Press "Enter" to skip to content

নভেম্বরেই ঘূর্ণিঝড়ের সম্ভাবনা

শীত পড়ার আগেই নভেম্বরে বঙ্গোপসাগরে এক থেকে দুটি নিম্নচাপ হতে পারে। আবহাওয়া অধিদফতর আভাস দিয়েছে, নিম্নচাপ দুটির মধ্যে একটি ঘূর্ণিঝড়ের রূপ নিতে পারে।

চলতি মাসের আবহাওয়ার দীর্ঘমেয়াদি পূর্বাভাসে এ তথ্য জানানো হয়েছে।

আবহাওয়া অধিদফতরের পরিচালক শামসুদ্দিন আহমেদ গণমাধ্যমকে বলেন, এবার নভেম্বরে স্বাভাবিকের চেয়ে কম বৃষ্টি হতে পারে। মাসের মাঝামাঝি শীত ভাব বাড়বে।

বাংলা পঞ্জিকায় এখন চলছে কার্তিকের শেষ সপ্তাহ। পৌষ আসতে মাস দেড়েক বাকি। তবে তাপমাত্রা এরই মধ্যে কমতে শুরু করেছে। রাতের শেষভাগে থাকছে হিম হিম ভাব।

শামসুদ্দিন আহমেদ বলেন, এখন উত্তরে হাওয়া না বইলেও মধ্য কার্তিকে কোথাও কোথাও ঝিরঝিরে বৃষ্টি ঠাণ্ডার অনুভূতি বাড়িয়েছে। হেমন্তে সন্ধ্যারাত ও ভোরে কুয়াশা বা হালকা বৃষ্টি অস্বাভাবিক নয়।

‘বাতাসে সর্বোচ্চ ও সর্বনিম্ন তাপমাত্রার ব্যবধান কমে এলে ঠাণ্ডার অনুভূতিও বেড়ে যায়।’

ঘূর্ণিঝড় তিতলির প্রভাবে বৃষ্টির রেশ কাটতেই লঘুচাপের প্রভাবে অক্টোবরের শেষে বৃষ্টি ছিল দেশের বিভিন্ন স্থানে। দক্ষিণ-পশ্চিম মৌসুমি বায়ু বিদায় নিলেও ঝিরঝিরে বৃষ্টিতে তাপমাত্রা কমে এসেছিল খানিকটা।

আবহাওয়া অফিস বলছে, ডিসেম্বরের শেষ ভাগে দেশের উত্তর, উত্তর-পূর্বাঞ্চল ও মধ্যাঞ্চলে মৃদু থেকে মাঝারি শৈত্যপ্রবাহ বয়ে যেতে পারে। সে সময় ঘনকুয়াশা দেখা যেতে পারে।

সোমবার রাজধানীসহ কয়েকটি জায়গায় হালকা বৃষ্টি হয়েছে। সর্বোচ্চ বৃষ্টিপাত রেকর্ড করা হয়েছে সিলেটে, ৩৯ মিলিমিটার।

মঙ্গলবারের আবহাওয়ার পূর্বাভাসে বলা হয়েছে, কিশোরগঞ্জ জেলাসহ ময়মনসিংহ ও সিলেট বিভাগের দুয়েক জায়গায় হালকা বৃষ্টির সম্ভাবনা রয়েছে। এ ছাড়া দেশের অন্য জায়গায় আকাশ আংশিক মেঘলা থাকতে পারে।

Mission News Theme by Compete Themes.