ব্রেকিং নিউজ

সকাল ১১:১৫ ঢাকা, মঙ্গলবার  ২৫শে সেপ্টেম্বর ২০১৮ ইং

ফাইল ফটো

জঙ্গিবাদ উত্থানের আশংকা ভয়াবহ পরিস্থিতি সৃষ্টি করতে পারে তবে-

বিভিন্ন বিদেশী সংস্থার তথ্যে সরকারকে জঙ্গিবাদের উত্থান হওয়ার কথা আশংকা জানানো হয়েছে,  যা আমাদের দেশের জন্য ভয়াবহ পরিস্থিতি সৃষ্টি করতে পারে। তবে বর্তমানে দেশে জঙ্গিবাদের অস্তিত্ব নিয়ে ভয়ের কিছু নেই।’ জাতীয় সংসদ নির্বাচনসহ সকল স্থানীয় সরকার নির্বাচন যদি বিশ্বসযোগ্যতা হারায় এবং সত্যিকারের নির্বাচন না হয়, তাহলে দেশে জঙ্গিবাদের উত্থান হওয়ার আশংকা থাকে।

শনিবার রংপুর সার্কিট হাউসে সাংবাদিকদের সঙ্গে আলাপকালে সাবেক রাষ্ট্রপতি জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান এইচএম এরশাদ এ সব কথা বলেন। দুদিনের সফরে আজ তিনি রংপুরে আছেন।

দেশের আইনশৃংখলা পরিস্থিতি নিয়ে এক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, দেশের আইনশৃংখলা পরিস্থিতি নিয়ে বহুবার বলেছি। দেশের আইনশৃংখলা পরিস্থিতি সরকার নিয়ন্ত্রন করতে পারছে না। মানুষ আজ নিরাপত্তাহীনতার মাঝে বসবাস করছে।

এ সময় জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান বলেন, বর্তমান সরকারের কাছে সত্যিকারের বিরোধী দল হিসেবে জাতীয় পার্টিকে দাঁড় করাতে হবে। তাই সরকারের মন্ত্রিসভা থেকে পার্টির সংসদ সদস্যদের বের হয়ে আসার জন্য তিনি প্রস্তুত থাকতে বলেছেন।

তিনি মনে করেন, মন্ত্রিপরিষদ থেকে সকলের পদত্যাগ করার বিষয়টি নিয়ে সময় নিয়ে এগোতে হবে। এ নিয়ে কেউ যেন কোনো ফায়দা লুটতে না পারে এ জন্য সতর্ক থাকতে হবে।

সম্প্রতি অনুষ্ঠিত পৌর নির্বাচনে জাতীয় পার্টির ভাল ফলাফল করতে না পারার বিষয়ে নিজের মূল্যায়ন সম্পর্কে এরশাদ বলেন, ‘আমরা নির্বাচনের জন্য প্রস্তুত ছিলাম না। আর দলীয় প্রতীকে নির্বাচন এটি একটি নতুন বিষয়।’

তিনি আরও বলেন, নির্বাচনের বিশ্বস্ততা নিয়েও নানা প্রশ্ন রয়েছে। এ সব কারণে ওই নির্বাচনে ফলাফল ভালো হয়নি। তবে এবারের ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচন নিয়ে তারা দলের প্রার্থী বাছাই করতে সতর্ক হয়েছেন।

শুক্রবার রাতে ঢাকায় জঙ্গিদেরর সঙ্গে পুলিশের সংঘর্ষ ও পুলিশ সদস্য আহত হওয়ার বিষয়ে সাবেক এই রাষ্ট্রপতি বলেন, ‘এটি ভালো আলামত নয়।’

এ সময় এরশাদের সঙ্গে ছিলেন পার্টির কো-চেয়ারম্যান সাবেক মন্ত্রী জিএম কাদের, প্রেমিডিয়াম সদস্য ও প্রতিমন্ত্রী মসিউর রহমান রাঙ্গা, মেজর (অব.) খালেদ আখতার, পার্টির জেলা কমিটির আহ্বয়ক মোফাজ্জল হোসেন মাস্টারসহ জেলা ও মহানগর কমিটির নেতৃবৃন্দ।