ব্রেকিং নিউজ

সকাল ১১:৩৩ ঢাকা, শুক্রবার  ১৯শে অক্টোবর ২০১৮ ইং

ফাইল ফটো

‘ডিজিটাল বাংলাদেশ বাস্তবায়নে সমন্বয়ের মাধ্যমে সময় ও অর্থ অপচয় রোধ সম্ভব’

পরিকল্পনা মন্ত্রী আ হ ম মোস্তফা কামাল বলেছেন, ডিজিটাল বাংলাদেশ বাস্তবায়ন কাজে বিভিন্ন মন্ত্রণালয়, বিভাগ ও অধিদপ্তরের সমন্বয়ের মাধ্যমে সময় ও অর্থ অপচয় রোধ করা সম্ভব।
তিনি বলেন, ‘ডিজিটাল বাংলাদেশ বাস্তবায়নে সবাই যে যার অবস্থান থেকে অংশ নিচ্ছি, কিন্তু কিছু ক্ষেত্রে দেখা যায়, একই কাজ বিভিন্ন মন্ত্রণালয়, বিভাগ ও অধিদপ্তর করছে। এতে সময় ও অর্থের অপচয় হয়, একটু সজাগ হলে যা রোধ করা সম্ভব। এজন্য সমন্বয় সাধন জরুরী।’
মন্ত্রী আজ দুপুরে আগারগাঁওয়ে তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি বিভাগের কর্মকর্তাদের সাথে এক মতবিনিময় সভায় এসব কথা বলেন।
আ হ ম মোস্তফা কামাল বলেন, জরুরী প্রকল্প বছরের প্রথম দিকেই অনুমোদন দিলে সময়ের অপচয় রোধের পাশাপাশি এর যথাযথভাবে বাস্তবায়ন সম্ভব হয়। বছর শেষে অনুমোদন দিলে অনেক সময় প্রকল্পের লক্ষ্য ও উদ্দেশ্য ব্যাহত হয় এবং ক্ষেত্র বিশেষে প্রকল্প বাস্তবায়ন কষ্টসাধ্য হয়ে দাঁড়ায়।
পরিকল্পনা মন্ত্রী সাইবার সিকিউরিটি গাইডলাইন, সাইবার নিরাপত্তার জন্য একটি কার্যকর জাতীয় সংস্থা এবং দ্রুততর সময়ে দেশে ৪-জি চালুর আহবান জানান।
সভায় উপস্থিত তথ্যপ্রযুক্তি প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহ্মেদ পলক বলেন, শিগগিরই ডিজিটাল বাংলাদেশ বিনির্মাণের সমস্ত কাজের সমন্বয় করা হবে।
তিনি বলেন, ‘সরকারের অর্থ ব্যয়ের ক্ষেত্রে খুবই সজাগ দৃষ্টি রাখছি। দেশের ১৬ কোটি মানুষের ট্যাক্সের একটি টাকাও যাতে অপচয় না হয়, সেজন্য আন্তরিকতার সহিত সাথে কাজ করা হচ্ছে।
প্রতিমন্ত্রী বলেন, অর্থের অপচয় রোধ করতে পারলে, ডিজিটাল বাংলাদেশের কার্যক্রম আরো ত্বরাণি¦ত হবে এবং জাতির পিতার স্বপ্নের সোনার বাংলা ও দ্রুততর সময়ে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার স্বপ্নের ডিজিটাল বাংলাদেশ বাস্তবায়ন করা ও সহজতর হবে।
এ সময় যুক্তরাষ্ট্রের সিলিকন ভ্যালী ভিত্তিক কমউিনিকেশন সফটওয়্যার ডেভেলপার ইয়াকসি ইঙ্ক. ইয়াকসি ইঙ্ক.এর সাথে বাংলাদেশ কম্পিউটার কাউন্সিলের এক সমঝোতা স্মারক স্বাক্ষরিত হয়। সমঝোতা স্মারকে বাংলাদেশ কম্পিউটার কাউন্সিলের পক্ষে স্বাক্ষর করেন বিসিসি’র নির্বাহী পরিচালক এস এম আশরাফুল ইসলাম এবং ইয়াকসি ইঙ্ক.-এর পক্ষে স্বাক্ষর করেন ইয়াকসি’র চেয়ারম্যান ও সিইও শাহ তালুকদার।
মতবিনিময় সভায় উপস্থিত ছিলেন পরিকল্পনা কমিশনের আর্থ-সামাজিক বিভাগের সদস্য হুমাযুন খালিদ, তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি বিভাগের সচিব শ্যাম সুন্দর সিকদার, তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি বিভাগের অতিরিক্ত সচিব হারুনুর রশিদ, পার্থপ্রথিম দেব, সুশান্ত কুমার সাহা, বাংলাদেশ হাই-টেক পার্কের এমডি বেগম হোসনে আরা, সিসিএ’র কন্ট্রোলার জি এম ফখরুদ্দিন ও আইসিটি অধিদপ্তরের মহাপরিচালক মো. জসিমউদ্দিন।
ইয়াকসি একটি অ্যাপস, এর মাধ্যমে একই সাথে লাইভ চ্যাট, ভিডিও কনফারেন্সিং, তাৎক্ষণিক ভিডিও ও ছবি শেয়ারিং এবং নেটওয়ার্কে থাকা সবার লোকেশন নির্ণয় কাজসমূহ করা যায়।