ব্রেকিং নিউজ

বিকাল ৪:৫৬ ঢাকা, রবিবার  ২৩শে সেপ্টেম্বর ২০১৮ ইং

ওবায়দুল কাদের
আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের, ফাইল ফটো

‘জয়কে ঘিরে অনেক স্বপ্ন ও আশা আছে’

আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের বলেছেন, বঙ্গবন্ধুর দৌহিত্র সজীব ওয়াজেদ জয়কে ঘিরে অনেক স্বপ্ন ও আশা আছে। তিনিই দলের ভবিষ্যৎ নেতা। বুধবার ধানমন্ডিস্থ আওয়ামী লীগ সভানেত্রীর রাজনৈতিক কার্যালয়ে দলের নবনির্বাচিত সম্পাদকম্ললীর সদস্যদের প্রথম বৈঠক শেষে সাংবাদিকদের তিনি এসব কথা বলেন।

ওবায়দুল কাদের বলেন, সময়মতো সজীব ওয়াজেদ জয় দলের কমিটিতে আসতে পারবেন। তবে এ ব্যাপারে তার আগ্রহেরও একটি বিষয় আছে। তাকে জোর করে পদ দেয়া যায় না। ভবিষ্যতে তিনি সম্মত হলে তাকে আওয়ামী লীগের পদ দেয়া হবে।

প্রসঙ্গত, সজীব ওয়াজেদ জয় বর্তমানে প্রধানমন্ত্রীর তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি-বিষয়ক উপদেষ্টার দায়িত্ব পালন করছেন। আওয়ামী লীগের সদ্য সমাপ্ত জাতীয় সম্মেলনে তিনি কাউন্সিলর হিসেবে যোগদান করেন। সম্মেলনে তাকে দলের নেতৃত্বে আনার দাবি জানিয়েছিলেন তৃণমূল নেতারা।

এ প্রসঙ্গে ওবায়দুল কাদের বলেন, তারা (তৃণমূল নেতারা) জয়কে দলীয় পদে থাকার বিষয়ে বলেছিলেন। কিন্তু তার কথা, তিনি দেশের বাইরে থাকেন। দেশে থাকলে হয়তো পদে থাকতে পারতেন।

তিনি বলেন, দলের জাতীয় সম্মেলনের মঞ্চেই উঠতে চাননি জয়। তিনি কাউন্সিলর হিসেবেই সম্মেলনে থাকতে চেয়েছিলেন। কিন্তু নেতা-কর্মীদের চাপে তাকে মঞ্চে উঠতে হয়েছিল। তাকে বক্তৃতা দেয়ার জন্য বলা হয়েছিল। তাতে তিনি রাজি হননি।

আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক বলেছেন, আমরা সর্ব সম্মতিক্রমে সিদ্ধান্ত নিয়েছি দলের গঠনতন্ত্রে কেন্দ্রীয় উপকমিটির সহ-সম্পাদকের সংখ্যা সর্বোচ্চ একশটি করার যে বিধান রয়েছে, আমরা তার বাইরে যাব না।

প্রসঙ্গত, সহ-সম্পাদকের সংখ্যা একশটি হলেও সদ্য বিদায়ী কমিটিতে তা অনুসরণ করা হয়নি। ঐ কমিটি ঘোষণার সময় সহ-সম্পাদক পদে ৬০ জনের  নাম ঘোষণা করা হয়। কিন্তু দফায় দফায় আরো নাম সংযোজন করা হয়। অভিযোগ ছিল সহ-সম্পাদকের পদ পাঁচশো ছাড়িয়ে গিয়েছিল। এ নিয়ে গণমাধ্যম ও দলের মধ্যে অনেক সমালোচনা ছিল। এরই প্রেক্ষিতে নতুন কমিটিতে এবার সহ-সম্পাদকের সংখ্যা সুনির্দিষ্ট করার সিদ্ধান্ত নিয়েছেন দলের নতুন এ সাধারণ সম্পাদক।

বৈঠকে আগামী ৩ নভেম্বর জেল হত্যা দিবসের কর্মসূচি ঘোষণা করেন ওবায়দুল কাদের। কর্মসূচির মধ্যে রয়েছে- সকাল সাতটায় ধানমন্ডি ৩২ নম্বরে বঙ্গবন্ধুর প্রতীকৃতিতে শ্রদ্ধা নিবেদন, সকাল আটটায় বনানীতে জাতীয় তিন নেতার কবরস্থানে শ্রদ্ধা নিবেদন, একই সঙ্গে রাজশাহীতে আরেক জাতীয় নেতার সমাধিতে পুস্পার্ঘ্য অর্পন, দোয়া ও মিলাদ মাহফিল, বিকালে কৃষিবিদ ইনস্টিটিউশনে আলোচনা সভা।