Sheersha Media

ব্রেকিং নিউজ

রাত ১২:৪৩ ঢাকা, বৃহস্পতিবার  ২২শে নভেম্বর ২০১৮ ইং

ফাইল ফটো

দেউলিয়া হবার পথে বিএনপি নামক দলটি: নাসিম

আওয়ামী লীগের সভাপতিমন্ডলীর সদস্য এবং স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রী মোহাম্মদ নাসিম বলেছেন, দলের চেয়ারপার্সন বেগম খালেদা জিয়ার ভুলের কারণেই বিএনপি নামক দলটি এখন দেউলিয়া হতে চলেছে।
তিনি বলেন, বিএনপি এখন দেউলিয়া হবার পথে। কারণ তাদের দলের কোন লক্ষ্য স্থির নেই। তারা এখনও স্বাধীনতা বিরোধী জামায়াতের সঙ্গত্যাগ করতে পারেনি।
নাসিম আজ মঙ্গলবার বিকেলে জাতীয় প্রেসক্লাবের ভিআইপি লাউঞ্জে বিশিষ্ট পরমাণু বিজ্ঞানী ড. এম এ ওয়াজেদ মিয়ার ৭৪তম জন্মবার্ষিকী উপলক্ষে আয়োজিত আলোচনা সভা ও গুণীজন পদক প্রদান অনুষ্ঠানে এ কথা বলেন। ড. এম এ ওয়াজেদ মিয়া মেমোরিয়াল ফাউন্ডেশন এই আলোচনা সভা ও গুণীজন পদক প্রদান অনুষ্ঠানের আয়োজন করে।
সংগঠনের সভাপতি একেএম ফরহাদুল কবিরের সভাপতিত্বে সভায় বাংলাদেশের সংবিধান প্রনেতা ব্যারিষ্টার এম আমীর-উল ইসলাম, আওয়ামী লীগের উপদেষ্টা পরিষদের সদস্য এডভোকেট ইউসুফ হোসেন হুমায়ুন, বাংলাদেশ পরমাণু শক্তি কমিশনের চেয়ারম্যান প্রকৌশলী মো. আলী জুলকার নাইন প্রমুখ বক্তব্য রাখেন।
বিএনপির ভারপ্রাপ্ত মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরের বক্তব্যের জবাবে মোহাম্মদ নাসিম বলেন, আওয়ামী লীগ আন্দোলন, সংগ্রাম ও লড়াই করার দল। আওয়ামী লীগের লক্ষ স্থীর। তাই আওয়ামী লীগ দেউলিয়া হবে না। দেউলিয়া হবে বিএনপি। কারণ আপনাদের লক্ষ্য স্থীর নয়। যে দলের কোন লক্ষ্য নেই সেই দলের নেতা হয়ে আপনি আওয়ামী লীগের সমালোচনা করেন কি ভাবে?
আওয়ামী লীগের সভাপতিমন্ডলীর সদস্য বলেন, আওয়ামী লীগ অসাম্প্রদায়িক রাজনীতিতে বিশ্বাস করে। আমরা বঙ্গবন্ধুর আদর্শের শোষণ মুক্ত দেশ গড়ে তুলতে চাই। যার নেতৃত্বে দিচ্ছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। কিন্তু বিএনপির লক্ষ্য কি? লক্ষ্য না থাকলে কোন দল রাজনীতি আগ্রসর হতে পারেনা।
এম এ ওয়াজেদ মিয়ার স্মৃতি চারণ করে তিনি বলেন, ওয়াজেদ মিয়ার বলিষ্ঠ প্রত্যয় ও নেতৃত্বে বিজ্ঞান, প্রযুক্তি এবং পরমাণু বিজ্ঞানের ক্ষেত্রে বাংলাদেশ বহুদূর এগিয়েছে। পরমাণু বিজ্ঞানে তার সফলতা দেশকে ছাড়িয়ে আন্তর্জাতিক স্বীকৃতি লাভ করেছে। তিনি ছিলেন সর্বজন বিদিত একজন মহান দেশপ্রেমিক।
অনুষ্ঠানে সাংবাদিকতায় শ্রী অম্বর মুখার্জী (ভারত), সমাজ সেবায় শেখ মো. ওযাহিদ-উজ-জামান (বাংলাদেশ), বিজ্ঞান গবেষণায় ড. ওমরদীপ চৌধুরী (নেপাল), বীর মুক্তিযোদ্ধা নন্দ দুলাল গোস্বামী (বাংলাদেশ) এবং কথা সাহিত্যে ডা. মোহাম্মদ যায়েদ হোসেনকে (বাংলাদেশ) গুণীজন স্বর্ণপদক প্রদান করা হয়।