Sheersha Media

ব্রেকিং নিউজ

রাত ১:৪০ ঢাকা, বৃহস্পতিবার  ২২শে নভেম্বর ২০১৮ ইং

জুয়েলার্সে দুর্ধর্ষ ডাকাতি
শনিবার সন্ধ্যায় শহরের এমএ খান লেনের গোল্ডেন মার্কেটে আল-হাসান জুয়েলার্সে এ ডাকাতির ঘটনা ঘটে।

জুয়েলার্সে দুর্ধর্ষ ডাকাতি, গুলি-বোমাবাজি, স্বর্ণ লুট

বগুড়া শহরে গুলি করে এবং ককটেল ফাটিয়ে একটি জুয়েলার্সে দুর্ধর্ষ ডাকাতির ঘটনা ঘটেছে। ডাকাতরা ৫০০ ভরি সোনার গহনা এবং ৫ লক্ষাধিক টাকা লুট করে নিয়ে গেছে। কিছু স্বর্ণালংকার ও মাইক্রোবাসসহ এক ডাকাতকে গ্রেফতার।

শনিবার সন্ধ্যায় শহরের এমএ খান লেনের গোল্ডেন মার্কেটে আল-হাসান জুয়েলার্সে এ ডাকাতির ঘটনা ঘটে।

গুলি ও ককটেলের আঘাতে দোকানের মালিকসহ চারজন আহত হয়েছেন। আহতদেরকে বগুড়া শহীদ জিয়াউর রহমান মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

পুলিশ প্রায় নয় কিলোমিটার দূরে শাজাহানপুর উপজেলায় গুলি করে এক ডাকাতসহ মাইক্রোবাস আটক করেছে। লুট করা কিছু স্বর্ণালংকার পাওয়া গেছে।

আহতরা হলেন- জুয়েলার্সের মালিক বগুড়া শহরের উত্তর জয়পুরপাড়ার আহমদ আলীর ছেলে গোলজার রহমান (৫৮), পথচারী শাজাহানপুর উপজেলার চকলোকমান এলাকার মোস্তফা কাজীর ছেলে রবিউল ইসলাম (৫৫) ও ডেমাজানি গ্রামের মজিবর রহমানের ছেলে জাকির হোসেন (৪০) এবং ডাকাত পাবনার আতাইকুলা উপজেলার কাজীপুর গ্রামের টুকু লস্করের ছেলে আলমগীর হোসেন (৪৫)।

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, শনিবার সন্ধ্যা ৭টার দিকে ৬/৭ জনের একদল ডাকাত শহরের সাতমাথার কাছে এমএ খান লেনের গোল্ডেন মার্কেটের সামনে আল-হাসান জুয়েলার্সের সামনে মাইক্রোবাস নিয়ে থামে।

একপর্যায়ে ২/৩ জন ক্রেতা সেজে জুয়েলার্সে আসে। তারা হঠাৎ মুখোশ পরে মালিক গোলজারের পায়ে গুলি করে। এরপর অস্ত্রের মুখে মালিক ও কর্মচারীদের জিম্মি করে সিন্দুকের চাবি নেয়।

জুয়েলার্সের মালিক গোলজার রহমান দাবি করেন, ডাকাতরা সিন্দুক খুলে এবং শোকেস ভেঙে প্রায় ৫০০ ভরি সোনার গহনা ও নগদ পাঁচ লক্ষাধিক টাকা বস্তায় ঢুকিয়ে নিয়ে যায়। জুয়েলার্সের সিসি ক্যামেরার ডিভাইসও খুলে নেয় তারা।

পুলিশ বগুড়ার শাজাহানপুরের নয়মাইল এলাকায় গুলি করে মাইক্রোবাস থামতে বাধ্য করে। সেখানে গুলিতে ডাকাত আলমগীর হোসেন আহত হয়।

পুলিশ গণমাধ্যমকে জানায়, কিছু স্বর্ণালংকার ও মাইক্রোবাসসহ এক ডাকাতকে গ্রেফতার করা হয়েছে। অন্য ডাকাতদের গ্রেফতার ও মালামাল উদ্ধারের চেষ্টা চলছে।