Sheersha Media

ব্রেকিং নিউজ

রাত ১২:৪২ ঢাকা, বুধবার  ১৪ই নভেম্বর ২০১৮ ইং

‘টাঙ্গাইলের গোপালপুরে দর্জিকে কুপিয়ে হত্যা’

টাঙ্গাইলের গোপালপুর পৌরসভায় এক ব্যক্তি খুন হয়েছেন। শনিবার সকালে পৌরসভার পাকুটিয়া-সূতিকালিবাড়ি সড়কের ডুবাইল মাদরাসার অদূরে নিজ কর্মস্থলের সামনে তিনি খুন হন। বলরাম জোয়ারদারের ছেলে নিহত নিখিল জোয়ারদার পেশায় দর্জি ছিলেন।
 
এলাকাবাসীর ধারণা, নিখিল উগ্রপন্থিদের হাতে খুন হয়েছেন। প্রত্যক্ষদর্শীরা জানায়, সকাল সাড়ে ১১টার দিকে নিখিল বাড়ির নিকটস্থ নিজ টেইলার্সে বসে পোশাক নির্মাণের কাজ করছিলেন। এ সময়ে পূর্বদিক থেকে মোটরসাইকেলে করে তিন যুবক টেইলার্সের সামনে এসে নিখিলকে বাইরে আসতে বলে। তাদের কাছাকাছি আসতেই মোটরসাইকেল আরোহী অপর দুই যুবক ব্যাগ থেকে ছুরি বের করে তাকে কোপাতে থাকে। যুবকরা তার বুকে, ঘাড়ে ও  মাথায় ৭/৮টি কোপ দেয়। মৃত্যু নিশ্চিত করে মোটরসাইকেলে করে সূতিকালিবাড়ির দিকে চলে যায়। এ সময় তারা একটি ব্যাগ ফেলে যায়। যার ভিতরে ৪/৫টি ককটেল রয়েছে।
 
এলাকাবাসী জানায়, দুই বছর আগে মহানবীকে নিয়ে কটূক্তি করায় এলাকাবাসী ক্ষুব্ধ হয়ে তাকে অপদস্ত করে। পরে পুলিশ নিখিলকে গ্রেফতার করে জেল হাজতে পাঠায়। তিন মাস জেলহাজতে থাকার পর জামিনে বেরিয়ে আসে নিখিল।
 
ধর্ম অবমাননার দায়ে করা ওই মামলার বাদী দৈনিক ইনকিলাবের গোপালপুর সংবাদদাতা জানান, নিখিল অনুতাপ প্রকাশ করায় এবং ডুবাইল গ্রামের কয়েকজন মুরুব্বীর অনুরোধে তিনি ছয় মাস আগে আদালত থেকে মামলা তুলে নেন।
 
গোপালপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) গণমাধ্যমকে তথ্যের সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন, ‘উগ্রপন্থিদের দ্বারাই নিখিল খুন হয়েছে তা নিশ্চিত করে এখনি বলা যাচ্ছে না। তদন্তে আরো একটি পারিবারিক বিষয় মাথায় রাখা হয়েছে।’