Sheersha Media

ব্রেকিং নিউজ

সকাল ৬:৩৪ ঢাকা, সোমবার  ১৯শে নভেম্বর ২০১৮ ইং

রুহুল কবির রিজভী
বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী, ফাইল ফটো

দেশে সব সময়ের জন্য একটি সান্ধ্য আইন জারি আছে : রিজভী

বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম-মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী সরকারের সমালোচনা করতে গিয়ে বলেছেন,  মানুষের কণ্ঠস্বরকে নির্বাক করার জন্য বেআইনি নিষ্ঠুর দমন মুলক একটি সান্ধ্য আইন সব সময়ের জন্য জারি করে রাখা হয়েছে।

শুক্রবার বেলা ১১টায় নয়াপল্টনের বিএনপি কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে অনুষ্ঠিত এক সংবাদ সম্মেলনে এই অভিযোগ দলটির সিনিয়র যুগ্ম-মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী।

রিজভী বলেন, ভোটারবিহীন প্রধানমন্ত্রী বরাবরই বিরোধী দলের প্রতি সকাল সন্ধ্যা ক্রুদ্ধ হুঙ্কার আর র্ভৎসনামূলক বক্তব্য দিতে ভাল বাসেন- অত্যাচার ও উৎ’পীড়নের সকল পন্থা অবলম্বনের পরও। তার এ নিষ্ঠুর আচরণে একমাত্র উদ্দেশ্য হচ্ছে বিরাজমান জনঅন্তোষের পক্ষে কেউ যাতে কথা না বলতে পারে। দেশে মনে হয় সব সময়ের জন্য একটি সান্ধ্য আইন জারি করে রাখা হয়েছে। মানুষের কণ্ঠস্বরকে নির্বাক করার জন্যই এ বেআইনি নিষ্ঠুর দমন মুলক সান্ধ্য আইন জারি রাখা হয়েছে। মানুষের গণতান্ত্রিক অধিকারকে পুলিশের কাছে বিলীন করে দেয়া হয়েছে। এ রাষ্ট্র এখন পুলিশের র্কতৃত্বে। সুতরাং অর্থনীতিকে দেউলিয়া করে জনগনকে চরম দূর্বিপাকে ফেলার পরও কেউ যাতে প্রতিবাদী না হতে পারে তার জন্যই পুলিশকে দেয়া হয়েছে অপরিসীম ক্ষমতা। পুলিশ র‌্যাব এখন বাংলাদেশে হত্যাবিলাসী প্রতিষ্ঠানে পরিণত হয়েছে। রাষ্ট্র শক্তিকে নিজেদের সুবিধামত ব্যবহার করার জন্যই আইনপ্রয়োগকারী সংস্থাগুলোকে সরকার নিজেদের মনের মত করে সাজিয়ে নিয়েছে। কারণ এদেরকে দিয়ে সরকারের দীর্ঘস্থায়ী ক্ষমতা আঁকড়ে রাখতে সহ্য়াতা নেয়া আর সরকারের সীমাহীন দুর্নীতি আর লুটপাটের বিরুদ্ধে প্রতিবাদী কণ্ঠকে নিস্তব্ধ করার ভাড়াটিয়া বাহিনী হিসেবে কাজ কারনো।

রিজভী বলেন, ভোটারবিহীন এ অবৈধ সরকারের অপশাসন, ভয়াবহ সন্ত্রাস আর দূর্নীতিকে চেপে ধরে রাখার জন্য তারা শুধু মানুষের কন্ঠরোধই করছেনা, তারা গণমাধ্যমকে সম্পূর্নভাবে নিয়ন্ত্রণ করছে। আর এজন্য গণমাধ্যম বন্ধসহ সম্পাদক ও সাংবাদিকদের গ্রেফতার নির্যাতন ও দলন নিপীড়ণের মাধ্যমে আতঙ্ক ছড়িয়ে দিয়েছে। সকল গণমাধ্যমকে রাখা হয়েছে প্রবল হুমকির মধ্যে । অবৈধ সরকার বাংলাদেশের গণমাধ্যমকে যে নিয়ন্ত্রণ করছে সে বিষয়ে জাতিসংঘসহ আর্ন্তজাতিক মানবাধিকার সংস্থাগুলো উদ্বেগ প্রকাশ করে বিবৃতি দিয়েছেন। বিশিষ্ট সাংবাদিক, সময়ের প্রতিবাদী কন্ঠস্বর, দৈনিক আমার দেশ পত্রিকার সাহসী সম্পাদক, অবৈধ ভোটারবিহীন সরকারের আতঙ্ক, স্বাধীন বিবেকের প্রতিনিধি মাহমুদুর রহমানকে তিন বছর ধরে মিথ্যা মামলা দিয়ে কারাগারে আটক করে রাখা হয়েছে। তিনি বার বার উচ্চ আদালত থেকে জামিন পেলেও মিথ্যা ও রাজনৈতিক হীন উদ্দেশ্যপ্রণোদিত মামলায় শ্যোন এরেস্ট দেখিয়ে তাকে কারা প্রকোষ্টে আটকে রাখা হচ্ছে। বর্তমানে তাঁকে তিলে তিলে নি:শেষ করার ষড়যন্ত্র করা হচ্ছে। তিনি প্রায় তিন বছর ধরে কারাগারে থাকলেও গত বুধবার কোতোয়ালী থানার ২১ ফেব্রুয়ারী ২০১৩ তারিখের নাশকতার একটি বানোয়াট ও মিথ্যা মামলায় তাঁকে আবারো গ্রেফতার দেখিয়ে পুলিশ আদালতে ১০ দিনের রিমান্ড আবেদন করে। আদালত আগামী ১২ এপ্রিল ২০১৬ তারিখে রিমান্ড আবেদনের ওপর শুনানীর দিন ধার্য করেছেন। কারাগারে আটক থাকা অবস্থায় নতুন করে মাহমুদুর রহমানকে আটক দেখিয়ে রিমান্ড চাওয়া সম্পূর্ণ অমানবিক ও সরকারের নিষ্ঠুর প্রতিহিংসা চরিতার্থেরই বহি:প্রকাশ। ভোটচারবিহীন প্রধানমন্ত্রী একতরফা প্রভুত্ব করার উদ্দেশ্যই প্রতিবাদি কণ্ঠস্বর মাহমুদুর রহমানকে কারাগারে আটকে রেখেছে। আমি বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী দলের পক্ষে সাহসী সম্পাদক মাহমুদুর রহমানের রিমান্ড আবেদন বাতিল করে তাঁর বিরুদ্ধে দায়েরকৃত সকল মিথ্যা মামলা প্রত্যাহার ও অবিলম্বে নি:শর্ত মুক্তির জোর দাবি করছি।

রিজভী বলেন,  গ্যাস-বিদ্যুতের দাম বাড়ানোর সরকারী হীন পরিকল্পনার বিরুদ্ধে তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানাচ্ছে বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী দল বিএনপি । আমি দলের পক্ষ থেকে অবিলম্বে সরকারের এ ধরনের গণবিরোধী পরিকল্পনা থেকে সরে আসার জোরালো আহবান জানাচ্ছি। অন্যথায় গ্যাস-বিদ্যুতের দাম বৃদ্ধি করলে বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী দল বিএনপি জনগনকে সাথে নিয়ে কঠোর কর্মসূচী ঘোষণা করবে।