Sheersha Media

ব্রেকিং নিউজ

রাত ১২:০৬ ঢাকা, সোমবার  ১৯শে নভেম্বর ২০১৮ ইং

আওয়ামী লীগ

জনপ্রিয়রা নমিনেশন পাবে, বিদ্রোহ করলেই বহিস্কার

আগামী জাতীয় সংসদ নির্বাচনকে কেন্দ্র করে দলে শৃঙ্খলা বজায় রাখার ওপর গুরুত্বারোপ আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক করে ওবায়দুল কাদের মনোনয়ন নিয়ে দলের ভেতর কোনো অসুস্থ প্রতিযোগিতা চলতে দেয়া হবে না মর্মে কঠোর হুঁশিয়ারী উচ্চারণ করেছেন।

আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক কঠোর হুঁশিয়ারী উচ্চারণ করে বলেন,‘দলীয় প্রার্থীর বিরুদ্ধে বিদ্রোহ করলে সে যত শক্তিশালী হোক সঙ্গে সঙ্গে তাকে দল থেকে বহিস্কার করা হবে। দলের ঐক্যের ফসল আমাদের ঘরে তুলতে হবে।’

তিনি বলেন,‘প্রধানমন্ত্রীর কাছে সবার এসিআর জমা আছে। প্রতি ছয় মাস পর পর জরিপ হচ্ছে, সে ফলও প্রধানমন্ত্রীর কাছে জমা হচ্ছে, কাজেই যারা জনপ্রিয়তায় এগিয়ে থাকেবে তারাই আওয়ামী লীগের নমিনেশন পাবেন।’

মনোনয়ন পাওয়ার জন্য নিজ দলের নেতাদের বিরুদ্ধে কোন ধরনের দুর্নামও সহ্য করা হবে না বলেও তিনি উল্লেখ করেন।

ওবায়দুল কাদের আজ দুপুরে গণভবনে আওয়ামী লীগের বিশেষ বর্ধিত সভায় ইউনিয়ন পর্যায়ের নেতা ও জনপ্রতিনিধিদের উদ্দেশ্যে এ কথা বলেন।

প্রধানমন্ত্রী এবং আওয়ামী লীগ সভাপতি শেখ হাসিনা সভায় সভাপতিত্ব করেন।

গত ২৩ জুন আওয়ামী লীগের প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী উপলক্ষে আয়োজিত বিশেষ বর্ধিত সভার এদিন ছিল দ্বিতীয় পর্যায়। সভায় আওয়ামী লীগ কেন্দ্রীয় কার্যনির্বাহী সংসদ, উপদেষ্টা পরিষদ, রাজশাহী, বরিশাল, সিলেট ও চট্টগ্রাম বিভাগের অধীন প্রতিটি ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি, সাধারণ সম্পাদক, ইউনিয়ন পরিষদের নির্বাচিত দলীয় চেয়ারম্যান, মহানগরের অধীন সংগঠনের প্রতিটি ওয়ার্ডের সভাপতি, সাধারণ সম্পাদক ও দলীয় নির্বাচিত কাউন্সিলার এবং জেলা পরিষদের নির্বাচিত দলীয় সদস্যরা উপস্থিত ছিলেন।

ঢাকা, ময়মনসিংহ, রংপুর ও খুলনা বিভাগের তৃণমূল নেতৃবৃন্দকে নিয়ে এই বিশেষ বর্ধিত সভার শেষ অংশ আগামী ৭ জুলাই গণভবনে অনুষ্ঠিত হবে।

দলীয় সভাপতি শেখ হাসিনার আগে বক্তব্য রাখেন ওবায়দুল কাদের। এ সময় তিনি আগামী নির্বাচনকে সামনে রেখে দলের শৃঙ্খলা রক্ষার ওপর জোর দেন।

দলের শৃঙ্খলা রক্ষার তাগিদ দিয়ে কাদের বলেন, ‘নমিনেশন (মনোনয়ন) পাওয়ার আগ্রহ থাকতে পারে, সবার অধিকার আছে। কিন্তু নেত্রী বলেছেন, প্রতিযোগিতা হবে সুস্থ, অসুস্থ প্রতিযোগিতা হবে না।’

‘নিজের লোকের বিরুদ্ধে নিজেরা বিষোদগার করবেন’ এই মনোনয়ন পাওয়ার জন্য, এই প্র্যাকটিস এবার সহ্য করা হবে না,’বলেন তিনি।

সড়ক পরিবহন ও সেতু মন্ত্রী এ সময় বলেন, ‘নেত্রীর উদার মন বঙ্গবন্ধুর মতো। বিশাল হৃদয়, সাগরের মতো গভীরতা। তিনি বারবার ক্ষমা করে দিয়েছেন, কিন্তু আগামী নির্বাচনে আর ক্ষমা হবে না।’

গাজীপুর সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনে আওয়ামী লীগের বিজয়কে তিনি এসময় শেখ হাসিনার উন্নয়নের রাজনীতির ফসল বলেও উল্লেখ করে দলীয় ঐক্য ধরে রাখার পরামর্শ দেন।

গাজীপুরে কীভাবে জয় হলো জানেন? এমন প্রশ্ন রেখে দলের সাধারণ সম্পাদক পরে নিজেই তার জবাব দিয়ে বলেন, আমাদের নেত্রীর উন্নয়নের রাজনীতির ফসল আমরা ঘরে তুলেছি। এই উন্নয়ন অর্জনের রাজনীতি আগামী ডিসেম্বরের জাতীয় নির্বাচন পর্যন্ত- খুলনা, গাজীপুরের মত ইনশাআল্লাহ জয়ের ধারা অব্যাহত থাকবে।’ আর এই জয় নিশ্চিত করতে হলে দলীয় শৃঙ্খলা জরুরি বলে উল্লেখ করেন তিনি।

তিনি বলেন, ‘যদি আমরা ঐক্যবদ্ধ থাকি, ঐক্যবদ্ধ আওয়ামী লীগের সঙ্গে প্রতিদ্বদ্বিতা করার মতো কোনো শক্তি বাংলাদেশে নেই। যে কোনো নির্বাচনে ঐক্যবদ্ধ থাকলে আমরা বিজয়ী হবো।’

দলের নেতা-কর্মীদের জনগণের সঙ্গে ভালো আচরণ করারও তাগিদ দিয়ে ওবায়দুল কাদের বলেন, ‘উন্নয়নের সাথে আচরণ ম্যাচ করতে হবে। ভালো উন্নয়নের সঙ্গে ভালো আচরণ হলে ব্যাটে বলে সংযোগ হবে, আমরা বিজয়ী হবো।’

ওবায়দুল কাদের এ সময় রাষ্ট্রনায়ক শেখ হাসিনার সততার প্রশংসা করে কোন ধরনের আলাদা ম্যাজিক নয়,মাটি ও মানুষের কাছাকাছি থাকতে পারাটাই তাঁর সাফল্যের রসায়ন বলেও উল্লেখ করেন।