Sheersha Media

ব্রেকিং নিউজ

দুপুর ২:৪৬ ঢাকা, বুধবার  ১৪ই নভেম্বর ২০১৮ ইং

র‌্যাব মহাপরিচালক
র‌্যাপিড এ্যাকশন ব্যাটালিয়ন (র‌্যাব) মহাপরিচালক (ডিজি) বেনজীর আহমেদ, ফাইল ফটো

‘জঙ্গিবাদে জড়িত-মদদ থাকলেই গ্রেফতার’ – র‌্যাবের ডিজি

জঙ্গিবাদ একটি বৈশ্বিক সমস্যা উল্লেখ করে র‌্যাপিড এ্যাকশন ব্যাটালিয়নের (র‌্যাব) মহা পরিচালক (ডিজি) বেনজীর আহমেদ বলেছেন, দেশি-বিদেশি কিংবা আঞ্চলিক যার বিরুদ্ধেই জঙ্গিবাদে জড়িত থাকা ও মদদের প্রমাণ মিলবে তাকেই গ্রেফতার করা হবে। জঙ্গি নেটওর্য়াকের ওপর গোয়েন্দা নজরদারি জোরদার করা হয়েছে।

তিনি আজ শিল্পকলা একাডেমির অডিটোরিয়ামে ‘মহাজোট সরকারের উন্নয়নের অগ্রযাত্রা ও জঙ্গি নির্মূলে জিরো টলারেন্স’ শীর্ষক আলোকচিত্র প্রদর্শনীর উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তৃতায় এ কথা বলেন।

দৈনিক নিউএজ পত্রিকার ফটো-সাংবাদিক আলী হোসেন মিন্টুর আলোকচিত্র প্রদর্শনী অনুষ্ঠানে জাসদ ছাত্রলীগের সভাপতি সামছুল ইসলাম সুমন সভাপতিত্ব করেন।

বেনজীর আহমেদ বলেন, গুলশান ও আশুলিয়ায় হামলার পর নব্য জেএমবি’র সদস্যরা পুনর্গঠিত হয়ে বড় ধরনের হামলা চালানোর সক্ষমতা হারিয়ে ফেলেছে। তারপরও তারা সংগঠিত হওয়ার চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে। যাতে বড় ধরনের হামলা করতে না পারে সে জন্য তাদের ওপর র‌্যাবসহ অন্যান্য আইন-শৃংখলা রক্ষাকারী বাহিনীর গোয়েন্দা নজরদারি বাড়ানো হয়েছে। এ ছাড়া পুরাতন জেএমবি সদস্যদের প্রতিও নজর রাখা হয়েছে।

জেএমবি সদস্যদের সহযোগিতা করে এমন ব্যক্তি ও প্রতিষ্ঠানের ওপরেও গোয়েন্দা নজরদারি রয়েছে উল্লেখ করে তিনি বলেন, ইতোমধ্যে জেএমবি সদস্যদের অর্থ সহায়তাকারীদের গ্রেফতার করা হয়েছে। নগদ অর্থও উদ্ধার করা হয়েছে।

বেনজীর আহমেদ বলেন, জঙ্গিবাদ বাংলাদেশে বিজাতীয় ধারণা। এ দেশের মাটি জঙ্গিবাদের জন্য অনুকূল নয়। পাকিস্তান আমলে প্রথম পশ্চিম বাংলায় জঙ্গিবাদী আন্দোলন শুরু হয়েছিল। সেটা ছিলো মার্কসবাদী আন্দোলন।

এরপর আশির দশকে কিছু বিপদগামী যুবক আফগানিস্তানে তালেবান যুদ্ধে অংশ গ্রহণের পর ফিরে এসে এ দেশে জঙ্গিবাদ প্রতিষ্ঠার চেষ্টা করে। কিন্ত এ দেশের মানুষ মনে প্রাণে জঙ্গিবাদকে ঘৃণা করে।