ব্রেকিং নিউজ

সকাল ৯:৫৩ ঢাকা, শুক্রবার  ২১শে সেপ্টেম্বর ২০১৮ ইং

বিএনপি
বিএনপি

তুরস্কে হামলা-হতাহতের ঘটনায় বিএনপির নিন্দা ও প্রতিবাদ

তুরস্কের নাইট ক্লাবে গুলিবর্ষণে ৩৫ জন মানুষের প্রাণহানি ও অসংখ্য মানুষের আহত হওয়ার ঘটনায় বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর নিন্দা, প্রতিবাদ ও শোক জানিয়েছেন।

দলের সহ-দফতর সম্পাদক মো: তাইফুল ইসলাম টিপু বিএনপি মহাসচিবের পক্ষে এক বিবৃতিতে এ কথা জানান।

বিবৃতিতে বিএনপি মহাসচিব বলেন, “তুরস্কের ইস্তাম্বুলে রেইনা নামক একটি নাইট ক্লাবে বর্ষবরণ অনুষ্ঠান চলাকালে স্থানীয় সময় রাত দেড়টায় দুস্কৃতিকারিদের কর্তৃক ছোঁড়া গুলিবর্ষণে ৩৫ জন মানুষের প্রাণহানি ও অসংখ্য মানুষের আহত হওয়ার ঘটনায় আমি নিন্দা ও প্রতিবাদ জানাচ্ছি। এই প্রাণবিনাশী ঘটনা চরম অমানবিক ও কাপুরোষোচিত। আমি নিহতদের প্রতি গভীর শোক প্রকাশ করছি এবং ঐ ঘটনায় যারা আহত হয়েছেন তাদের আশু সুস্থতা কামনা করছি। আমি নিহতদের বিদেহী আত্মার শান্তি কামনা করছি।

বিবৃতিতে বলা হয় দেশে দেশে ব্যাপক নিরাপত্তামূলক ব্যবস্থা গ্রহণ করা সত্বেও বিশ্বব্যাপী উগ্রবাদী অন্ধশক্তি বারবার স্বমহিমায় আবির্ভূত হচ্ছে। নানা ছিদ্রপথের মধ্য দিয়ে তাদের হিংস্র থাবা বিস্তার করেই চলেছে। গতকাল তুরস্কের ইস্তাম্বুলের একটি নাইট ক্লাবে রক্তাক্ত হামলায় হতাহতের ঘটনা বিশ্ববাসীকে আরেকবার বিস্মিত ও হতবাক করেছে। এই ঘটনায় বর্তমান বিশ্বে গোটা মানবজাতির ভবিষ্যৎ আবারো এক অনিশ্চয়তার মধ্যে পতিত হলো। জঙ্গীদের আন্তর্জাতিক নেটওয়ার্ক কেন ধ্বংস করা যাচ্ছে না, এদের নির্দয়, নিষ্ঠুর কার্যকলাপের গোপন আস্তানাগুলি কেন চিহ্নিত করে নির্মূল হচ্ছে না, কেনই বা এই অশুভ শক্তির উত্থান ঘটেছে, সেগুলো নিয়ে আন্তর্জাতিকভাবে আলোচনা করে কেন এর শিকড়ের সন্ধান করা হচ্ছে না ? এই প্রশ্নগুলি আজ বিশ্ব সম্প্রদায়ের মুখে। মানবতা, সভ্যতা, সংস্কৃতি, স্বাধীন চিন্তা ও মতের বিরোধী এই দানবীয় দুস্কৃতিকারিদের আন্তর্জাতিকভাবে মোকাবেলা করতে না পারলে মানবজাতির গৌরব, অর্জন ও অগ্রগতি অতলে তলিয়ে যাবে। বিশ্বসমাজে এখন ভয় ও আতঙ্ক বিরাজ করছে, অতীতের যেকোন সময়ের চেয়ে অত্যন্ত বিপজ্জনকভাবে। এই অবস্থা দীর্ঘদিন চলতে পারে না। বেআইনী হত্যা এবং রক্তপাতের মধ্য দিয়ে কোন রাজনৈতিক লক্ষ্য অর্জিত হয়না। মধ্যযুগীয় অন্ধকার যাতে আর ফিরে না আসে সেজন্য আজ বিশ্ববাসীকে একযোগে উগ্রবাদ বিনাশে উদ্যোগী হতে হবে। গতরাতে সংঘটিত ইস্তাম্বুলের নাইট ক্লাবে সন্ত্রাসী হামলায় জড়িত উগ্রবাদী সন্ত্রাসীরা যেই হোক, আমার বিশ্বাস তুরস্কের সরকার তাদেরকে চিহ্নিত করে দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির ব্যবস্থা করবে। গতরাতের এই বর্বরোচিত হামলায় হতাহতের পরিবার, নিকটজন ও শুভানুধ্যায়ীদের প্রতি আমি বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী দল-বিএনপি’র পক্ষ থেকে সহমর্মিতা জ্ঞাপন করছি। তুরস্কের সরকার ও জনগণ এই সংকটময় পরিস্থিতি ধৈর্যের সাথে মোকাবেলা করতে সক্ষম হবে।”