ব্রেকিং নিউজ

দুপুর ১২:২০ ঢাকা, বুধবার  ২৬শে সেপ্টেম্বর ২০১৮ ইং

আ. লীগ এমপি ধাওয়া খেয়ে দৌড়ে প্রান রক্ষা করলেন, গুলিবিদ্ধঃ ৩

ওয়ার্ড সম্মেলন শেষ না করেই বাঘারপাড়ার জহুরপুর ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সম্মেলন করায় স্থানীয় নেতাকর্মীরা ক্ষুব্ধ হয়ে এমপি রণজিত রায়সহ নেতাদের ধাওয়া করেছেন। বুধবার বাঘারপাড়ার বেতালপাড়া বাজারে এ ঘটনা ঘটে। এসময় পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণ করতে পুলিশ রাবার বুলেট ছুঁড়েছে। এতে তিনজন গুলিবিদ্ধসহ আহত হয়েছেন অন্তত ২৫ জন।

গুলিবিদ্ধ তিনজন হলেন- হুলদা গ্রামের শরিফুল ইসলাম (৩০), দক্ষিণ সলুয়া গ্রামের মহিন (২০), হুলিহট্ট গ্রামের মাসুদ (২৫)। এছাড়া পুলিশের লাঠিচার্জে আহত হয়েছেন হুলদা গ্রামের নাইম (২২), টিপু (৩০), আজিজুরসহ (২৫) আরও অজ্ঞাতনামারা। তাদের বাঘারপাড়া ও যশোরে ভর্তি করা হয়েছে।

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, জহুরপুর ইউনিয়নের চারটি ওয়ার্ডের সম্মেলন শেষ না করেই ১৭ ডিসেম্বর ইউনিয়ন কমিটি গঠনের তারিখ দেন উপজেলা নেতারা। এতে ক্ষুব্ধ হয়ে উপজেলা নেতাদের ধাওয়া করেন তৃণমূল কর্মীরা। এসময় যশোর-৪ আসনের এমপি ও বাঘারপাড়া উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি রণজিৎ কুমার রায় প্রান রক্ষার্থে দৌড়ে একটি ঘরে আশ্রয় নেন। নেতাকর্মীরা তাকে একঘণ্টা অবরুদ্ধ করে রাখেন। পরে অতিরিক্তি পুলিশ গিয়ে তাকে মুক্ত করেন। আর উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক জুলফিক্কার আলী জুলাইসহ অন্য নেতারা পালিয়ে যান।

ঘটনাস্থলে উপস্থিত উপজেলা যুবলীগের নেতা ও জহুরপুর ইউনিয়নের চেয়ারম্যান দিলু পাটোয়ারি সাংবাদিকদের জানিয়েছেন, জহুরপুর ইউনিয়নের ৩, ৪,৭,৮, এ চারটি ওয়ার্ডে আওয়ামী লীগের কমিটি গঠন না করেই উপজেলা থেকে ইউনিয়ন কমিটি গঠনের জন্য বুধবার বিকালে নেতারা বেতালপাড়া বাজারে আসেন। এতে স্থানীয় নেতাকর্মী ক্ষুব্ধ হয়ে তাদের ধাওয়া করলে পুলিশ গুলিবর্ষণ করে। এতে কমপক্ষে ১৫/২০ জন আহত হয়েছে।

বাঘারপাড়া থানা জানায়, আওয়ামী লীগের দু’পক্ষে সংঘর্ষ হয়েছে। পুলিশ পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে রাবার বুলেট ছুঁড়েছে। তবে এমপি অবরুদ্ধের বিষয়ে ওসি অস্বীকার করেছেন।