ব্রেকিং নিউজ

রাত ১২:৩০ ঢাকা, মঙ্গলবার  ১৩ই নভেম্বর ২০১৮ ইং

দেশে ৮১ লক্ষ ব্যবসা প্রতিষ্ঠানের মধ্যে ৭১ লক্ষের আয়কর ফাইল নেই

জাতীয় রাজস্ব বোর্ডের (এনবিআর) তথ্যানুযায়ী, সোমবার পর্যন্ত অনলাইনে করদাতা শনাক্তকরণ নম্বর (ই-টিআইএন) গ্রহণের মাধ্যমে ১৪ লাখের বেশি করদাতা নিবন্ধিত হয়েছেন। এর মধ্যে ১০ লাখের বেশি করদাতা কোম্পানি ও ব্যবসাপ্রতিষ্ঠান হিসেবে নিবন্ধিত।দেশের ছোট-বড়-মাঝারি প্রায় ৮১ লাখ ব্যবসা প্রতিষ্ঠানের মধ্যে ৭১ লাখেরই আয়কর ফাইল নেই। এর মধ্যে অর্থনৈতিকভাবে সুসংহত ব্যবসাপ্রতিষ্ঠান ৪৬ লাখ। তবে আয়কর ফাইল আছে মাত্র ১০ লক্ষাধিক ব্যবসাপ্রতিষ্ঠানের। এই তথ্য এনবিআর ও বিবিএসের।
বাংলাদেশ পরিসংখ্যান ব্যুরো (বিবিএস) তথ্যানুযায়ী, গণজরিপ, ২০১৩-এর মাধ্যমে দেশব্যাপী ৮০ লাখ ৭৫ হাজার ব্যবসাপ্রতিষ্ঠান ও এসব প্রতিষ্ঠানের মালিকদের তথ্য সংগ্রহ করেছে বিবিএস। এর মধ্যে প্রায় ৪৬ লাখ ব্যবসাপ্রতিষ্ঠান পাওয়া গেছে, যারা আর্থিকভাবে সুসংহত অবস্থানে আছে। ২৯ লাখ প্রতিষ্ঠান রয়েছে মধ্যম পর্যায়ে, বাকিগুলো নিম্ন পর্যায়ে। বিবিএস তাদের জরিপে ব্যবসাপ্রতিষ্ঠানের সংখ্যার পাশাপাশি এর ধরন, অর্থনৈতিক অবস্থা, উৎপাদিত পণ্যের ধরন, প্রতিষ্ঠানের কর্মকর্তা-কর্মচারীর সংখ্যা, মূলধনের আকার, ব্যবসাপ্রতিষ্ঠান ও মালিকদের করসংশ্লিষ্ট তথ্যও সংগ্রহ করা হয়েছে। এ প্রসঙ্গে এনবিআর সদস্য মো. লোকমান হোসেন বাংলাদেশ প্রতিদিনকে বলেন, ৮১ লাখের মধ্যে ৭১ লাখ ব্যবসাপ্রতিষ্ঠানের আয়কর ফাইল নেই। আর আর্থিকভাবে সুসংহত ৪৬ লাখ ব্যবসাপ্রতিষ্ঠানের মধ্যে প্রায় ৩০ লাখই গ্রামের হতে পারে। এর মধ্যে কৃষিভিত্তিক শিল্পপ্রতিষ্ঠান আছে কি না, তা পরিষ্কার নয়। তবে দেশে ১৫ লাখের মতো বড় ব্যবসাপ্রতিষ্ঠানের আয়কর ফাইল নেই বলে তিনি জানান। এনবিআর সূত্রের তথ্যানুযায়ী, প্রায় ৮১ লাখ ব্যবসাপ্রতিষ্ঠানের আয়-ব্যয়ের তথ্য অনুসন্ধান করতে যাচ্ছে কর বিভাগ। তারই অংশ হিসেবে বিবিএসের তথ্য পর্যালোচনা করা হচ্ছে। ওই তথ্যের পাশাপাশি দেশের সব সিটি করপোরেশন ও মেট্রোপলিটন এলাকার ট্রেড লাইসেন্সধারীদের তথ্য সংগ্রহের উদ্যোগ নিয়েছে এনবিআর। এসব ব্যবসাপ্রতিষ্ঠানের তথ্য নিয়ে কারা কীভাবে কর দিচ্ছেন, তা যাচাই-বাছাই করা হবে। পরে তাদের মধ্য থেকে যারা করযোগ্য আয় করেও কর দিচ্ছে না, তাদের করের নথি খোলা ও কর আদায়ের ব্যবস্থা করা হবে। আর যারা কর দিচ্ছে তারা আয়ের বিপরীতে কতটুকু কর পরিশোধ করছে, তাও যাচাই-বাছাই করে ব্যবস্থা নেবে এনবিআর। এনবিআর জানিয়েছে, রাজস্ব আদায়ে করের ভিত্তি সম্প্রসারণ ও চলতি ২০১৪-১৫ অর্থবছরের কর আদায়ের উচ্চ লক্ষ্যমাত্রা অর্জনে সর্বোচ্চ তৎপরতা চালাচ্ছে এনবিআর। বর্তমানে ১৪ লাখ করদাতা থাকলেও তাদের মধ্যে ১১ লাখ সক্রিয় করদাতা। এই করদাতারা নিয়মিত আয়কর বিবরণী বা রিটার্ন দাখিল করেন। এর মধ্যে ব্যবসাপ্রতিষ্ঠান, ব্যবসায়ী ও বেতনভুক কর্মচারী আছেন। তথ্যমতে, চলতি অর্থবছরের বাজেট অনুযায়ী ১ লাখ ৪৯ হাজার কোটি টাকা রাজস্ব আদায় করতে হবে সরকারকে। বর্তমানে মোট দেশজ উৎপাদনে (জিডিপি) রাজস্ব খাতের অবদান ১০ শতাংশ। তবে প্রতিবেশী দেশগুলোর জিডিপিতে রাজস্ব খাতের অবদান ১৫ শতাংশের ওপরে। ফলে ২০১৮ সালের মধ্যে জিডিপিতে রাজস্বের অবদান ১৫ শতাংশে নিয়ে যেতে হলে প্রতি বছর ১ শতাংশেরও বেশি হারে বাড়াতে হবে। এসব বিবেচনায় আগামী চার বছরে রাজস্ব আহরণ কীভাবে বাড়ানো যায় তার জন্য পথনকশা তৈরি করতে এনবিআরকে নির্দেশ দিয়েছেন অর্থমন্ত্রী। ওই নির্দেশের পরই পথনকশা তৈরি করতে এনবিআরের সদস্য ফরিদ উদ্দিনকে কমিটির আহ্বায়ক এবং ড. মাহবুবুর রহমান ও ফিরোজ শাহ আলমকে সদস্য করে তিন সদস্যবিশিষ্ট কমিটি গঠন করা হয়েছে।

Like & share করে অন্যকে দেখার সুযোগ দিন

FOLLOW US: