Sheersha Media

ব্রেকিং নিউজ

সন্ধ্যা ৭:৪১ ঢাকা, শুক্রবার  ১৬ই নভেম্বর ২০১৮ ইং

ফখরুল ইসলাম আলমগীর
বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর, ফাইল ফটো

জেল ভাঙতে প্রস্তুত হতে বললেন ফখরুল

নেতাকর্মীদের উদ্দেশে বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেছেন, জনগণকে সরকারের বিরুদ্ধে ঐক্যবদ্ধ করতে হবে। এখন জেলে যাওয়ার জন্য নয়, জেল ভাঙার জন্য তৈরি হতে হবে।

শুক্রবার বিকালে রাজধানীতে এক প্রতিবাদ সমাবেশে তিনি এসব কথা বলেন।

বিএনপির সহ সাংগঠনিক সম্পাদক শরীফুল আলমের মুক্তির দাবিতে রমনায় ইঞ্জিনিয়ার্স ইন্সটিটিউশনের সেমিনার কক্ষে ঢাকাস্থ কিশোরগঞ্জ জাতীয়তাবাদী ফোরাম এই সমাবেশের আয়োজন করে।

সমাবেশে মির্জা ফখরুল বলেন, সংগঠন শক্তিশালী করতে হবে। নিজেদের মধ্যে ঝগড়া-বিবাদ বন্ধ করতে হবে। এর  কোনো বিকল্প নেই। শুধু দলের মধ্যে ঐক্য নয়, জাতীয় ঐক্য গড়ে তুলতে হবে।

তিনি বলেন, ‘১৬ কোটি মানুষকে এই ফ্যাসিস্ট সরকারের বিরুদ্ধে ঐক্যবদ্ধ করতে হবে। এখন জেলে যাওয়ার জন্য তৈরি হলে চলবে না, জেল ভাঙার জন্য আমাদের তৈরি হতে হবে।’

বিএনপি মহাসচিব বলেন, ‘বার বার জোর গলায় তারা (সরকার) বলছে- রামপালে (বিদ্যুৎকেন্দ্র) হতেই হবে। কেনো রে ভাই, এতো কিসের গরজ! গরজ কী শুধু বিদ্যুৎ দেবেন সেজন্য? নাকি কোথাও দাসখত দিয়ে এসেছে সেজন্য? দাসখতই দিয়ে এসেছেন।’

তিনি বলেন, তেল গ্যাস খনিজসম্পদ রক্ষা আন্দোলনের কিছু মানুষ রাস্তায় নেমেছেন। বৃদ্ধ মানুষকে পুলিশ পেটাচ্ছে। একজন সাংবাদিক ভাইকে নির্মমভাবে প্রহার করছে। এটাই এই সরকার সহ্য করতে পারছে না। তারা কোনো রকম ভিন্নমত সহ্য করতে পারে না।

নির্বাচন কমিশন গঠনে খালেদা জিয়ার প্রস্তাব তুলে ধরে মির্জা ফখরুল বলেন, ‘সরকার ভালো কথা কী শুনে? শুনে না। যতই বলেন, তারা সেগুলো শুনবে না। কারণ তারা বাঘের পিঠে উঠে বসেছে তো, নামার তো কোনো উপায় নাই। এখন নামতে গেলেই তো বাঘ খেয়ে ফেলবে। তাই শেষ মুহূর্ত পর্যন্ত তারা অত্যাচার-নির্যাতন চালিয়ে যাবে।’

তিনি বলেন, ‘আর আমাদের দায়িত্ব হবে- জনগণকে সঙ্গে নিয়ে, জনগণকে ঐক্যবদ্ধ করে তাদের শক্তি দিয়ে এই অপশক্তিকে পরাভূত করা। এটাই একমাত্র পথ, এর কোনো বিকল্প নাই।’

নেতাকর্মীদের বিএনপি মহাসচিব বলেন, ‘আসুন, গোটা দেশের মানুষকে নিয়ে আমরা এই সরকারকে নিরপেক্ষ নির্বাচন কমিশন গঠন এবং একটি সহায়ক সরকারের অধীনে নির্বাচন দিয়ে সংকটের নিরসনে বাধ্য করি।’

এসময় গত ১০ বছরে বিরোধী দলের ওপর রাজনৈতিক নিপীড়ন-নির্যাতনের মাত্রা অতীতের সব স্বৈরাচারকেও হার মানিয়েছে বলে মন্তব্য করেন তিনি।

সংগঠনের সভাপতি শেখ মজিবর রহমান ইকবালের সভাপতিত্বে ও সাধারণ সম্পাদক রফিকুল ইসলামের পরিচালনায় এতে অন্যদের মধ্যে বক্তব্য রাখেন- বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য মির্জা আব্বাস, বিএনপি চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা অ্যাডভোকেট ফজলুর রহমান, আবদুস সালাম প্রমুখ।-খবর যুগান্তরের।