প্রধান বিচারপতি এস কে সিনহা

নারীর সুবিচার নিশ্চিত করতে আইনজীবীদের সংবেদনশীল হতে হবে : প্রধান বিচারপতি

প্রধান বিচারপতি সুরেন্দ্র কুমার সিনহা নির্যাতনের শিকার নারীদের জন্য সুবিচার প্রাপ্তি নিশ্চিত করতে আইনজীবী ও বিচারকদের আরো সংবেদনশীল হওয়ার আহ্বান জানিয়েছেন।
তিনি বলেন, ‘দারিদ্র্য, অজ্ঞতা ও আইনগত দুর্বলতার কারণে নির্যাতিত নারীরা আদালতের কাছে সুবিচার থেকে বঞ্চিত হন। ধর্ষণের শিকার নারীরা মর্যাদাহানি এবং জীবনের নিরাপত্তার কারণে নিজেকে লুকিয়ে রাখেন। যারা আদালতের শরণাপন্ন হন তারাও অনেক সময় উপযুক্ত সাক্ষ্য-প্রমাণের অভাবে সুবিচার পান না। এসব নারীদের সুবিচার প্রাপ্তি নিশ্চিত করতে আইনজীবীদের আরো সচেতন ও সংবেদনশীল হতে হবে।’
সুপ্রীম কোর্ট বার এসোসিয়েশনের শহীদ শফিউর রহমান মিলনায়তনে আয়োজিত একটি বইয়ের মোড়ক উন্মোচন অনুষ্ঠানে প্রধান বিচারপতি আজ একথা বলেন।
এর আগে তিনি মানুষের জন্য ফাউন্ডেশন থেকে প্রকাশিত ‘নারীর প্রতি সহিংসতা বিষয়ক যুগান্তকারী রায় : বাংলাদেশ, ভারত, পাকিস্তান’ বইয়ের মোড়ক উন্মোচন করেন। অনুষ্ঠানে অন্যান্যের মধ্যে বক্তব্য দেন আপীল বিভাগের বিচারপতি সৈয়দ মাহমুদ হোসেন, বিচারপতি মোঃ ইমান আলী, ব্যরিস্টার আমিরুল ইসলাম, সিনিয়র আইনজীবী সিগমা হুদা এবং সিনিয়র আইনজীবী ফৌজিয়া করিম ফিরোজ। মানুষের জন্য ফাউন্ডেশনের নির্বাহী পরিচালক শাহীন আনাম অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন।
সুরেন্দ্র কুমার সিনহা বলেন, দেশে নারীর প্রতি সহিংসতা রোধে আইন আছে। কিন্তু আইনের যথাযথ প্রয়োগ ও সচেতনতার অভাবে নারীরা সুবিচার থেকে বঞ্চিত হন। দরিদ্র নারীরা টাকার অভাবে মিথ্যা মামলায় বছরের পর বছর বিনা বিচারে জেলখানায় আটকে আছেন। তাদের সহযোগিতার জন্য আইনজীবীদের এগিয়ে আসতে হবে। তিনি দরিদ্র নারীদের সুবিচার প্রাপ্তি নিশ্চিত করতে আইনজীবীদের বিনামূল্যে আইন সহায়তা দেয়ার আহ্বান জানান।
তিনি বলেন, সুশীল সমাজের প্রত্যেকেরই কিছু সামাজিক দায়িত্ব আছে। তাদের সেই দায়িত্ব পালন করতে হবে। এক্ষেত্রে তিনি সম্প্রতি মালয়েশিয়া, ইন্দোনেশিয়াসহ বেশ কয়েকটি দেশে পাচার হয়ে যাওয়া নারী-শিশুদের দেশে ফিরিয়ে আনার জন্য আইন সহায়তা প্রদানকারী বেসরকারী সংস্থাগুলোকে এগিয়ে আসার আহ্বান জানান। এক্ষেত্রে তিনি তাদের সার্বিক সহায়তারও আশ্বাস দেন।

সর্বশেষ সংশোধিত: