Sheersha Media

ব্রেকিং নিউজ

সকাল ১০:৪৩ ঢাকা, বুধবার  ১৪ই নভেম্বর ২০১৮ ইং

জিম্মি শিরশ্ছেদে ক্ষুব্ধ প্রতিক্রিয়া টোকিও’র

Like & Share করে অন্যকে জানার সুযোগ দিতে পারেন। দ্রুত সংবাদ পেতে sheershamedia.com এর Page এ Like দিয়ে অ্যাক্টিভ থাকতে পারেন।

 

আন্তর্জাতিক জঙ্গি সংগঠন ইসলামিক স্টেট (আইএস) দ্বিতীয় জাপানি জিম্মি কেনজি গোতোর শিরশ্ছেদের দাবি করে শনিবার একটি ভিডিও প্রকাশ করেছে। এ ঘটনায় ক্ষুব্ধ প্রতিক্রিয়া দেখিয়েছে জাপান এবং যুক্তরাষ্ট্র নিন্দা জানিয়েছে।
বার্তা সংস্থা এএফপি’র খবরে বলা হয়, শনিবার রাতে ইন্টারনেটে ওই জাপানি সাংবাদিকের শিরশ্ছেদের ভিডিও প্রকাশ করা হয়। ভিডিওটির যথার্ততা যাচাই করছে জাপান।
দেশটির প্রধানমন্ত্রী শিনজো আবে এ ঘটনায় ক্ষুব্ধ প্রতিক্রিয়া ব্যক্ত করে বলেছেন, জাপান সন্ত্রাসবাদকে প্রশ্রয় দেবে না এবং আইএসের বিরুদ্ধে যুদ্ধরত দেশগুলোকে তার সহায়তা জোরদার করবে।
আইএস তাদের বিরুদ্ধে যুদ্ধরত দেশগুলোকে জাপান সহায়তা দেয়ার কারণেই দেশটির নাগরিকদের জিম্মি করা হচ্ছে বলে উল্লেখ করেছে।
এর আগে জাপানের আরেক নাগরিক হারুনা ইউকাওয়ার শিরশ্ছেদের ভিডিও প্রকাশ করে আইএস। ওই ঘটনার এক সপ্তাহেরও কম সময়ের ব্যবধানে গোতোর শিরশ্ছেদের ভিডিও প্রকাশ করা হলো।
৪৭ বছর বয়সী ফ্রিল্যান্স সাংবাদিক ও চলচ্চিত্র নির্মাতা গোতো গত বছরের অক্টোবরে সিরিয়া যান। তিনি সম্ভবত ইউকাওয়াকে উদ্ধার করতে সেখানে গিয়েছিলেন। পরে গোতোও অপহৃত হন। যুদ্ধবিধ্বস্ত বিভিন্ন অঞ্চলে বেসামরিক নাগরিকদের দুর্দশার খবর প্রচার করে তিনি বেশ সুনাম অর্জন করেন।
আইএসের প্রকাশিত ভিডিও’র সত্যতা যাচাই করা যায়নি। তবে জাপানি কর্মকর্তাদের ধারণা, এটা সত্য।
জাপানের প্রধানমন্ত্রী শিনজো আবে বলেছেন, তার দেশ সন্ত্রাসীদের কখনো ক্ষমা করবে না। তাদের বিচারের আওতায় আনতে আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়ের সঙ্গে সহযোগিতা করবে জাপান।
এদিকে গোতোর মা জুঙ্কো ইশিদো জানান, তিনি তার ছেলের মৃত্যুর কথা বর্ণনা করার মতো ভাষা খুঁজে পাচ্ছেন না।
তিনি টোকিওর উপকণ্ঠে তার বাড়িতে উপস্থিত সাংবাদিকদের বলেন, ‘এটা আমার জন্য অত্যন্ত কষ্টের। কারণ কেনজি বেঁচে নেই।’ তিনি আরো বলেন, ‘ছেলের এই মর্মান্তিক মৃত্যুতে আমার যে কেমন লাগছে তা আমি ভাষায় প্রকাশ করতে পারব না।’
ইউকাওয়ার শিরশ্ছেদের পর গোতোকে মুক্ত করতে কূটনৈতিক তৎপরতা চলছিল।
বিশ্বব্যাপী নিন্দা
এ ঘটনায় জাতিসংঘ, জাপান, যুক্তরাষ্ট্র, যুক্তরাজ্য ও ফ্রান্স তীব্র নিন্দা জানিয়েছে।
জাতিসংঘ মহাসচিব বান কি-মুন জাপানি সাংবাদিক কেনজি গোতোর ‘বর্বর হত্যাকান্ডের’ তীব্র নিন্দা জানিয়েছেন। বানের মুখপাত্র বলেন, ‘মহাসচিব আইএস ও অন্যান্যের হাতে জিম্মি সকলকে নিঃশর্তভাবে মুক্তি দেয়ার জন্য আবারো আহবান জানিয়েছেন।’
মার্কিন প্রেসিডেন্ট বারাক ওবামা বলেন, সন্ত্রাসী গোষ্ঠী আইএসের হাতে জাপানি নাগরিক ও সাংবাদিক কেনজি গোতোর ঘৃণ্য হত্যাকান্ডের নিন্দা জানাচ্ছে যুক্তরাষ্ট্র।
ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী ডেভিড ক্যামেরন বলেছেন, ‘কেনজি গোতোর জঘন্য ও মর্মান্তিক হত্যাকান্ডের আমি তীব্র নিন্দা জানাচ্ছি।’
ফ্রান্সের প্রেসিডেন্ট ফ্রাসোঁয়া ওলাঁদ বলেন, আইএসের হাতে জাপানি সাংবাদিক কেনজি গোতোর বর্বর হত্যাকান্ডের তিনি তীব্র নিন্দা জানাচ্ছেন। অস্ট্রেলিয়ার প্রধানমন্ত্রী টনি অ্যাবোটও এ ঘটনার তীব্র নিন্দা জানিয়েছেন।