Press "Enter" to skip to content

দুই সাংবাদিককে মুক্তি দিতে পারেন সু চি : ক্লুনি

মিয়ানমারে কারাগারে আটক বার্তা সংস্থা রয়টার্সের দুই প্রতিবেদকের পরিবার দেশটির সরকারের কাছে ক্ষমা চেয়েছেন বলে যুক্তরাজ্যের মানবাধিকার আইনজীবী আমাল ক্লুনি বলেছেন। তিনি বলেন, সু চি ইচ্ছা করলেই দুই সাংবাদিককে ছেড়ে দিতে পারেন।

শুক্রবার জাতিসংঘে গণমাধ্যমের স্বাধীনতা বিষয়ক এক আলোচনায় তিনি বলেন, দেশটির বেসামরিক নেতা অং সান সুচির উচিত ক্ষমা আবেদন গ্রহণ করে তাদের মুক্তি দিতে রাজিও হওয়া।

ঔপনিবেশিক আমলের দাফতরিক গোপনীয়তা আইনে গত ৩ সেপ্টেম্বর দোষী সাব্যস্ত করে দুই প্রতিবেদককে সাত বছরের কারাদণ্ড দিয়েছে মিয়ানমারের একটি আদালত।

সাংবাদিক ওয়া লোন(৩২) ও কেইয়াও সো(২৮) রাখাইনের ইনদিন গ্রামে সংখ্যালঘু মুসলমান রোহিঙ্গা জনগোষ্ঠীর ওপর দেশটির সেনাবাহিনীর গণহত্যা নিয়ে প্রতিবেদন প্রকাশ করেন। পরবর্তীতে সাজানো মামলায় তাদের গ্রেফতার করে মিয়ানমারের পুলিশ।

ক্লনি বলেন, এ দুই প্রতিবেদকের স্ত্রীরা সরকারের কাছে ক্ষমা ভিক্ষা করে হৃদয়কাড়া একটি চিঠি লিখেছেন। তাদের স্বামীরা কোনো অপরাধ করেছে বলে এ ক্ষমা চাওয়া না। তাদের দাবি, তাদের স্বামীদের যেন কারাগার থেকে ছেড়ে দেয়া হয়।

সু চিকে উদ্দ্যেশ করে আমালা ক্লুনি বলেন, একই কারাগার থেকে মুক্ত হওয়ার জন্য আপনি বছরের পর বছর লড়াই করেছেন। কিন্তু সেই অন্যায় দূর করার ক্ষমতা এখন আপনার আছে। আপনি ইচ্ছা করলেই দুই প্রতিবেদকের ওপর যে জুলুম করা হচ্ছে, তা থেকে তাদের মুক্তি দিতে পারেন।

গত বছরের ডিসেম্বর থেকে কারাগারে আটক থাকা এই দুই প্রতিবেদক দোষ স্বীকার করে জবানবন্দি দিতে অস্বীকার করেছেন। তাদের মধ্যে কেইয়াও সোর তিন মাস বয়সী একটি শিশুকন্যা রয়েছে।

গত মাসে ওয়া লোনের স্ত্রী তাদের প্রথম সন্তানের জন্ম দিয়েছেন। মেয়েকে এখনো নিজ চোখে দেখতে পারেননি ওয়া লোন।

Mission News Theme by Compete Themes.