ব্রেকিং নিউজ

সকাল ১০:১৫ ঢাকা, শুক্রবার  ২১শে সেপ্টেম্বর ২০১৮ ইং

“নাগরিকদের রাজনৈতিক দলের তথ্য দিতে বাধ্য নির্বাচন কমিশন”

নির্বাচন কমিশনে (ইসি) রাজনৈতিক দলের বিষয়ে তথ্য চাইলে নাগরিকদের সে তথ্য দিতে কমিশন বাধ্য থাকবেন বলে রায় দিয়েছেন হাইকোর্ট।

বৃহস্পতিবার বিচারপতি ফারাহ মাহবুব ও বিচারপতি কাজী মো. ইজারুল হক আকন্দের সমন্বয়ে গঠিত হাইকোর্টের একটি বেঞ্চ এ রায় দেন।

আদালতে এ সংক্রান্ত রিট আবেদন করেছিলেন সুশাসনের জন্য নাগরিক- সুজন সম্পাদক বদিউল আলম মজুমদারসহ ছয়জন।

রিটকারী অন্যরা হলেন- তত্ত্বাবধায়ক সরকারের সাবেক উপদেষ্টা এম হাফিজ উদ্দিন খান, এএসএম শাহজাহান, গবেষক ও কলামিস্ট সৈয়দ আবুল মকসুদ, স্থানীয় সরকার বিশেষজ্ঞ অধ্যাপক ড. তোফায়েল আহমেদ এবং মন্ত্রিপরিষদ বিভাগের সাবেক সচিব আলী ইমাম মজুমদার।

রিট আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে আদালত রুল জারি করেছিলেন। সেই রুলের চূড়ান্ত শুনানি শেষে আদালত আজ এ রায় দিল।

আদালতে রিটের পক্ষে শুনানি করেন আইনজীবী ড. শরিফ ভূঁইয়া ও ব্যারিস্টার তানিম হোসেইন। তথ্য কমিশনের পক্ষে ছিলেন- ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল আমাতুল করীম। আর ইসির পক্ষে শুনানি করেন অ্যাডভোকেট তৌহিদুল ইসলাম।

পরে রিট আবেদনকারীদের আইনজীবী শরিফ ভূঁইয়া সাংবাদিকদের বলেন, নিবন্ধিত রাজনৈতিক দলগুলোকে নির্বাচন কমিশনে আয়-ব্যয়ের হিসাব জমা দিতে হয়। ২০১৩ সালের জুন মাসে বদিউল আলম মজুমদার তথ্য অধিকার আইনের আওতায় নির্বাচন কমিশনের কাছে রাজনৈতিক দলের আয়-ব্যয়ের হিসেবের তথ্য জানতে চান।

তিনি বলেন, নির্বাচন কমিশন তখন জানায়, রাজনৈতিক দলের অনুমতি ছাড়া এ হিসাবে দেয়া যাবে না। এরপর তিনি কয়েক দফায় নির্বাচন কমিশন ও তথ্য কমিশনের কাছে এ সংক্রান্ত আবেদন করেন। কিন্তু প্রতিবারই তার আবেদন নাকচ করা হয়।

এ পরিপ্রেক্ষিতে ওই ছয়জন ২০১৪ সালে আদালতে রিট আবেদন করেন। তারই নিষ্পত্তি করে হাইকোর্ট এ আদেশ দিল বলেও জানান শরিফ ভূঁইয়া।