দুদকের কার্যক্রম '

দুদকের কার্যক্রম পরিচালিত হবে ‘ডিজিটাল মনিটরিং সফটওয়্যারে’

প্রাতিষ্ঠানিক দুর্নীতি প্রতিরোধে ডিজটাল মনিটরিং সফটওয়্যার তৈরি করছে দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক)। টেকসই উন্নয়ন লক্ষ্য অর্জনের অন্যতম সূচক দুর্নীতিমুক্ত বাংলাদেশ নির্মাণের লক্ষ্য অর্জনেই দুদকের এই উদ্যোগ।

দুদকের সচিব আবু মো. মোস্তফা কামাল বলেন, আমরা দুর্নীতি দমন কমিশনকে পুরোপুরি দুর্নীতিমুক্ত করার বিষয়ে উদ্যোগ নিচ্ছি। কমিশনের পক্ষ থেকে সব কার্যক্রম মনিটরিং করার জন্য ডিজিটাল সিস্টেম চালু করা হচ্ছে। এজন্য আমরা একটি সফটওয়্যার তৈরি করার পরিকল্পনা করেছি।

তিনি জানান, একটি কারিগরি সহায়তা প্রকল্পের আওতায় এই সফ্টওয়্যার তৈরি করা হচ্ছে। এর জন্য এশিয়ান ডেভেলপমেন্ট ব্যাংক (এডিবি)’র সাথে দুদকের একটি চুক্তি হয়েছে। এখাতে মোট ৭ কোটি ৬০ লাখ টাকা খরচ হবে। যার ১ কোটি ২০ লাখ টাকা দুদক এবং ৬ কোটি ৪০ লাখ টাকা দেবে এডিবি।

তিনি বলেন, সফটওয়্যার বানানো হয়ে গেলে আমরা আমাদের দুদকের পুরো কার্যক্রম ইলেকট্রোনিক্যালি মনিটর করব। দুদকের অনুসন্ধান, তদন্ত, মামলা, প্রসিকিউশন সব কার্যক্রম তখন অনলাইনে হবে। এর ফলে দুদকের যে কর্মকর্তা যে ফাইলটি নিয়ে কাজ করছেন তিনিসহ তার চেইনের সিনিয়র ও জুনিয়র সব কর্মকর্তা তা দেখার সুযোগ পাবেন। প্রাতিষ্ঠানিক দুর্নীতি বন্ধের জন্যই এই উদ্যোগটি গ্রহণ করা হয়েছে। আশা করি, এতে দুদকের কর্মক্ষমতা ও দুর্নীতি দমনে সাফল্য আরও বাড়বে।

দুর্নীতি প্রতিরোধে ডিজিটাল পদ্ধতি প্রসঙ্গে দুদকের উপ-পরিচালক প্রণব কুমার ভট্টাচার্য্য বলেন, আমরা দুদকের বিভিন্ন কার্যক্রম জিডিটাল পদ্ধতির আওতায় এনেছি। এর মধ্যে বাংলাদেশ টেলিকমিউনিকেশন রেগুলেটরি কমিশন (বিটিআরসি)’র মাধ্যমে মানুষকে দুর্নীতি প্রতিরোধে সচেতন করতে চালু করা হয়েছে ক্ষুদে বার্তা। বিভিন্ন দিবসে এসব বার্তা পৌঁছে যাচ্ছে মানুষের কাছে। যেখানে দুর্নীতিবিরোধী বিভিন্ন শ্লোগান থাকে। রেডিও ও টেলিভিশনে ডকুমেন্টারি ফিল্ম প্রচারিত হচ্ছে। দুদকের একটি নিজস্ব ওয়েবসাইট আছে। এতে বার্ষিক প্রতিবেদনসহ সব তথ্য দেয়া থাকে। যে কেউ দুদকের ওয়েবসাইটে গিয়ে দুদক সম্পর্কে তথ্য জানতে পারেন। ডিজিটাল সফ্টওয়্যার চালু হলে আমাদের মনিটরিং কার্যক্রম আরো জোরদার হবে। – বাসস