ব্রেকিং নিউজ

সন্ধ্যা ৭:২০ ঢাকা, বৃহস্পতিবার  ২০শে সেপ্টেম্বর ২০১৮ ইং

এসপি মোজাহেদুল ইসলাম
চাঁপাইনবাবগঞ্জের এসপি কে এম মোজাহেদুল ইসলাম, ফাইল ফটো

ডাকাত মারার নির্দেশ: আদালতে ক্ষমা চেয়ে অব্যাহতি পেলেন এসপি

নিঃশর্ত ক্ষমা চেয়ে পার পেলেন চাঁপাইনবাবগঞ্জের পুলিশ সুপার (এসপি) টি এম মোজাহিদুল ইসলাম। একই সঙ্গে ভবিষ্যতে আইনবহির্ভূত এ ধরনের বক্তব্য না দেয়ারও অঙ্গীকার করেছেন তিনি।

আদালত, তার এই হলফনামা গ্রহণ করে তাকে ব্যক্তিগত হাজিরা থেকে অব্যাহতি দিয়ে মামলাটি নিষ্পত্তি করে দিয়েছেন।

এর আগে রবিবার সকালে এসপি মোজাহেদুল ইসলামের আইনজীবী ব্যারিস্টার শফিক আহমেদ আদালতে নিঃশর্ত ক্ষমা প্রার্থনা করেন। বিচারপতি কাজী রেজা-উল হক ও বিচারপতি মোহাম্মদ উল্লাহর ডিভিশন বেঞ্চে এই শুনানি অনুষ্ঠিত হয়।

গত ২৬ নভেম্বর ‘ডাকাত হাতেনাতে পেলে পিষে মেরে ফেলুন’ শিরোনামে একটি জাতীয় দৈনিকে প্রতিবেদন প্রকাশিত হয়।

প্রতিবেদনে বলা হয়, চাঁপাইনবাবগঞ্জ চক্ষু হাসপাতাল চত্বরে চক্ষুশিবিরের উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে এসপি টি এম মোজাহিদুল ইসলাম জনগণের উদ্দেশে বলেন, ‘ডাকাত যদি হাতেনাতে পান, তো জলজ্যান্ত ওটাকে পিষে মেরে ফেলুন। একটা মার্ডার কেস নেব, এটা সত্য কথা এবং এক মাসের মধ্যে ফাইনাল রিপোর্ট দিয়ে চলে আসব। গ্যারান্টি আমার। আমি যদি গ্যারান্টার হই, তবে আপনাদের কোনো ভয় আছে?

প্রকাশিত প্রতিবেদনের অংশ বিশেষ আদালতে তুলে ধরেন বেঞ্চের জ্যেষ্ঠ বিচারক বিচারপতি কাজী রেজা-উল হক। এরপর আদালত স্বতঃপ্রণোদিত হয়ে রুল জারি করে। এক সপ্তাহের মধ্যে মন্ত্রিপরিষদ সচিব, স্বরাষ্ট্র সচিব, আইন সচিব, পুলিশের আইজি, রাজশাহী রেঞ্জের ডিআইজিসহ সংশ্লিষ্ট বিবাদীদেরকে এই রুলের জবাব দিতে বলা হয়। একইসঙ্গে আইজিপি ও এসপি মোজাহিদকে আলাদাভাবে ঐ বক্তব্যের বিষয়ে প্রতিবেদন দিতে বলে হাইকোর্ট। তলব আদেশে আজ আদালতে হাজির হয়ে নিঃশর্ত ক্ষমা প্রার্থনা করেন এসপি মোজাহিদ।