ব্রেকিং নিউজ

রাত ১০:৫৮ ঢাকা, শনিবার  ২২শে সেপ্টেম্বর ২০১৮ ইং

ফাইল ফটো

দেশ ভয়াবহ দুর্যোগে ‘এই সংকট বিএনপির নয়, মুক্তচিন্তার সংকট’: ফখরুল

ইংরেজি দৈনিক ‘দ্য ডেইলি স্টার’ সম্পাদক মাহফুজ আনামের বিরুদ্ধে অজস্র মানহানি মামলার প্রসঙ্গ টেনে বিএনপির ভারপ্রাপ্ত মহাসিচব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেছেন, দেশ আজ ভয়াবহ দুর্যোগের মধ্যে। এটিকে এতদিন বলা হচ্ছিল বিএনপির সংকট। কিন্তু এখন পরিষ্কার- এই সংকট শুধু বিএনপির নয়, মুক্তচিন্তার সংকট। এ থেকে কেউ মাফ পাবে না।

বুধবার দুপুরে ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটির ‘সাগর-রুনি মিলনায়তনে’ এক প্রতিবাদ সভায় তিনি একথা বলেন।

গাজীপুর সিটি কর্পোরেশনের মেয়র ও বিএনপি নেতা এমএ মান্নানের মুক্তির দাবিতে এই প্রতিবাদ সভার আয়োজক ‘এমএ মান্নান মুক্তি পরিষদ’।

মির্জা ফখরুল বলেন, ‘এখন দেশে মানুষের অধিকার, মত প্রকাশের স্বাধীনতা বলে কিছুই নেই। গণতন্ত্রকে ভিন্নখাতে নিয়ে গেছে এবং সেজন্য যা কিছু করা দরকার তার সবই এই সরকার করছে।’

তিনি বলেন, ‘গণতান্ত্রিক ব্যবস্থায় অবশ্যই সরকারের সমালোচনা হবে। কিন্তু এখন সমালোচনা করতে গেলেই রাষ্ট্রদ্রোহ মামলা হয়, কথা বলা যায় না। পত্রিকায় লেখা যায় না। সরকারের বিরুদ্ধে কিছু বললে রাষ্ট্রদ্রোহ মামলা হয়। খালেদা জিয়া কথা বললে তার বিরুদ্ধে রাষ্ট্রদ্রোহ মামলা হয়।’

মির্জা ফখরুল বলেন, ‘ সত্য ও মানুষের অধিকার নিয়ে কথা বলায় আমার দেশ সম্পাদক মাহমুদুর রহমানকে বিনা বিচারে আটক থাকতে হচ্ছে।’

তিনি বলেন, ‘সারা দেশে এখন মামলা উৎসব শুরু হয়েছে। ধরলেই টাকা। খোঁজ করলে কী মামলা, কি কারণে, তার কোনো নিদর্শন খুঁজে পাওয়া যায় না।’

মির্জা ফখরুল অভিযোগ করেন, ‘আসন্ন ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে কি হবে আমরা জানি। বরাবরের মতো ভোটের আগের রাতেই প্রশাসন দিয়ে ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগ ব্যালট বাক্স ভরে ফেলবে।’

তিনি বলেন, ‘তারপরও আমরা এই নির্বাচনের মধ্য দিয়ে জনগণের কাছে যাচ্ছি। কারণ জনগণ আরও ভালো করে দেখুক- আওয়ামী লীগের অধীনে কখনও সুষ্ঠু নির্বাচন সম্ভব নয়।’

এ সময় বিএনপির ভারপ্রাপ্ত মহাসচিব দ্বিধা-দ্বন্দ্ব ভুলে দলীয় নেতাকর্মীদের আসন্ন ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে ধানের শীষ প্রতীকের প্রার্থীদের পক্ষে কাজ করার আহ্বান জানান।

ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগ সরকারের শাসনামলে বিএনপির নেতাকর্মীদের নির্যাতনের পরিসংখ্যান তুলে ধরে তিনি বলেন, ‘৪ লাখ ১৮ হাজার নেতাকর্মীদের বিরুদ্ধে মামলা ছিল। প্রায় ৩২ হাজার কর্মীকে আটক করা হয়েছিল। আওয়ামী লীগের গত কয়েক বছরে ছয়শ’র বেশি মানুষকে হত্যা করা হয়েছে। সাড়ে চারশ’ নেতাকর্মীকে গুম করা হয়েছে। কয়েকশ’ কর্মীকের গুলি করে পঙ্গু করা হয়েছে। এই হচ্ছে অবৈধ সরকারের গণতন্ত্র ও মানবাধিকারের নমুনা।’

বিএনপির এই নেতা বলেন, অবাধ নির্বাচন ছাড়া দেশে গণতন্ত্র প্রতিষ্ঠা করা সম্ভব নয়। এজন্য সরকারকে আলোচনার মাধ্যমে একটি নিরপেক্ষ নির্বাচনের প্রক্রিয়া ঠিক করারও আহ্বান জানান তিনি।

মির্জা ফখরুল বিএনপি নেতা এমকে আনোয়ার, মির্জা আব্বাস, এমএ মান্নান, আবদুস সালাম পিন্টু, শওকত মাহমুদ, মাহমুদুর রহমানসহ সব কারাবন্দিদের মুক্তি দাবি করেন।

গাজীপুর জেলা বিএনপির সভাপতি ও বিএনপির সাংগঠনিক সম্পাদক ফজলুল হক মিলনের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে আরও বক্তব্য রাখেন- বিএনপি চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা শামসুজ্জামান দুদু, যুবদল সভাপতি সৈয়দ মোয়াজ্জেম হোসেন আলাল, বিএনপির সহ-দফতর সম্পাদক শামীমুর রহমান শামীম, জেলা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক কাজী সাইদুল আলম বাবুল, ডা. রফিকুল ইসলাম বাচ্চু, কেন্দ্রীয় নেতা মনিরুল ইসলাম, সুরুজ আহমেদ প্রমুখ।