ব্রেকিং নিউজ

রাত ১২:২৭ ঢাকা, মঙ্গলবার  ১৩ই নভেম্বর ২০১৮ ইং

তাহলে এরা কে ? ছাত্রলীগের কেউ নয়: মন্ত্রী

বকশিবাজারে সংঘর্ষে আহত নেত্রকোনা-১ আসনের সরকারদলীয় সংসদ সদস্য ছবি বিশ্বাসকে দেখতে বৃহস্পতিবার বেলা ১২টায় ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে যান স্বরাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল। ছবি বিশ্বাস বর্তমানে হাসপাতালের দ্বিতীয় তলার ১০ নম্বর ভিআইপি কেবিনে চিকিৎসাধীন।

এসময় বকশিবাজারে বুধবার সংঘর্ষে পুলিশের সামনেই ছাত্রলীগকর্মীদের অস্ত্রের মহড়া প্রসঙ্গে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে স্বরাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী বলেন, ‘অস্ত্র হাতে হামলাকারীরা ছাত্রলীগের কেউ নয়। এ সংঘর্ষে কোনো ছাত্রলীগকর্মী অস্ত্র হাতে মাঠে নেমেছে কি না, সেটাও আমার জানা নেই। তবে আপনারা যেহেতু বললেন, তাই অবশ্যই বিষয়টি খতিয়ে দেখা হবে। আর এতে কোনো ছাত্রলীগ কর্মীর বিরুদ্ধে অস্ত্র হাতে মাহড়া দেয়ার প্রমাণ পাওয়া গেলে অবশ্যই তার বিরুদ্ধে আইনানুযায়ী ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।’

Bakshibazarপ্রতিমন্ত্রী অভিযোগের সুরে বলেন, ‘বিশেষ আদালতে রাষ্ট্রের গুরুত্বপূর্ণ ব্যক্তিবর্গের বিচার হয়। সেখানে বিএনপির হাজার হাজার নেতাকর্মী কেন সমবেত হয়েছিল? তাদের উদ্দেশ্য ভালো ছিল না। তারা চেয়েছিল আদালত এলাকায় নৈরাজ্যপূর্ণ পরিবেশ সৃষ্টি করতে। কিন্তু জনগণ, আওয়ামী লীগকর্মী এবং প্রশাসনের একান্ত প্রচেষ্টায় বিরোধীদের সকল পরিকল্পনা নস্যাৎ হয়েছে।’

এদিকে নেত্রকোনা-১ আসনের সংসদ সদস্য ছবি বিশ্বাসের ওপর হামলার ঘটনায় তীব্র নিন্দা জ্ঞাপন করেন স্বরাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল। তিনি বলেন, ‘ছবি বিশ্বাসকে হত্যার উদ্দেশ্যে এ হামলা ঘটানো হয়েছিল। তবে প্রশাসন ও আওয়ামী লীগ নেতাকর্মীদের হস্তক্ষেপে তিনি বেঁচে গেছেন। এ ধরনের ঘটনা কাম্য নয়।’

উল্লেখ্য, বুধবার জিয়া আরফানেজ ও চ্যারিটেবল ট্রাস্ট দুর্নীতি মামলার হাজিরা দিতে বকশিবাজার এলাকায় আলিয়া মাদরাসার মাঠে স্থাপিত বিশেষ আদালতে যান বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়া। দলের চেয়ারপারসনের আগমানকে কেন্দ্র করে সকাল থেকেই ওই এলাকায় অবস্থান নেয় ছাত্রদল, যুবদলসহ বিএনপির বিভিন্ন অঙ্গ ও সগযোগী সংগঠনের নেতাকর্মীরা।

এসময় ছাত্রলীগকর্মীরা সেখানে মিছিল নিয়ে এসে বিএনপি নেতাকর্মীদের ওপর চড়াও হয়। মুহূর্তেই এ সংঘর্ষ ছড়িয়ে পড়ে বকশিবাজার, চানখারপুলসহ টিএসসি এলাকায়।

পরে বিএনপিকর্মীদের হামলায় ঢাকা মেডিকেলের সামনে আহত হন ক্ষমতাসীন দলের সংসদ সদস্য ছবি বিশ্বাস। তার গাড়িটিও পুড়িয়ে দেয়া হয়।

FOLLOW US: