কার কাজও একই সাথে করা হবে। পাশাপাশি রাজধানী ঢাকার সাথে চট্টগ্রাম ও সিলেটের নির্বিঘ্ন সড়ক যোগাযোগ নিশ্চিত করতে কাঁচপুর সেতুর প্রান্তে একটি ফ্লাইওভার ও ইন্টারসেকশন নির্মাণ করা হবে।
তিনি জানান, ২য় কাঁচপুর, ২য় মেঘনা ও ২য় গোমতী সেতু নির্মানের জন্য ইতোমধ্যে সম্ভাব্যতা যাচাই, পরামর্শক নিয়োগ, বিস্তারিত নকশা প্রণয়নের কাজ শেষ হয়েছে। অর্থায়নকারী সংস্থা হতে দরপত্র আহ্বানের সম্মতি পাওয়ার প্রেক্ষিতে এ আন্তর্জাতিক দরপত্র আহ্বান করা হয়েছে। ২৭ এপ্রিল দরপত্র গ্রহণের শেষ দিন। সেতু নির্মাণের জন্য সেপ্টেম্বর ২০১৫ এ ওয়ার্ক অর্ডার দেয়া হবে। এ বছরের নভেম্বর মাসে সেতু তিনটির নির্মাণকাজ শুরু করা যাবে বলে আশা করা যাচ্ছে।