Sheersha Media

ব্রেকিং নিউজ

দুপুর ১২:১৮ ঢাকা, রবিবার  ১৮ই নভেম্বর ২০১৮ ইং

‘নারীকে উন্নয়নের বাইরে রেখে প্রকৃত উন্নয়ন অসম্ভব’- প্রধানমন্ত্রী

তাঁর সরকার দেশের সর্বস্তরে নারীর অংশগ্রহণ নিশ্চিত করেছে উল্লেখ করে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, মূল জনগোষ্ঠীর অর্ধেক নারীকে উন্নয়নের বাইরে রেখে কখনও প্রকৃত উন্নয়ন সম্ভব নয়।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘কোন দেশই তাদের মূল জনগোষ্ঠীর একটি অংশকে বাদ দিয়ে উন্নয়ন করতে পারে না। ..সুতরাং সমাজের সবাইকে সঙ্গে করেই আমাদের উন্নয়নের পথে এগিয়ে যেতে হবে।’

গ্লেন কাওয়ানের নেতৃত্বে ’ডেমোক্রাসী ইন্টারন্যাশনালের’একটি ৬-সদস্যের প্রতিনিধি দল আজ সকালে প্রধানমন্ত্রীর জাতীয় সংসদ ভবন কার্যালয়ে তাঁর সঙ্গে সাক্ষাতকালে প্রধানমন্ত্রী এ কথা বলেন।

ডেমোক্রাসী ইন্টারন্যাশনাল একটি যুক্তরাষ্ট্র ভিত্তিক সংস্থা, এটি বিশ্বের ৪০টি দেশে তাদের কর্মকান্ড পরিচালনা করছে। এই সংগঠনটি সরকার এনজিও এবং রাষ্ট্রের বিভিন্ন অংশকে দেশের গণতন্ত্রায়ণে নির্বাচন অনুষ্ঠান, নির্বাচন পর্যবেক্ষণ এবং বহু দলীয় গণতান্ত্রিক পদ্ধতি গড়ে তুলতে সহযোগিতা ও পরামর্শ প্রদান করে থাকে।

বৈঠকের পরে প্রধানমন্ত্রীর প্রেস সচিব ইহসানুল করিম সাংবাদিকদের ব্রিফ করেন।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, তাঁর সরকারের গৃহীত বিভিন্ন পদক্ষেপের ফলে বাংলাদেশের রাজনীতিতে নারীর অংশগ্রহণ উল্লেখযোগ্য হারে বৃদ্ধি পেয়েছে।

জাতীয় সংসদে বর্তমান সংসদ সদস্যদের মধ্যে সরাসরি ভোটে নির্বাচিত ২১ জন নারী সংসদ সদস্য রয়েছেন। তিনি বলেন বর্তমান প্রধানমন্ত্রী এবং জাতীয় সংসদ নেতা, বিরোধী দলের নেতা, সংসদ উপনেতা এবং হুইপ একজন নারী। প্রধানমন্ত্রী বলেন, স্থানীয় সরকারের প্রায় ৩০ শতাংশ আসন- যেমন ইউনিয়ন পরিষদ, উপজেলা, পৌরসভা এবং সিটি কর্পোরেশনে মহিলাদের জন্য আসন বরাদ্দ রয়েছে।

দেশের সর্বত্র পুরুষদের পাশাপাশি নারীরাও এগিয়ে আসছে উল্লেখ করে প্রধানমন্ত্রী বলেন, শিক্ষা,ক্রীড়া এবং সৃজনশীল ক্ষেত্রে নারীরা তাদের পুরুষ সহকর্মীর সঙ্গেই কাঁধে কাঁধ মিলিয়ে এগিয়ে চলেছে।

এ প্রসঙ্গে সমাজের বিভিন্ন উচ্চপদে নারীদের আসীন হবার বিষয়টি উল্লেখ করে প্রধানমন্ত্রী বলেন, নারীরা বর্তমানে প্রশাসন, বিচার বিভাগ এমনকি সশস্ত্রবাহিনী এবং আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীতেও নিয়োজিত রয়েছেন

তিনি বলেন, সম্প্রতি বাংলাদেশ নৌবাহিনী নারী নাবিক নিয়োগ দেয়া হয়েছে এবং বর্ডার গার্ড বাংলাদেশ (বিজিবি)তেও নারী সদস্য নিয়োগ দেয়া হয়েছে।

দেশের গণতান্ত্রিক প্রক্রিয়া নিয়ে প্রধানমন্ত্রী বলেন, জনগণকে সঙ্গে করে তাঁর রাজনৈতিক দল বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের এদেশে গণতন্ত্র পুনর্বহাল করতে ২১ বছর লেগে যায়।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, পচাত্তরের জাতির পিতাকে সপরিবারে হত্যার পর দীর্ঘ ২১ বছরে এই দেশ বেশ কয়েকবারই সেনাশাসন, সেনা সমর্থিত স্বৈরশাসন প্রত্যক্ষ করেছে।

তাঁর সরকার সেমিনার, সিম্পোজিয়াম এবং আলোচনা অনুষ্ঠানের মাধ্যমে বিভিন্ন নীতি নির্ধারণী কর্মসূচির বাস্তবায়ন ঘটাচ্ছে উল্লেখ করে প্রধানমন্ত্রী বলেন, তাঁর দলের সেন্টার ফর রিসার্চ এন্ড ইনফরমেশন (সিআরআই) নামে একটি গবেষণা উইং রয়েছে.. এতে বিভিন্ন বিষয়ে গবেষণাধর্মী কাজ করা হয়ে থাকে।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, বিএনপি-জামায়াত জোট ২০০১ সালে ক্ষমতায় আসার পরে সিআরআই এর ওপর হামলা চালায় এবং এর কার্যালয় ভাংচুর ও তছনছ করে। এর ৬০টি কম্পিউটার তখন তারা ভেঙ্গে ফেলেছিল।

ডেমোক্রাসী ইন্টারন্যাশনালের নেতৃবৃন্দ প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে বাংলাদেশে নারীর অগ্রগতি ও ক্ষমতায়নের ভূয়সী প্রশংসা করেন।
তাঁরা সিআরআই’র কর্মকান্ডের ও প্রশংসা করে বলেন, এর কর্মকর্তারা অত্যন্ত মেধাবী এবং চিন্তাশীল ।

বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ এবং ডেমোক্রাসী ইন্টারন্যাশনালের মধ্যে দীর্ঘ সুসম্পর্কের কথা উল্লেখ করে প্রতিনিধি দলের সদস্যরা প্রধানমন্ত্রীকে জানান, তারা দীর্ঘ ২০ বছর যাবত বিভিন্ন ইস্যুতে আওয়ামী লীগের সঙ্গে কাজ করে আসছে।

সাবেক পররাষ্ট্র মন্ত্রী ডা. দিপু মনি, আওয়ামী লীগের প্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদক ড. হাছান মাহমুদ এবং প্রধানমন্ত্রীর মুখ্য সচিব আবুল কালাম আজাদ এ সময় অন্যান্যের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন।