শীর্ষ মিডিয়া

ব্রেকিং নিউজ

দুপুর ১২:২৫ ঢাকা, শনিবার  ১৫ই ডিসেম্বর ২০১৮ ইং

নাটোরে ৩১ যাত্রী নিহতের ঘটনায় রাষ্ট্রপতি ও প্রধানমন্ত্রী পৃথক শোক প্রকাশ করেছেন।

শীর্ষ মিডিয়া ২০ অক্টোবর ঃ  নাটোরের বড়াইগ্রামে দুটি বাসের মুখোমুখি সংঘর্ষে ৩১ জন নিহত ও কমপক্ষে অর্ধশত যাত্রী আহত হয়েছে।  নিহতদের মধ্যে নাটোরের গুরুদাসপুর উপজেলার এলজিইডির প্রকৌশলী হাফিজুর রহমানও রয়েছেন বলে পুলিশ সূত্রে জানা গেছে।  এদিকে, গুরুতর আহতদের বিভিন্ন হাসপাতালে নেয়া হয়েছে এবং চিকিৎসার জন্য বিশেষ ব্যবস্থা গ্রহণে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা নির্দেশ দিয়েছেন।  বাস দুর্ঘটনায় প্রাণহানির ঘটনায় রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা, পরিবহণ ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের পৃথক শোক প্রকাশ করেছেন।

আজ সোমবার বিকেল সাড়ে তিনটার দিকে ঢাকা থেকে ছেড়ে আসা রাজশাহীগামী যাত্রীবাহী কোচ কেয়া পরিবহন ও নাটোর থেকে নাটোরের গুরুদাসপুরগামী যাত্রীবাহী লোকাল বাসের মধ্যে মুখোমুখি সংঘর্ষে এই হতাহতের ঘটনা ঘটে বলে নাটোরের পুলিশ জানিয়েছেন। তিনি বলেন, আহতদের সুচিকিৎসার জন্য বিশেষ ব্যবস্থা নেয়া হয়েছে। তবে নিহতের সংখ্যা আরো বাড়তে পারে বলে জানিয়েছেন।
এদিকে, দুর্ঘটনার কারণ তদন্তের জন্য পরিবহণ ও সেতু মন্ত্রণালয়ের পক্ষ থেকে তিন সদস্যবিশিষ্ট একটি তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়েছে।

দুর্ঘটনার পর নাটোর ফায়ার সার্ভিস ও হাইওয়ে পুলিশ এলাকাবাসীর সহায়তায় উদ্ধার তৎপরতা শুরু করে। বিকেল সাড়ে চারটার দিকে ২৫টি লাশ উদ্ধার করে ট্রাকে নাটোর আধুনিক সদর হাসপাতালের মর্গে নিয়ে আসা হয়। আহতদের সুচিকিৎসার জন্য বিভিন্ন সরকারি ও বেসরকারি হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে।
এদিকে, নাটোরের বাস দুর্ঘটনায় হতাহতের ঘটনায় এলজিইডি প্রতিমন্ত্রী ও বাংলাদেশ সড়ক পরিবহন মালিক সমিতির সভাপতি মশিউর রহমান রাঙ্গা গভীর শোক ও দুঃখ প্রকাশ করেছেন।
আজ এক শোক বিবৃতিতে তিনি হতাহতের পরিবার-পরিজনদের প্রতি গভীর সমবেদনা প্রকাশ করে বলেন, শ্রমিক-মালিক ও যাত্রীদের সহায়তায় এই ধরনের সড়ক দুর্ঘটনা রোধ করা সম্ভব।