Sheersha Media

ব্রেকিং নিউজ

সকাল ৯:৩৬ ঢাকা, বুধবার  ২১শে নভেম্বর ২০১৮ ইং

ফাইল ফটো

‘নিজামীর আপিল প্রসঙ্গে অ্যার্টনি জেনারেলের বক্তব্য দায়িত্বজ্ঞানহীন’

একাত্তরে মানবতাবিরোধী অপরাধ মামলায় অভিযুক্ত জামায়াতের আমির মতিউর রহমান নিজামীর আপিল প্রসঙ্গে অ্যাটর্নি জেনারেল মাহবুবে আলমের বক্তব্য প্রত্যাখ্যান করেছেন নিজামীর আইনজীবী অ্যাডভোকেট খন্দকার মাহবুব হোসেন।
তিনি বলেন, ‘দোষ স্বীকারের প্রশ্নই আসে আসে না। অ্যার্টনি জেনারেল দায়িত্বজ্ঞানহীন বক্তব্য দিয়েছেন। টিভিতে অ্যার্টনি সাহেবের বক্তব্য যা শুনলাম,  তা ফৌজদারী আইন সম্পর্কে অজ্ঞতাপূর্ণ।’
তিনি পাল্টা প্রশ্ন ছুড়ে দিয়ে বলেন, ‘আমাদের কি মাথা খারাপ হয়েছে? তাহলে মামলা করলাম কী করে।’

এর আগে দুপুরে অ্যার্টনি জেনারেল সাংবাদিকদের বলেন, ‘জামায়াতে ইসলামীর পক্ষ থেকে তাদের শীর্ষ আইনজীবীরা এই প্রথম তাদের একজন অভিযুক্ত নেতা (নিজামী) যে অপরাধী সেটা স্বীকার করে নিলেন।’

বুধবার আপিল শুনানির নবম দিনে নিজামীর আইনজীবীরা তাদের যুক্তিতর্ক উপস্থাপন শেষ করেন। এরপর রাষ্ট্রপক্ষে অ্যাটর্নি জেনারেল যুক্তি উপস্থাপন শুরু করেন।
আদালতে নিজামীর পক্ষে যুক্তি উপস্থাপন করেন তার প্রধান আইনজীবী খন্দকার মাহবুব হোসেন ও অ্যাডভোকেট এস এম শাহজাহান। এর আগে গত ৩০ নভেম্বর ও ১ ডিসেম্বর নিজামীর পক্ষে যুক্তিতর্ক উপস্থাপন করা হয়।
আগামী ৮ ডিসেম্বর পাল্টা যুক্তিতর্ক উপস্থানের জন্য দিন ধার্য করা হয়েছে।মতিউর রহমান নিজামীকে সম্পূর্ণ নির্দোষ দাবি করে খালাস দাবি করেন তার আইনজীবীরা।
এর আগে গত ২৫ নভেম্বর আদালত ৩০ নভেম্বর, ১ ডিসেম্বর ও ২ ডিসেম্বর এই তিন দিন নিজামীর পক্ষে যুক্তি উপস্থাপনের জন্য দিন ধার্য করেন আপিল বিভাগ। আর ৭ ডিসেম্বর রাষ্ট্রপক্ষ যুক্তি উপস্থাপন করবেন। এরপর পাল্টা যুক্তি উপস্থাপন করবেন আসামি পক্ষ।
নিজামীর পক্ষে যুক্তিতর্ক উপস্থাপন শেষে তার প্রধান আইনজীবী খন্দকার মাহবুব হোসেন সাংবাদিকদের এক ব্রিফিংয়ে জানান, আমরা যেসব প্রমাণ ও যুক্তি আদালতে উপস্থাপন করেছি আশা করি মতিউর রহমান নিজামী খালাস পাবেন। তারপরও আদালত যদি আমাদের সেই যুক্তিতর্ক ও প্রমাণ আমলে না নেন তাহলে আসামির বয়স ও শারীরিক সক্ষমতা দেখে তার সর্বচ্চো শাস্তি কমানোর বিষয়টি বিবেচনা করেন আমরা  তাই কামনা করি।
এদিকে রাষ্ট্রপক্ষে অ্যাটর্নি জেনারেল মাহবুবে আলম সাংবাদিকদের জানিয়েছেন, আসামিপক্ষের আইনজীবীরা শাস্তি কমানোর বিষয়টি আদালতের দৃষ্টিতে আনার মধ্য দিয়ে এই প্রথম কোন মানবতাবিরোধীর অপরাধের দায় স্বীকার করে নিয়েছেন বলে আমরা মনে করি। তবে তিনি জানান, আমরা আশা করি আসামির সর্বোচ্ছ শাস্তি আপিলেও বহাল থাকবে।
২০১৪ সালের ২৯ অক্টোবর বিচারপতি এম ইনায়েতুর রহিম নেতৃত্বাধীন আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনাল-১ মতিউর রহমান নিজামীকে মৃত্যুদণ্ড দেয়। এ রায়ের বিরুদ্ধে একই বছরের ২৩ নভেম্বর সুপ্রিম কোর্টে আপিল করেন জামায়াতের আমির মতিউর রহমান নিজামী। ৬ হাজার ২৫২ পৃষ্ঠার আপিলে ফাঁসির আদেশ বাতিল করে খালাস চেয়েছেন নিজামী।