ব্রেকিং নিউজ

রাত ১২:৩০ ঢাকা, শুক্রবার  ২১শে সেপ্টেম্বর ২০১৮ ইং

“নারায়ণগঞ্জে একই পরিবারের পাঁচজনকে নৃশংসভাবে হত্যা”

নারায়ণগঞ্জে  শনিবার রাতে শহরের বাবুরাইল খানকামোড় এলাকার আশেক আলী ভিলায় একই পরিবারের পাঁচজনকে নৃশংসভাবে হত্যার ঘটনায় আইন শৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যরা চরম অস্বস্তির মধ্যে পড়েছে। এ ঘটনায় সন্দেহভাজন তিনজনকে এজাহারনামীয় ও অজ্ঞাত ১০ জনকে আসামি করে মামলা হয়েছে।
যদিও আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর র্কমর্কতারা অচিরেই খুনিদের চিহ্নিত করে তাদের গ্রেফতারের ব্যাপারে আশাবাদী। কিন্তু রবিবার র্পযন্ত এ হত্যাকাণ্ডের কোন ক্লু পায়নি আইনশৃঙ্খলা বাহিনী।
হত্যাকাণ্ডের পর র‌্যাবের মহাপরিচালক বেনজীর আহমেদ এবং ডিআইজি মাহফুজুর রহমান নুরুজ্জামানসহ র‌্যাব ও পুলিশের ঊর্ধ্বতন র্কমর্কতারা ঘটনাস্থল পরির্দশন করে গণমাধ্যমকে বলেছেন, এই পাশবিক হত্যাকাণ্ডে জড়িতরা অচিরেই গ্রেফতার হবে। র‌্যাব ও পুলিশসহ সিআইডির একাধিক তদন্ত কর্মকর্তা শনিবার রাতভর আলামত সংগ্রহ থেকে শুরু করে ঘটনাস্থলের ভিডিওসহ ঘরের খাবার সংগ্রহ করেছেন। প্রাথমিকভাবে নিশ্চিত হওয়া গেছে হত্যাকাণ্ডের জড়িতরা নিহতদের র্পূব পরিচিত। হত্যাকাণ্ডের আগে খুনি ও নিহতরা একত্রে খাওয়া দাওয়া করেছে। খাবারের মধ্যে অচেতন করার ওষুধের আলামত পাওয়া গেছে।
র‌্যাবের মহাপরিচালক বেনজির আহমেদ বলেন, ‘হত্যাকাণ্ডের মূল কারণ আমরা সম্মিলিতভাবে খতিয়ে দেখছি। পারিবারিক বিরোধ, নারী ঘটিত বিষয় বা আর্থিক লেনদেন হত্যাকাণ্ডের পেছনে কাজ করতে পারে। খুনিরা পেশাদার নয়।’
উল্লেখ্য, শনিবার রাতে নারায়ণগঞ্জ শহরের বাবুরাইল খানকা মোড় এলাকায় ‘আশেক আলী ভিলা’ নামে একটি বাড়ির একটি ফ্ল্যাটে একই পরিবারের পাঁচজনকে নৃংশসভাবে গলা কেটে হত্যা করে দুর্বৃত্তরা। আইন শৃঙ্খলা বাহিনী বাড়ির ফ্ল্যাটের তালা ভেঙে তাদের লাশ উদ্ধার করা হয়। নিহতরা হলেন- তাসলিমা আক্তার (৪০) তার ছেলে শান্ত (১০), মেয়ে সুমাইয়া (৫), ভাই মোরশেদুল (২৫) এবং তার জা লামিয়া (২৫)।