ব্রেকিং নিউজ

সকাল ৬:২৫ ঢাকা, মঙ্গলবার  ২১শে আগস্ট ২০১৮ ইং

আবদুল হামিদ
রাষ্ট্রপতি আবদুল হামিদ, ফাইল ফোট

জেরুজালেম ইস্যু: ইস্তাম্বুলে রাষ্ট্রপতি হামিদ

রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ আগামীকাল ১৩ ডিসেম্বর ইসলামী সহযোগিতা সংস্থার (ওআইসি) বিশেষ শীর্ষ সম্মেলনে যোগ দিতে আজ তুরস্কের রাজধানী ইস্তাম্বুলে পৌঁছেছেন।

রাষ্ট্রপতি ও তাঁর সফরসঙ্গীদের বহনকারী তুর্কি এয়ারলাইন্সের ফ্লাইটটি গতকাল সোমবার রাত ১০টা ৩৫ মিনিটে হযরত শাহজালাল (রা.) আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর ত্যাগ করে এবং ৩টা ৪৫ মিনিটে (স্থানীয় সময়) ইস্তাম্বুল আতাতুর্ক বিমানবন্দরে অবতরণ করে।

তুরস্কে বাংলাদেশের রাষ্ট্রদূত এম আল্লামা সিদ্দিকি, ইস্তাম্বুল কনস্যুলেট জেনারেল মো. মনিরুল ইসলাম এবং ইস্তাম্বুলের ডেপুটি গভর্নর আহমেদ হামদি ইউএসটিএ এবং পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাগণ রাষ্ট্রপতিকে বিমানবন্দরে স্বাগত জানান ।

ওআইসির বর্তমান সভাপতি তুরস্কের প্রেসিডেন্ট রিসেপ তাইয়েপ এরদোয়ান আবদুল হামিদকে ষষ্ঠ বিশেষ শীর্ষ সম্মেলনে যোগ দেয়ার জন্য আমন্ত্রণ জানান। রাষ্ট্রপতি তুরস্ক সফরকালে কনরাড ইস্তাম্বুল বসফোরাসের বাসভবনে অবস্থান করবেন।

রাষ্ট্রপতি আগামীকাল বেলা ১১টায় ইস্তাম্বুল কংগ্রেস অ্যান্ড এক্সিবিশন সেন্টারে ওআইসির এ বিশেষ সম্মেলনে যোগ দেবেন। সেখানে তিনি জেরুজালেম বিষয়ে বাংলাদেশের অবস্থান তুলে ধরবেন।

মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প জেরুজালেমকে একতরফাভাবে‘ইসরাইলের কথিত রাজধানী’ হিসেবে স্বীকৃতি দিয়ে বিশ্বের মুসলমানদের অনুভূতিতে আঘাত করায় মুসলিম বিশ্বের পরবর্তী পদক্ষেপের চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত গ্রহণের জন্য ওআইসি-এর এই বিশেষ সম্মেলন অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে।

জেরুজালেম ১৯৬৭ সাল থেকে ইসরাইলি বাহিনী দখল করে রেখেছে। যুক্তরাষ্ট্র জেরুজালেমকে (আল-কুদস আশ-শরীফ) ‘ইসরাইলের কথিত রাজধানী’ হিসেবে স্বীকৃতি দেয় এবং তেল আবিব থেকে যুক্তরাষ্ট্রের দূতাবাস সেখানে স্থানান্তরের প্রক্রিয়া শুরু করে।

এর আগে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ইতোমধ্যে যুক্তরাষ্ট্রের সিদ্ধান্তকে ‘অগ্রহণযোগ্য’ বলে অভিহিত করেছেন এবং এতে সহিংসতা চরম আকার ধারন করবে বলে আশংকা প্রকাশ করেছেন। এব্যাপারে জাতিসংঘে একটি প্রস্তাবনা আনতে হবে অন্যত্থায় ট্রাম্পের ঘোষণা কেউ মেনে নেবে না।

এদিকে ওআইসি একটি বিবৃতিতে বলেছে, ইসরায়েলের রাজধানী হিসাবে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র আল কুদস (জেরুজালেম) যে স্বীকৃতির দিয়েছে তার প্রতিক্রিয়ায় আলোচনা করার জন্য একটি বিশেষ শীর্ষ সম্মেলনের আহ্বান করেছে ওআইসি’র পররাষ্ট্রমন্ত্রী সভা। তারা এই বিশেষ শীর্ষ সম্মেলনে আল-কুদস এবং তার ঐতিহাসিক, আইনগত ও রাজনৈতিক অবস্থা ও ঘটনাবলি নিয়ে একটি সমন্বিত আলোচনা করবেন।