Sheersha Media

ব্রেকিং নিউজ

সকাল ১০:৫১ ঢাকা, সোমবার  ১৯শে নভেম্বর ২০১৮ ইং

ফাইল ফটো

দেশে বজ্রপাতে ৪১ জনের মৃত্যু, আহত ১৬

রাজধানীসহ সারাদেশে বজ্রপাতে শিশুসহ অন্তত ৪১ জনের মৃত্যু হয়েছে। আহত হয়েছে আরো ১৬ জন।

গতকাল বৃহস্পতিবার সারাদেশে বজ্রপাতে এ নিহত-আহতের ঘটনা ঘটে।

রাজধানীর ডেমরা কোনাপাড়া কাঠেরপুল এলাকায় বজ্রপাতে গতকাল বৃহস্পতিবার দুই যুবক মারা যান। এসময় আহত হয় আরও এক যুবক। সন্ধ্যায় তাদের উদ্ধার করে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নেয়া হলে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাহসান লিংকন (২১) ও শাহেদকে (২৩) মৃত ঘোষণা করেন।

পাবনার সুজানগর উপজেলার আমিনপুর থানায় বজ্রপাতে দুই স্কুলছাত্রসহ ছয় জনের মৃত্যু হয়েছে। এরা হলো-আহম্মদপুর ইউনিয়নের দক্ষিণচর গ্রামের শহীদ সর্দার (৫৮), সোনাতলা গ্রামের হীরা (১৩) এবং রানীনগর ইউনিয়নের বাঘলপুর গ্রামের ময়েন সরদার (৬৫) এবং তার নাতনী শিখা খাতুন (১৩) এবং চাটমোহর উপজেলার পার্শ্বডাঙ্গা ইউনিয়নের বাউদকান্দি গ্রামের মল্লিক পাড়ার ফজলুর রহমান (৪০) এবং ছকির উদ্দিন (৭০)।

কিশোরগঞ্জ জেলার বিভিন্ন স্থানে বজ্রপাতে কলেজ ছাত্রসহ চারজনের মৃত্যু হয়েছে। এরা হলেন-হোসেনপুর উপজেলার আড়াইবাড়িয়া গ্রামের হোসেনপুর ডিগ্রি কলেজের প্রথম বর্ষের ছাত্র শরীফুল ইসলাম শুভ (১৮), তাড়াইল উপজেলার ইছাপছর গ্রামের মমতা বেগম (৪০), বাজিতপুর উপজেলার কৈকুরি গ্রামের রেজিয়া খাতুন (৫৬) ও বাহের নগর গ্রামের স্বপন (১৭)।

রাজশাহীর জেলার মোহনপুর, দুর্গাপুর ও গোদাগাড়ী উপজেলায় বজ্রপাতে দুই নারীসহ পাঁচজনের মৃত্যু হয়েছে। আর বাগমারায় তিন নারীসহ আহত হয়েছেন আরো ছয়জন।  বৃহস্পতিবার মোহনপুর উপজেলার ঘাষিগ্রাম ইউনিয়নে বজ্রপাতে তিন কৃষকের মৃত্যু হয়েছে। এছাড়া আহত হয়েছেন আরো তিনজন। নিহতরা হলেন আতা নারায়ণপুর গ্রামের আব্দুর রাজ্জাক (২৮), হাততৈড় গ্রামের আব্দুল আজিজ (৫০) ও ডাঙ্গাপাড়া গ্রামের শ্রী সৈত চন্দ্র (৩০)।  গোদাগাড়ী উপজেলার গুসিরা গ্রামে বজ্রপাতে এক নারীর মৃত্যু হয়েছে। বৃহস্পতিবার দুপুর ১টার দিকে গুসিরা গ্রামের মোয়াজ্জেম হোসেনের স্ত্রী লাইলী বেগম (৪০) মাঠে ছাগল চড়াচ্ছিলেন। এসময় বজ্রপাত হলে ঘটনাস্থলেই তার মৃত্যু হয়। আম কুড়াতে গিয়ে বজ্রপাতে মারা যান দুর্গাপুর উপজেলার পালশা খামারুপাড়া এলাকার মুনছুর রহমানের স্ত্রী মর্জিনা বেগম (৪০)।

নরসিংদী ও রায়পুরা উপজেলায় একই দিনে বজ্রপাতে তিনজনের মৃত্যুর খবর পাওয়া গেছে। এরা হলেন সদর উপজেলার মহিষাশুরু ইউনিয়নে মহিষাশুরা গ্রামে আব্দুল করিম (৫০), নজরপুর ইউনিয়নের চম্পকনগর গ্রামে ফুলি বেগম (৩২) নামে এক গৃহবধূ এবং রায়পুরা উপজেলার শ্রীনগর ইউনিয়নের ফকিরচর গ্রামে জ্যোসনা বেগম (৩৮)।

ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলার বাঞ্ছারামপুরে বজ্রপাতে তিনজনের মৃত্যু হয়েছে। এরা হলেন, কানাইনগর গ্রামের কবির হোসেন (২৭), চরশিবপুর গ্রামের শবিকুল ইসলাম (২৭) ও বালুরচর গ্রামের সামছুল হক (৪৫)।

নাটোর ও লালপুরে গতকাল দুই জেলায় দুইজন নিহত। আহত হয়েছে আরও দুইজন। বজ্রপাতে নাটোরের লালপুর উপজেলার উত্তর লালপুরের সাহারা বানু (৪৮) ও রঘুনাথপুর গ্রামের মোবারক আলী (৩০) মারা গেছেন।

নারায়ণগঞ্জের মেঘনা নদীতে মাছ ধরতে গিয়ে বজ্রপাতে সদর উপজেলার দোয়ানী গ্রামের বলরাম দাস (৫০) নামের এক জেলে নিহত হয়েছেন।

দিনাজপুরের ফুলবাড়িতে বজ্রপাতে মঙ্গল মুরমু (৫৫) নামের এক বৃদ্ধের মৃত্যু ঘটেছে। মঙ্গল মুরমুর বাড়ি উপজেলার শিবনগর ইউনিয়নের বাসুদেবপুর আমপাড়া গ্রামে।

হবিগঞ্জ জেলার বানিয়াচংয়ে হাওরে ধান কাটতে গিয়ে বজ্রপাতে প্রতাপপুর গ্রামের হাবিব মিয়া (৩০) মারা গেছেন।

নরসিংদীর রায়পুরা উপজেলার শ্রীনগর ইউনিয়নের ফকিরেরচর গ্রামে বজ্রপাতে জোছনা বেগম (৩৮) নামে এক নারীর মৃত্যু হয়েছে। এসময় আহত হয়েছে আরো দুজন।

নেত্রকোনার কেন্দুয়া উপজেলায় বজ্রপাতে রইছ উদ্দিন (৫০) নামে এক কৃষক নিহত হয়েছেন। রইছ উদ্দিনের বাড়ি আশুজিয়া ইউনিয়নের ভগবতীপুর গ্রামে। স্থানীয় ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান রফিকুল ইসলাম বিষয়টি নিশ্চিত করেন।

পিরোজপুরের মঠবাড়িয়ায় ভারী বর্ষণের সময় বজ্রাঘাতে ইউনুস সিকদার (৬০) নামে এক কৃষক নিহত হয়েছেন। উপজেলার দাউদখালি ইউনিয়নের বড় হারজী গ্রামে এ দুর্ঘটনা ঘটে। এসময় তার ছোট ভাইয়ের স্ত্রী আয়েশা আহত হন। ইউনুসের বাড়ি উপজেলার বড় হারজী গ্রামে।

গাজীপুরের কাপাসিয়ায় বজ্রপাতে দুইজনের মৃত্যু হয়েছে। এরা হলেন কুড়িগ্রাম জেলার কচাকাটা থানার সাতআনা গ্রামের আব্দুস সাত্তার আলী (২৬) এবং গাজীপুরের কাপাসিয়া উপজেলার সিঙ্গুয়া পশ্চিম পাড়া গ্রামের রুবি (৪০)। কাপাসিয়া থানার ওসি আবু বকর সিদ্দিক এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

নওগাঁর আত্রাই উপজেলায় বজ্রপাতে জয়নাল উদ্দিন (৬৫) নামে এক কৃষকের মৃত্যু হয়েছে। জয়নালের বাড়ি উপজেলার বিষা উত্তর গ্রামে।

নাটোরের লালপুর উপজেলায় বজ্রপাতে দুইজন নিহত হয়েছেন। আহত হয়েছে আরো দুইজন। নিহতরা হলো, উত্তর লালপুর গ্রামের সাহারা বানু (৩২) এবং রঘুনাথপুর পূর্বপাড়া গ্রামের মোবারক আলী (৩৫)।

নেত্রকোনার পূর্বধলায় বজ্রপাতে রুবেল মিয়া (২৫) নামের এক যুবক নিহত হয়েছে। তার বাড়ি উপজেলার বিশকাকুনী ইউনিয়নের ধোবারুহী গ্রামে।

সিরাজগঞ্জের রায়গঞ্জ উপজেলার পাঙ্গাসী ইউনিয়নে বজ্রপাতে সুলতান হোসেন (৩৫) এবং চকপুর গ্রামের স্কুলছাত্রী নূপুর খাতুন(৬) মারা গেছেন।

উল্লাপাড়ায় বজ্রপাতে উপজেলার শিমলা গ্রামের আব্দুল লতিফ (৩৫) ও বেতুয়া গ্রামের শাহিনুর বেগম (৩০) মারা গেছেন।