ব্রেকিং নিউজ

রাত ১:৫৬ ঢাকা, বুধবার  ১২ই ডিসেম্বর ২০১৮ ইং

“দারিদ্রসীমা চরম পর্যায়ের কারনে যাকাতের কাপড় নিতে গিয়ে জীবন দিতে হয়”

দারিদ্রসীমা চরম পর্যায়ে পোঁছানোর কারণেই যাকাতের কাপড় সংগ্রহ করতে গিয়ে দরিদ্র মানুষেরা নিজেদের জীবন বিপন্ন করছে বলে মন্তব্য করেছেন বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়া।

শুক্রবার গণমাধ্যমে পাঠানো এক বিবৃতিতে এমন মন্তব্য করেন বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়া। বিবৃতিতে যাকাতের কাপড় সংগ্রহ করতে গিয়ে নিহত হওয়ার ঘটনায় গভীর শোক প্রকাশ করেন তিনি।

বিএনপি চেয়ারপারসন বলেন, প্রতিবছরই যাকাতের কাপড় বা অর্থ বিলির সময় অসচেতনতার কারণে এ ধরণের ঘটনার পূণরাবৃত্তি ঘটছে। যাকাত প্রদানকারী ব্যক্তিবর্গের উদাসীনতার কারণেই মানুষের জীবনের নিরাপত্তার বিষয়টি বারবার উপেক্ষিত থাকছে। এই ঘটনায় সরকারও তার দায় এড়াতে পারেনা। প্রশাসন ও আইন প্রয়োগকারী সংস্থা আগেই শৃঙ্খলামূলক ব্যবস্থা গ্রহণ করলে এতগুলো মানুষের মৃত্যুর ঘটনা ঘটতো না।

তিনি আরো বলেন, মানুষের দারিদ্র সীমা এমন পর্যায়ে পৌঁছেছে যে, মানুষ প্রতিবছর যাকাত সংগ্রহ করতে যেয়ে নিজেদের জীবন বিপন্ন করে তুলতে বাধ্য হচ্ছে। এই চিত্র বাংলাদেশের অর্থনৈতিক অগ্রগতি ও প্রবৃদ্ধি অর্জনের বাগাড়াম্বরের সাথে মোটেই সামঞ্জস্যপূর্ণ নয় বরং পরিহাস ছাড়া আর কিছুই নয়। সরকারের নেয়া হতদরিদ্র মানুষের জন্য নানা প্রকল্পে যে লুটপাট চলছে এবং শাসকদলের লোকেরা নিজেদের পকেট ভারী করতে যখন মত্ত তখন এই দারিদ্রসীমার নীচে বসবাসকারী মানুষের কল্যানের জন্য সরকারের কোনো উদ্যোগ না থাকায় আমরা দুঃখিত।

খালেদা জিয়া বলেন, রাষ্ট্র ও সরকার যখন হতদরিদ্র মানুষের পাশে দাঁড়াতে ভুলে যায় তখন এই অসহায় মানুষগুলোর ব্যক্তিবিশেষের দয়া ও সাহায্যের উপর নির্ভর করা ছাড়া কোনো গত্যন্তর থাকেনা এবং এরই প্রেক্ষিতে প্রায় প্রতিবছর যাকাত সংগ্রহকারীদের অনেকেই এভাবে পদদলিত হয়ে মারা যান। এই ঘটনা জাতির বিবেককে নাড়া দেয় এবং বিত্তবানদেরও লজ্জিত হওয়ার কথা।

বিএনপি চেয়ারপারসন এই ঘটনায় স্থানীয় প্রশাসন ও আইন প্রয়োগকারী সংস্থার কর্তব্য পালনে কোনো গাফিলতি আছে কিনা তাও তদন্ত করে দেখার দাবি জানান। তিনি নিহত ব্যক্তিবর্গের পরিবারকে উপযুক্ত ক্ষতিপূরণ প্রদানের জন্য সরকারের প্রতি আহবান জানান।

নিহতদের বিদেহী আত্মার মাগফিরাত কামনা করে শোকসন্তপ্ত পরিবারের প্রতি গভীর সমবেদনা জানান বিএনপি চেয়ারপারসন।

শীর্ষ মিডিয়া