Sheersha Media

ব্রেকিং নিউজ

রাত ২:১৪ ঢাকা, বুধবার  ১৪ই নভেম্বর ২০১৮ ইং

‘দীপ্ত শপথ’ ভাস্কর্য
হলি আর্টিজান বেকারিতে সন্ত্রাসী হামলায় নিহত ডিএমপি’র ডিবি’র সিনিয়র সহকারী পুলিশ কমিশনার মোঃ রবিউল ইসলাম ও তৎকালীন বনানী থানার অফিসার ইনচার্জ মোঃ সালাহউদ্দিন খান এর মুখাবয়বে এই ভাস্কর্য

জীবন উৎসর্গকারী পুলিশের মুখাবয়বে গুলশানে ‘ভাস্কর্য’

২০১৬ সালের এই দিনে রাজধানীর গুলশানের হলি আর্টিজান বেকারিতে সন্ত্রাসী হামলা করে চালানো হয় নৃশংস হত্যাযজ্ঞ। এতে ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশের দুই জন অফিসারসহ দেশি-বিদেশী ২২ জন নাগরিক নিহত হন।

হলি আর্টিজান বেকারিতে জঙ্গি হামলা প্রতিরোধে জীবন উৎসর্গকারী পুলিশ সদস্যদের স্মরণে বিনম্র শ্রদ্ধায় উদ্বোধন হল ‘দীপ্ত শপথ’ ভাস্কর্য।

আজ সকাল সাড়ে ১০টায় ডিএমপি কমিশনার মোঃ আছাদুজ্জামান মিয়া গুলশান পুরাতন থানার সামনে ‘দীপ্ত শপথ’ ভাস্কর্যটি উদ্বোধন করেন।

হলি আর্টিজান বেকারিতে সন্ত্রাসী হামলায় নিহত ডিএমপি’র ডিবি’র সিনিয়র সহকারী পুলিশ কমিশনার মোঃ রবিউল ইসলাম ও তৎকালীন বনানী থানার অফিসার ইনচার্জ মোঃ সালাহউদ্দিন খান এর মুখাবয়বে এই ভাস্কর্যটি নির্মাণ করা হয়েছে। ভাস্কর্যটি নির্মাণ করেছেন বিশিষ্ট ভাস্কর মৃণাল হক।

 

সহকারী পুলিশ কমিশনার মোঃ রবিউল করিম

জাতির যে বীরদের নিয়ে বলছি তাঁদের একজন ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশের সিনিয়র সহকারী পুলিশ কমিশনার মোঃ রবিউল করিম । তিনি ১৯৮১ সালে মানিকগঞ্জ জেলায় জন্মগ্রহণ করেন। বাবা মৃত আব্দুল মালেক, মাতা করিমন নেসা (৫৫)। ২০১২ সালে ৩০তম বিসিএস এর মাধ্যমে সহকারী পুলিশ সুপার পদে বাংলাদেশ পুলিশে যোগদান করেন রবিউল। সর্বশেষ ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশের গোয়েন্দা ও অপরাধ তথ্য (উত্তর) বিভাগে কর্মরত ছিলেন। গুলশান জঙ্গী হামলায় কর্তব্যরত অবস্থায় বুকে স্প্লিন্টারবিদ্ধ হয়ে গুরুতর আহত হয়ে চিকিৎসাধীন অবস্থায় ২ জুলাই রাত ১২:২০ মিনিটে ইন্তেকাল করেন। তিনি স্ত্রী, এক ছেলে ও এক মেয়ে রেখে গেছেন।

 

অফিসার ইনচার্জ মোঃ সালাহ উদ্দিন খান

অন্যজন ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশের বনানী থানার অফিসার ইনচার্জ মোঃ সালাহ উদ্দিন খান। তিনি ১৯৬৭ সালে গোপালগঞ্জ জেলায় জন্মগ্রহণ করেন। বাবা মৃত আঃ মান্নান খান, মাতা মৃত লুতফান্নেসা। ১৯৯১ সালে সাব-ইন্সপেক্টর পদে যোগদানের মাধ্যমে বাংলাদেশ পুলিশে তিনি তার কর্মজীবন শুরু করেন। সর্বশেষ তিনি ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশের গুলশান বিভাগের বনানী থানার অফিসার ইনচার্জ হিসেবে কর্মরত ছিলেন। গুলশান জঙ্গী হামলায় কর্তব্যরত অবস্থায় গলায় স্প্লিন্টারবিদ্ধ হয়ে গুরুতর আহত ও পরবর্তীতে চিকিৎসাধীন অবস্থায় ১ জুলাই রাত ১১:২০ মিনিটে ইন্তেকাল করেন। তিনি স্ত্রী, এক কন্যা ও এক পুত্র রেখে গেছেন ।

তাঁদের স্মরণে ‘দীপ্ত শপথ’ নামে একটি ভাস্কর্য উদ্বোধনকালে ডিএমপি কমিশনার বলেন, ‘২০১৬ সালের এই দিনে হলি আর্টিজান বেকারিতে চালানো সন্ত্রাসী হামলা জীবন দিয়ে প্রতিরোধ করেছিল এসি রবিউল ও ওসি সালাহউদ্দিন। তাদের মারা যাওয়ার শোককে আমরা শক্তিতে রুপান্তর করেছি। আমরা পেশাদারিত্বের সাথে জীবনবাজি রেখে জঙ্গিবাদ মোকাবেলা করেছি।’