ব্রেকিং নিউজ

সন্ধ্যা ৬:৪৩ ঢাকা, বুধবার  ২৬শে সেপ্টেম্বর ২০১৮ ইং

আবুল মাল আব্দুল মুহিত
অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আব্দুল মুহিত, ফাইল ফটো

জাপানিদের শঙ্কা কেটে গেছে, বিনিয়োগে আসবে : অর্থমন্ত্রী

অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিত বলেছেন, জাপানি নাগরিকদের নিরাপত্তা শঙ্কা কেটে গেছে। জাপান সরকার বাংলাদেশের ওপর থেকে সব ধরনের রিজার্ভেশন ও রেস্ট্রিকশন তুলে নিয়েছে। জাপান বাংলাদেশে নতুন নতুন বিনিয়োগে আসবে বলে কথা দিয়েছে।

সম্প্রতি জাপান সফর শেষে রবিবার সচিবালয়ে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে অর্থমন্ত্রী এ কথা বলেন।

গত ১ জুলাই গুলশানে হলি অর্টিজান রেস্টুরেন্টে জঙ্গি হামলায় ৭ জন জাপানীাসহ মোট ২১ জন নিহত হয়। নিহত ওই জাপনীরা বাংলাদেশে বিভিন্ন উন্নয়ন প্রকল্পে নিয়োজিত ছিলেন। এই ঘটনার পর বাংলাদেশে জাপানীদের চলাচলে কড়াকড়ি আরোপ করে জাপান সরকার। বাংলাদেশের আইন শৃঙ্খলা বাহিনীর পক্ষ থেকে পর্যাপ্ত নিরাপত্তা নেয়ার পরেও অনেক প্রকল্পে আর ফিরে আসেনি অনেক জাপানী পরামর্শকরা।

প্রায় এক সপ্তাহের জাপান সফরের বিষয়ে অর্থমন্ত্রী সাংবাদিকদের জানান, জাইকার প্রেসিডেন্ট আগামী ২০১৮ সালে বাংলাদেশ সফরে আসবেন। ১ জুলাই এর পর জাইকার যেসব কর্মকর্তা ঢাকা ছেড়ে গেছেন তারা খুব শিগগিরই কাজে যোগ দেবেন। এছাড়া জাইকার যেসব কর্মকর্তা ও পরামর্শক হলি আর্টিজানে নিহত হয়েছে সেসব পদে নতুন কর্মকর্তা খুব অতি অল্প সময়ের মধ্যেই যোগ দেবে বলে জানিয়েছে সংস্থাটি।

জাপানের নিষেধাজ্ঞার বিষয়ে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে অর্থমন্ত্রী বলেন, এক্ষেত্রে লিখিত কোনও স্টেটমেন্ট ছিল না। তবে দেশটির নাগরিকদের সতর্কতার সঙ্গে চলাফেরা করতে নির্দেশ দেওয়া হয়েছিল। সেই সতর্কতাই তারা উঠিয়ে নিতে সম্মত হয়েছে। তিনি দৃঢ়তার সঙ্গে বলেন, ওই ঘটনার পর বাংলাদেশে জাপানি কোনও প্রকল্পের কাজ আটকে ছিল না। আমার চেয়েছি বাংলাদেশে বিনিয়োগের মার্কেটটি বড় করতে। বিনিয়োগের ক্ষেত্রে জাপানের গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে।

এর মধ্য দিয়ে বাংলাদেশে বিনিয়োগ বাড়ানোর লক্ষ্য এখন সহজ হবে। প্রধানমন্ত্রীর ভারত সফর প্রসঙ্গে অর্থমন্ত্রী বলেছেন, ভারত বাংলাদেশে কি ধরনের বিনিয়োগ করবে সেটা প্রধানমন্ত্রী সফরের পরই বোঝা যাবে। প্রধানমন্ত্রীর এই সফরে গঙ্গা ব্যারেজ সম্পর্কে কোন সিদ্ধান্ত আসবে কিনা-জানতে চাইলে তিনি বলেন, সেটা এখনই বলা যাবে না। রিজার্ভ চুরির ব্যাপারে সিআইডি তদন্ত নিয়ে প্রশ্ন করা হলে অর্থমন্ত্রী বলেন, বাংলাদেশ ব্যাংকের রিজার্ভ চুরির বিষয়ে সিআইডির প্রতিবেদন আমি দেখি নাই। কাজেই ও বিষয়ে আমি কোনও মন্তব্য করতে পারবো না। আর সরকারি তদন্ত প্রতিবেদন বিষয়ে তিনি বলেন, এটা সুবিধাজনক সময়ে প্রকাশ করা হবে।