Sheersha Media

ব্রেকিং নিউজ

রাত ১০:০৮ ঢাকা, বুধবার  ১৪ই নভেম্বর ২০১৮ ইং

জাতীয় সংসদে ২০১৫-১৬ অর্থবছরের বাজেট পেশ

২০১৫-২০১৬ অর্থবছরের বাজেট ঘোষণা করেছেন অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিত। বৃহস্পতিবার বেলা ৩টা ৩৫ মিনিট থেকে তিনি জাতীয় সংসদের বাজেট অধিবেশনে দুই লাখ ৯৫ হাজার ১০০ কোটি টাকার বাজেট উপস্থাপন শুরু করেন।
এটি হচ্ছে বাংলাদেশের ৪৪তম বাজেট এবং আওয়ামী লীগ সরকারের ১৬তম। আর অর্থমন্ত্রী হিসাবে আবুল মাল আবদুল মুহিতের নবম বাজেট। অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিতই প্রথম অর্থমন্ত্রী যিনি ২০০৯-১০ অর্থবছর থেকে ২০১৫-১৬ অর্থবছর পর্যন্ত একনাগারে সাতটি বাজেট পেশ করছেন। অবশ্য তিনি ১৯৮২-৮৩ ও ১৯৮৩-৮৪ অর্থবছরে আরো দুটি বাজেট পেশ করেছিলেন।
এবার বাজেটের আকার দুই লাখ ৯৫ হাজার ১০০ কোটি টাকা। এটাই দেশের ইতিহাসে সর্বোচ্চ বাজেট। এবার জিডিপি প্রবৃদ্ধির লক্ষ্যমাত্রা ধরা হয়েছে সাত শতাংশ। গত ২০১৪-১৫ অর্থবছরে বাজেটের আকার ছিল দুই লাখ ৫০ হাজার ৫০৬ কোটি টাকা। আর জিডিপি প্রবৃদ্ধির (মোট দেশজ উৎপাদন) লক্ষ্যমাত্রা ছিল ৭ দশমিক ৩ শতাংশ।

এবার বাজেটে ঘাটতি ধরা হয়েছে ৮৬ হাজার ৬৫৭ কোটি টাকা। অভ্যন্তরীণ ব্যাংক ব্যবস্থা ও সঞ্চয়পত্র থেকে ঋণ গ্রহণ এবং বৈদেশিক ঋণ ও অনুদান থেকে এ ঘাটতি পূরণ করা হবে।
এ অর্থবছরে মোট রাজস্ব আয়ের লক্ষ্যমাত্রা ধরা হয়েছে দুই লাখ আট হাজার ৪৪৩ কোটি টাকা। এর মধ্যে জাতীয় রাজস্ব বোর্ডের (এনবিআর) মাধ্যমে এক লাখ ৭৬ হাজার ৩৭০ কোটি টাকা আদায় করা হবে। আর এনবিআর-বহির্ভূত সূত্র থেকে কর রাজস্ব প্রাক্কলন করা হয়েছে ৫ হাজার ৮৭৪ কোটি টাকা। এ ছাড়া কর-বহির্ভূত খাত থেকে রাজস্ব আহরণের লক্ষ্যমাত্রা ধরা হয়েছে ২৬ হাজার ১৯৯ কোটি টাকা।

অন্যান্যের মধ্যে বাজেটে সামাজিক নিরাপত্তা ও ভর্তুকী খাতে বরাদ্দ বাড়ানো হয়েছে। পাবলিক-প্রাইভেট পার্টনারশিপ (পিপিপি), পদ্মা সেতু, সরকারি কর্মকর্তা-কর্মচারিদের জন্য নতুন পে-স্কেল বাস্তবায়ন ইত্যাদি খাতেও বরাদ্দ রাখা হয়েছে। এছাড়া শিশুদের জন্য প্রথমবারের মত ঘোষণা করা হয়েছে পৃথক শিশু বাজেট আর ছিটমহলবাসীদের জন্য রাখা হয়েছে বিশেষ বরাদ্দ।
এর আগে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সভাপতিত্বে সংসদের কেবিনেট কক্ষে মন্ত্রিসভার বিশেষ বৈঠকে প্রস্তাবিত বাজেট অনুমোদন করা হয়।
সূত্র জানায়, ৪ জুন সংসদে ২০১৫-১৬ অর্থবছরের প্রস্তাবিত বাজেট, সংশোধিত বাজেট ও ২০১৫ সালের অর্থবিল উপস্থাপন করা হবে। প্রস্তাবিত বাজেট আলোচনার পর ৩০ জুন পাস হবে।
চলতি ২০১৪-১৫ অর্থবছরের সংশোধিত বাজেটের ওপর আলোচনা হবে ৭ জুন এবং ৮ জুন এটা পাস হবে। প্রস্তাবিত বাজেটের ওপর সাধারণ আলোচনা শুরু হবে ৯ জুন এবং শেষ হবে ২৮ জুন। অর্থ বিল পাসের মাধ্যমে ১ জুলাই থেকে নতুন বাজেট বাস্তবায়ন শুরু হবে।