শিক্ষামন্ত্রী নুরুল ইসলাম নাহিদ
শিক্ষামন্ত্রী নুরুল ইসলাম নাহিদ

জেএসসি ও জেডিসি পরীক্ষার ফল প্রকাশ

সম্প্রতি অনুষ্ঠিত জুনিয়র স্কুল সার্টিফিকেট (জেএসসি) ও সমমানের পরীক্ষা ২০১৮ তে পাসের হার ৮৫ দশমিক ৮৩ শতাংশ।
গত বছরের তুলনায় এই হার ২ দশমিক ১৮ শতাংশ বেশি। গতবছর এই হার ছিল ৮৩ দশমিক ৬৫। এছাড়াও এ বছর মোট জিপিএ-৫ পেয়েছে ৬৮ হাজার ৯৫ জন শিক্ষার্থী।

শিক্ষামন্ত্রী নুরুল ইসলাম নাহিদ আজ সোমবার শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের সভাকক্ষে জুনিয়র স্কুল সার্টিফিকেট (জেএসসি) ও সমমানের পরীক্ষা ২০১৮এর ফলাফল প্রকাশ উপলক্ষে সংবাদ সম্মেলনে এসব কথা জানান।

শিক্ষামন্ত্রী জেএসসি ও জেডিসি পরীক্ষার ফলের বিভিন্ন পরিসংখ্যান তুলে ধরে বলেন, ‘এবার জেএসসিতে অংশগ্রহণকারী পরীক্ষার্থীর সংখ্যা ২৫ লাখ ৯৯ হাজার ১৬৯ জন, যা গত বছর ছিল ২৪ লাখ ৮২ হাজার ৩৪২ জন। বেড়েছে ১ লাখ ১৬ হাজার ৮২৭ জন।’

তিনি বলেন, ‘এ বছর পাস করেছে ২২ লাখ ৩০ হাজার ৮২৯ জন, যা গত বছর ছিল ২০ লাখ ১৮ হাজার ২৭১ জন। বেড়েছে ২ লাখ ১২ হাজর ৫৫৮ জন।’

পরীক্ষার ফল বিশ্লেষণ করে শিক্ষামন্ত্রী বলেন, শিক্ষা ব্যবস্থার জন্য কিছু ইতিবাচক দিক লক্ষ্য করা গেছে। এ বছর মোট পরীক্ষার্থীর সংখ্যা বেড়েছে। কেন্দ্র ও প্রতিষ্ঠানের সংখ্যাও বেড়েছে।

তিনি বলেন, ‘এবছর ছাত্রের তুলনায় ২ লাখ ১৩ হাজার ৪৬৫ জন ছাত্রী বেশি অংশগ্রহণ করেছে, ২ লাখ ৫৫ জন ছাত্রী বেশি উত্তীর্ণ হয়েছে। ছাত্রদের তুলনায় ১ দশমিক ৩১ শতাংশ বেশি ছাত্রী পাস করেছে এবং ১১ হাজার ৭১৫ জন জিপিএ-৫ বেশি পেয়েছে।’

তিনি বলেন, শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের গৃহীত নানা পদক্ষেপ, শিক্ষার্থী-শিক্ষক-অভিভাবকগণের অক্লান্ত প্রচেষ্টাসহ সমগ্র শিক্ষা পরিবারের সহযোগিতায় এ অবস্থায় পৌঁছানো সম্ভব হয়েছে। শিক্ষামন্ত্রী পরীক্ষায় কৃতকার্য সকল পরীক্ষার্থী ও তাদের অভিভাবকবৃন্দকে শিক্ষামন্ত্রী অভিনন্দন জানান।

সংবাদ সম্মেলনে শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা বিভাগের সচিব মো. সোহরাব হোসাইন, কারিগরি ও মাদ্রাসা শিক্ষা বিভাগের সচিব মো. আলমগীর, মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা অধিদপ্তরের মহাপরিচালক ড. সৈয়দ মো. গোলাম ফারুকসহ মন্ত্রণালয়ের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তা এবং বিভিন্ন বোর্ডের চেয়ারম্যানগণ উপস্থিত ছিলেন।

উল্লেখ্য, সুষ্ঠু, শান্তিপূর্ণ ও নকলমুক্ত পরিবেশে ২০১৮ সালের জেএসসি ও জেডিসি পরীক্ষা ১ নভেম্বর শুরু হয়ে ১৫ নভেম্বর শেষ হয়।