Sheersha Media

ব্রেকিং নিউজ

রাত ৩:৪০ ঢাকা, বুধবার  ২১শে নভেম্বর ২০১৮ ইং

প্রধানমন্ত্রী ও আওয়ামী লীগ সভানেত্রী শেখ হাসিনা, ফাইল ফটো

নৌকায় শান্তি, নৌকায় সমৃদ্ধি ও উন্নতি : শেখ হাসিনা

সিলেটের জনসভায় নৌকার পক্ষে ভোট চেয়ে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, নৌকা মার্কায় ভোট দিয়ে দেশের স্বাধীনতা পেয়েছেন, নৌকায় ভোট দিলে দেশের উন্নয়ন হয়, সমৃদ্ধি আসে। আগামী দিনেও আমাদের ভুলবেন না, আমাদের ওপর ভরসা রাখবেন। নৌকাই আপনাদের শান্তি দেবে, নৌকাই সমৃদ্ধি ও উন্নতি দেবে। বৃহস্পতিবার বিকালে সিলেটের সরকারি আলীয়া মাদ্রাসা মাঠে জেলা আওয়ামী লীগ আয়োজিত জনসভায় তিনি নৌকার পক্ষে ভোট চান।
উপস্থিত জনতাকে উদ্দেশ করে আওয়ামী সভানেত্রী শেখ হাসিনা বলেন, নৌকায় মার্কায় ভোট দিয়েছেন বলেই আজকে দেশের উন্নতি হচ্ছে। এ সময় নৌকা মার্কায় ভোট চেয়ে উপস্থিত জনতাকে হাত তুলে ওয়াদা করতে বলেন প্রধানমন্ত্রী। শেখ হাসিনা বলেন, আমার কাছে আপনাদের কোনো দাবি করা লাগবে না। আমি সারা বাংলাদেশের আনাচে-কানাচে ঘুরেছি। সমস্যা কী আমার জানা। আমি জানি কী করে আপনাদের উন্নতি হবে। আওয়ামী সভানেত্রী বলেন, বিএনপি যখন ক্ষমতায় ছিল, তখন দেশে জঙ্গিবাদ-সন্ত্রাসবাদ বিরাজ করেছে। তাদের সময়ে দেশ এগিয়ে যায় না, কোনো উন্নয়ন হয় না। আওয়ামী লীগ আমল হচ্ছে শান্তি ও উন্নয়নের। প্রধানমন্ত্রী বলেন, নির্বাচন বানচাল করতে পেট্রল বোমা দিয়ে মানুষ হত্যাকারীদের বিচার বাংলার মাটিতেই করা হবে। বিএনপি-জামায়াত জোটের আন্দোলনের সমালোচনা করে তিনি বলেন, তারা নির্বাচন বানচালের নামে যেভাবে মানুষ হত্যা করা হয়েছে, সেটা পৃথিবীর ইতিহাসে আর আছে কিনা জানি না। মা-বাবার সামনে মেয়েকে আগুনে পুড়িয়ে মারেছে, খালেদার প্রতিহিংসা থেকে কেউ রেহাই পায়নি। স্বাধীনতার সুফল মানুষের দ্বারে দ্বারে পৌঁছে দেয়াই আওয়ামী লীগের লক্ষ্য উল্লেখ করে শেখ হাসিনা বলেন, আমরা চাই শান্তি। আওয়ামী লীগ চায় ন্যায় প্রতিষ্ঠা হোক, ওরা (বিএনপি-জামায়াত) চায় লুটপাট করতে। প্রধানমন্ত্রী বলেন, আওয়ামী লীগ যখনই ক্ষমতায় আসে দেশের উন্নয়ন করে। ৫ জানুয়ারির নির্বাচনে জয়লাভ করেও আমরা উন্নয়নের ধারাবাহিকতা বজায় রেখেছি। সিলেটে মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিষ্ঠার ঘোষণা দিয়ে প্রধানমন্ত্রী বলেন, বাংলাদেশে মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয় ছিল না। আওয়ামী লীগই মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিষ্ঠা করেছে। আমাদের লক্ষ্য সব বিভাগেই মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয় হবে। দ্রুতই সিলেটে মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয় করে দেবো। সরকারের উন্নয়ন কর্মকাণ্ড তুলে ধরে শেখ হাসিনা বলেন, সিলেটে আজ ২২টি উন্নয়ন প্রকল্পের উদ্বোধন ও ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন করেছি। আমরা সিলেট বিমানবন্দরকে আন্তর্জাতিক করেছি। এর কাজ আমরা শুরু করেছিলাম, কিন্তু বিএনপি এসে সে কাজ বন্ধ করে দেয়। প্রধানমন্ত্রী বলেন, আজকে বাংলাদেশ সারা বিশ্বে উন্নয়নের রোল মডেল। যখন ২০০৮ সালে সরকার গঠন করি তখন ছিল বিশ্বমন্দা, তা কাটিয়ে উঠে আমরা দেশ পরিচালনা করেছি। দেশের ধারাবাহিক উন্নয়ন বজায় রেখেছি। তিনি বলেন, দেশে শিক্ষার সম্প্রসারণ হচ্ছে। বিজ্ঞান ও কম্পিউটার শিক্ষার এর মধ্যে অন্যতম। সারা বাংলাদেশে অর্থনৈতিক অঞ্চল করছি, যেন কেউ বসে না থাকে। আমাদের লক্ষ্য ছিল, ডিজিটাল বাংলাদেশ করবো, করেছি। থ্রি-জি চালু করেছি, দ্রুতই ফোর-জি চালু করা হবে। শিক্ষার্থীদের উদ্দেশে সরকার প্রধান বলেন, লেখাপড়া শিখতে হবে। মনোযোগ দিয়ে পড়াশোনার সুযোগ সৃষ্টি করে দিয়েছি। শিক্ষার্থীদের এগিয়ে যেতে হবে। পড়াশোনা না শিখলে ভবিষ্যতে তারা কোনো কাজে আসবে না। শিক্ষাখাতের উন্নয়নে সরকারের নানা পদক্ষেপের কথা তুলে ধরে প্রধানমন্ত্রী বলেন, এক কোটি ২৮ লাখ ছাত্র-ছাত্রীকে বৃত্তি এবং উপবৃত্তি দিয়ে যাচ্ছি। বিনা পয়সায় বই দিচ্ছি। এবারও ঠিক সময়ে শিশুদের হাতে হাতে বই পৌঁছে দিয়েছি। এর আগে প্রধানমন্ত্রী আলিয়া মাদ্রাসা মাঠের পাশে স্থাপিত ফলক উন্মোচন করে ১০টি উন্নয়ন প্রকল্পের উদ্বোধন ও ১২টি ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন করেন।