ব্রেকিং নিউজ

সকাল ৭:৫০ ঢাকা, শনিবার  ২২শে সেপ্টেম্বর ২০১৮ ইং

দুর্যোগ ব্যবস্থাপনায় বাংলাদেশ রোলমডেল: মায়া

দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণমন্ত্রী মোফাজ্জল হোসেন চৌধুরী মায়া বলেছেন, দুর্যোগ ব্যবস্থাপনার অসাধারণ কৌশলই বাংলাদেশকে রোলমডেলে পরিণত করেছে।
তিনি বলেন, প্রাকৃতিক দুর্যোগে পূর্ব-প্রস্তুতির উত্তম সক্ষমতার কারণেই বাংলাদেশ যে কোন দুর্যোগে ক্ষয়ক্ষতি দৃশ্যমান হারে কমিয়ে আনতে পেরেছে। পাশাপাশি যে কোন দুর্যোগ-দুর্বিপাকে একে অপরের পাশে দাঁড়ানোর মানসিকতা দেশটিতে দুর্যোগ-সহনশীল পরিবেশ তৈরিতে সাহায্য করেছে।
মন্ত্রী আজ রাজধানীর ওসমানী মিলনায়তনে “জাতীয় দুর্যোগ প্রস্তুতি দিবস ২০১৬” উদ্বোধন উপলক্ষে প্রধান অতিথির বক্তৃতায় একথা বলেন।
মন্ত্রণালয়ের সচিব মো. শাহ্ কামালের সভাপতিত্বে আয়োজিত অনুষ্ঠানে দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণ মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত সংসদীয় স্থায়ী কমিটির সভাপতি ধীরেন্দ্র দেবনাথ সম্ভু বিশেষ অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন। স্বাগত বক্তব্য রাখেন দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা অধিদপ্তরের মহাপরিচালক রিয়াজ আহমেদ।
এ বছর দিবসটির প্রতিপাদ্য হলো “দুর্যোগে পাবোনা ভয়, দুর্যোগকে আমরা করবো জয়”।
প্রতিপাদ্যকে প্রাসঙ্গিক বলে উল্লেখ করে মন্ত্রী বলেন, যে কোন দুর্যোগে নিজের দায়িত্ব পালন না করে মানুষ আতংকিতভাবে দিক-বিদিক ছুটাছুটি করে। অনেক সময়ে উদ্ধারকর্মীদের কাজের ব্যাঘাত ঘটায়। কিন্তু মনে সাহস রেখে ও ধৈর্য ধরে করণীয় কাজটি পালন করলে সহজেই দুর্যোগ মোকাবিলা করা যায়।
তিনি বলেন, বাঙ্গালীরা বীরের জাতি বলেই নিরস্ত্র হাতে নিয়মিত সশস্ত্র বাহিনীর বিরুদ্ধে যুদ্ধ করে স্বাধীনতা আনতে পেরেছে।
তিনি দুর্যোগ মোকাবিলায় গৃহীত পদক্ষেপ, আন্তর্জাতিক পদক্ষেপের সাথে সমন্বয় সাধন ইত্যাদি তুলে ধরেন। নিজেদের নিরাপদে বাঁচার তাগিদেই বিল্ডিংকোড মেনে ঘরবাড়ি নির্মাণ ও আবহাওয়ার সতর্কবার্তা জেনে সাগরে মাছ ধরতে যাওয়ার ওপর তিনি গুরুত্বারোপ করেন। বৈশাখ জ্যৈষ্ঠ মাসকে ঘূর্ণিঝড়প্রবণ মাস উল্লেখ করে সাবধানে লঞ্চ-স্টিমারে যাতায়তের জন্য তিনি পরামর্শ দেন।
মন্ত্রী বলেন, ভূমিকম্প, অগ্নিকান্ড ও উপকূলীয় জলোচ্ছ্বাস থেকে উদ্ধার কাজ চালানোর জন্য প্রচুর সরঞ্জামাদি সংগ্রহ করা হয়েছে। দুর্যোগের পূর্বাভাস দানে বাংলাদেশ আন্তর্জাতিক মানের সক্ষমতা অর্জন করেছে। প্রতি জেলায় দুর্যোগ পরবর্তী ত্রাণ তৎপরতা চালানোর জন্য প্রয়োজনীয় ত্রাণ সামগ্রী ও অর্থ রিজার্ভ রাখা আছে বলে তিনি উল্লেখ করেন।
দিবসটি পালন উপলক্ষে রাজধানীতে মতবিনিময় সভা, গোলটেবিল বৈঠক, টিভি টকশো, পোস্টার স্থাপন, চিত্রাংকন প্রতিযোগিতা, শিক্ষাঙ্গনে ভূমিকম্প ও অগ্নিকান্ড থেকে উদ্ধার মহড়া অনুষ্ঠান ও মেলা আয়োজনসহ বিভিন্ন কর্মসূচি পালন করা হয়। জেলা উপজেলা পর্যায়েও সচেতনতামূলক অনুষ্ঠান পালন করা হয়।
দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণ মন্ত্রণালয়ের এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে আজ একথা বলা হয়।