শীর্ষ মিডিয়া | Sheersha Media

ব্রেকিং নিউজ

রাত ১২:১৭ ঢাকা, মঙ্গলবার  ১৩ই নভেম্বর ২০১৮ ইং

জাতীয় পত্রিকার সম্পাদকরা

ডিজিটাল আইনের বিরোধীতায় রাজপথে ‘সম্পাদকরা’

দেশের ইতিহাসে প্রথমবারের মতো রাজপথে নেমেছেন জাতীয় পত্রিকার সম্পাদকরা। সোমবার (১৫ অক্টোবর) জাতীয় সম্পাদক পরিষদের ব্যানারে দেশের শীর্ষস্থানীয় সংবাদমাধ্যমের সম্পাদকরা প্রথমবারের মতো মানববন্ধন করেন।

বিতর্কিত ডিজিটাল আইনের মাধ্যমে দেশের সংবাদমাধ্যমকে পুলিশের নিয়ন্ত্রণে রাখার অপচেষ্টার কৌশল হিসেবেই দেখছেন দেশের সব সাংবাদিকরা। এ বিষয়ে দলমত নির্বিশেষে সাংবাদিকরা এই আইনের তীব্র বিরোধিতা করছেন।

সম্পাদক পরিষদ জানায়, শুরু থেকেই সম্পাদক পরিষদ এ আইনের ৮, ২১, ২৫, ২৮, ২৯, ৩১, ৩২, ৪৩ ও ৫৩ ধারা নিয়ে উদ্বেগ প্রকাশ করে আসছিল, যেগুলো স্বাধীন সাংবাদিক ও মতপ্রকাশের স্বাধীনতা ভীষণভাবে ক্ষতিগ্রস্ত করতে পারে।

পরিষদ জানায়, ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনের শেষ মুহূর্তে এমন পরিবর্তন আনা হয়েছে, যাতে সংবাদপত্রের কার্যালয় ও সংবাদপ্রতিষ্ঠানগুলোর দফতরে প্রবেশ করা, তল্লাশি চালানো, বন্ধ করে দেয়া, ডিজিটাল নেটওয়ার্ক জব্দ করা, এমনকি পরোয়ানা ছাড়াই সাংবাদিকদের গ্রেফতার করার ক্ষেত্রে পুলিশের ক্ষমতা আরও বেড়েছে।

সম্প্রতি বাংলাদেশ প্রেস কাউন্সিল আয়োজিত সাংবাদিকদের এক কর্মশালায় সাংবাদিক নেতা মনজুরুল আহসান বুলবুল বলেছেন, এ আইনের কারণে বিশ্বের সংবাদপত্রের স্বাধীনতার সূচকে বাংলাদেশের মান নিচে নেমে আসবে।

সোমবার সকালে জাতীয় প্রেস ক্লাবের সামনে সম্পাদক পরিষদ আয়োজিত মানববন্ধন কর্মসূচিতে ডেইলি স্টার সম্পাদক ও সম্পাদক পরিষদের সাধারণ সম্পাদক মাহফুজ আনাম বলেন, ‘তিনি বলেন, বর্তমান আইনটি শুধু সাইবার জগৎ নয়, স্বাধীন গণমাধ্যমের কণ্ঠরোধ করার আইন।’

প্রসঙ্গত, গত সোমবার রাষ্ট্রপতির স্বাক্ষরের মাধ্যমে ডিজিটাল নিরাপত্তা বিলটি আইনে পরিণত করা হয়। জাতীয় সংসদের ভেতরে-বাইরে বিভিন্ন পক্ষের আপত্তি, উদ্বেগ ও মতামত উপেক্ষা করে গত ২৬ সেপ্টেম্বর জাতীয় সংসদে ডিজিটাল নিরাপত্তা বিল পাস করা হয়।

এর আগে গত ৯ এপ্রিল ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনের বিলটি পরীক্ষার জন্য সংসদীয় কমিটিতে পাঠায় সংসদ। সাংবাদিকদের তিনটি সংগঠন সম্পাদক পরিষদ, বাংলাদেশ ফেডারেল সাংবাদিক ইউনিয়ন (বিএফইউজে) এবং অ্যাসোসিয়েশন অব টেলিভিশন চ্যানেল ওনার্সের প্রতিনিধিদের সঙ্গেও বিলটি নিয়ে দুই দফা বৈঠক করে সংসদীয় কমিটি। প্রয়োজনীয় সংশোধনী আনার আশ্বাসও দেয়া হয়েছিল। কিন্তু শেষ পর্যন্ত আইনে কোনো পরিবর্তন আনা হয়নি। যে ধারাগুলো নিয়ে বিভিন্ন পক্ষের আপত্তি ছিল, তার কয়েকটিতে কিছু জায়গায় ব্যাখ্যা স্পষ্ট করা, সাজার মেয়াদ কমানো এবং শব্দ ও ভাষাগত কিছু সংশোধনী আনা হয়েছে মাত্র।

আইনটি পাসের আগে বিরোধী দলের কয়েকজন সদস্যও এর বেশকিছু ধারা নিয়ে আপত্তি তোলেন। তবে সেসব আপত্তি কণ্ঠ ভোটে নাকচ হয় সংসদে। ডাক টেলিযোগাযোগ ও তথ্যপ্রযুক্তিমন্ত্রী মোস্তাফা জব্বার বিলটি পাসের জন্য সংসদে তোলেন। বিরোধী দল জাতীয় পার্টির ১১ জন ও স্বতন্ত্র একজন সংসদ সদস্য বিলটি নিয়ে জনমত যাচাই ও আরও পরীক্ষা-নিরীক্ষা করার প্রস্তাব দেন। তবে এর মধ্যে তিনজন সংসদ সদস্য উপস্থিত ছিলেন না। আর জাতীয় পার্টির সংসদ সদস্য কাজী ফিরোজ রশীদ তার প্রস্তাব প্রত্যাহার করে নেন।

FOLLOW US: