Sheersha Media

ব্রেকিং নিউজ

রাত ১১:৫৭ ঢাকা, সোমবার  ১৯শে নভেম্বর ২০১৮ ইং

পদ্মা বহুমুখী সেতু
বাংলাদেশ সরকারের নিজস্ব অর্থায়নে পদ্মার বুকে দেশের কোটি মানুষের স্বপ্নের সেতু

পদ্মার বুকে স্বপ্নের পদ্মা সেতু

পদ্মার বুকে দেশের কোটি মানুষের স্বপ্নের সেতু চোখের সামনে নিজের বিশালতা জানান দিচ্ছে বাংলাদেশ সরকারের নিজস্ব অর্থায়নের সর্ববৃহৎ প্রকল্প পদ্মা বহুমুখী সেতুটি। সবকিছু ঠিক থাকলে ২০১৮ সালের ডিসেম্বরে পদ্মা সেতু উদ্বোধন করা হবে।

তবে এখন থেকেই পদ্মা পাড়ি দেয়ার স্বপ্ন দেখতে শুরু করেছেন অনেকে। স্বপ্নের এই সেতুর রং কেমন হবে- তা নিয়েও অনেকেই অনেক কিছু ভাবছেন। সেই ভাবনা পরিষ্কার করেছে সেতু কর্তৃপক্ষ। তাদের তথ্যমতে, পদ্মা সেতুর রং হবে সোনালি।

এদিকে মুন্সীগঞ্জ জেলার মাওয়া, মাদারীপুর জেলার শিবচর ও শরীয়তপুর জেলার জাজিরায় শনিবার প্রথম স্প্যান বসানোর মধ্য দিয়ে এই সেতুর মূল চেহারা ভেসে উঠতে শুরু করেছে।

স্বপ্নের পদ্মা সেতুর ৩৭ ও ৩৮ নম্বর খুঁটির (পিলার) ওপর প্রথম স্প্যান (সুপার স্ট্রাকচার) বসানো হয়েছে।

ভাসমান ক্রেন দিয়ে স্থাপন করা হয়েছে স্প্যান, যার মাধ্যমে দৃশ্যমান হয়েছে পদ্মা সেতু।

শনিবার সকাল সোয়া ১০টায় ক্রেন দিয়ে পিলারের উচ্চতায় এনে বসানো হয় স্প্যানটিকে। এ সময় সেখানে সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের উপস্থিত ছিলেন।

ওবায়দুল কাদের বলেন, কোনো রঙিন স্বপ্ন নয়, পদ্মা সেতু এখন দৃশ্যমান বাস্তবতা। পদ্মা সেতুর মূল কাজের ৪৯ শতাংশ এরই মধ্যে শেষ হয়েছে। যথাসময়েই পদ্মা সেতুর কাজ শেষ হবে।

মন্ত্রী বলেন, নদী শাসনের ৩৪ শতাংশ, মাওয়া অ্যাপ্রোচ সড়কের শতভাগ, জাজিরা-শিবচর অ্যাপ্রোচ রোড ৯৮ শতাংশ এবং সার্ভিস এরিয়া-২ শতভাগ কাজ সম্পন্ন হয়েছে। পদ্মা সেতুর ৫টি প্রকল্পের মোট কাজের ৪৭ দশমিক ৫০ শতাংশ কাজ শেষ হয়েছে বলে তিনি জানান।

পদ্মা বহুমুখী সেতুর মূল আকৃতি হবে দ্বিতলবিশিষ্ট। সাধারণ যানবাহনের জন্য ওপর তলা আর রেললাইন স্থাপন হবে নিচ তলায়। কংক্রিট ও স্টিল দিয়ে নির্মিত হচ্ছে এ সেতুর কাঠামো।

সেতুর মোট পিলারের সংখ্যা ৪২টি। সেতুটির দৈর্ঘ্য ৬ দশমিক ১৫ কিলোমিটার ও প্রস্থ হবে ৭২ ফুট। যেখানে থাকবে চারলেনের সড়ক। এছাড়া পানির স্তর থেকে পদ্মা সেতুর উচ্চতা হবে ৬০ ফুট।

২০১৫ সালের ডিসেম্বরে পদ্মা সেতুর মূল অবকাঠামো নির্মাণকাজ শুরু হয়।