Sheersha Media

ব্রেকিং নিউজ

রাত ৮:১৪ ঢাকা, শুক্রবার  ১৬ই নভেম্বর ২০১৮ ইং

ছুটির দিনের ন্মুনা ফটো

ছুটির দিনে যা করণীয় এবং বর্জনীয়

প্রতিদিন সকালে ঘুম থেকে উঠে উর্ধ্বশ্বাসে অফিসে দৌড়ানো। অফিস শেষে বাসায় ফিরে অন্যান্য কাজের ফাঁকে একটুখানি ঘুম। পরদিন সকালে আবারও একই রুটিন। তাই সপ্তাহ শেষে সমস্ত ক্লান্তি আর অবসাদ এসে ভর করে আপনার ওপর।

ছুটির দিন জুড়ে আর কিছুই নয়, শুধুই ঘুম। কেউ ভাবেন সারাদিন বাইরে ঘুরে বেড়াবেন। কেউ আবার পরিকল্পনা করেন সারা সপ্তাহের জমানো ময়লা কাপড় ধুয়ে সাফ করবেন সকালের মধ্যেই। তাছাড়া ছুটির একটা দিনে ভালো রান্নার আয়োজন থাকতেই পারে। অবশেষে দেখা যায়, এই দিনে আপনার পরিশ্রম বেড়ে যায় কর্মদিবসের দ্বিগুন। তাই নিজের সুস্থতা ধরে রাখতে কিছু জিনিস মেনে চলা উচিৎ।

তাড়াতাড়ি ঘুমানো : ছুটির দিনে পুরোটা সময় বাসায় থাকার সুযোগ। এই ভেবে অনেকেই হাতের সব কাজ শেষ করে ঘুমাতে যান অনেক রাতে। কিন্তু এটা শরীরের জন্য মারাত্মক ক্ষতিকর। এমনিতে সারা সপ্তাহের ক্লান্তি ভর করে আছে আপনার শরীরে। তার ওপর বাসায় ফিরে একাধারে কাজ করে যাচ্ছেন অনেকটা সময় জুড়ে। অথচ সপ্তাহের অন্যান্য দিনে তাড়াতাড়িই ঘুমান। একদিনের অনিয়ম আপনাকে অসুস্থ করে দিতে পারে। তাই অন্যান্য দিনের নিয়মে ঘুমিয়ে পড়ুন।

ঠিক সময়ে ওঠা : ছুটির একটা দিন পেয়ে অনেকেই একটু বেশি ঘুমানোর চেষ্টা করেন। অনভ্যাসে বেশি ঘুমানো অবসাদের জন্ম দেয়। ফলে অন্যান্য কাজেও আপনি যত্নশীল হতে পারবেন না। জমিয়ে থাকা কাজগুলো রয়ে যাবে অবহেলায়। তাছাড়া কম ঘুম যেমন দেহের জন্য ক্ষতিকর, তেমনি বেশি ঘুমানোও ক্ষতিকর।

স্বাভাবিক কাজ করা : জমিয়ে রাখা সব কাজই ছুটির দিনে করে ফেলার অভ্যাস আছে অনেকের। যা খুবই ক্ষতিকর। এতে করে মানসিক শান্তি নষ্ট হয়। তাই প্রতিদিনই অল্প করে কাজ গুছিয়ে রাখলে ছুটির দিন বিশ্রাম নেয়া যায়। কাজের তাড়া না থাকায় দিনভর থাকাতে পারবেন মনের আনন্দে।

সাধারণ খাবার খাওয়া : অফিসে থাকায় ঠিকমতো রান্নার সুযোগ হয় না সব সময়। মাঝে মাঝে বাইরের খাবার খেতে হয়। এতেই পেটের অবস্থা করুন থাকে। তার ওপর অনেকে ছুটির দিন ভেবে পোলাও, মাছ, মাংস বা তেল-চর্বির আধিক্য রেখে খাবার খান। যা আপনার পেটকে আরও খারাপ করে দিতে পারে। তাই ছুটির এই দিনে শাক-সবজি আর ছোট মাছ বেশি করে খেতে পারেন। কিছুটা হলেও সারা সপ্তাহের সবজির পুষ্টি মিটবে।

প্রিয় মানুষকে সময় দিন : ছুটির দিনে প্রিয় মানুষকে সময় দিন। এতে যেমন সম্পর্কের উন্নতি হবে, ঠিক তেমনি আপনিও থাকবেন শান্তিতে। সঙ্গীর সঙ্গে সব কথা ভাগাভাগি করতে পারলে আপনিও থাকবেন অনেকটা নির্ভার। এতে আপনার হার্ট ভালো থাকবে।

রুটিন পরিবর্তন করা : প্রতি ছুটিতে একই ধরণের কাজ করার অভ্যাস থাকলে পরিবর্তন করুন। একেক ছুটিতে একেক কাজ করতে পারেন। কোনোদিন ঘুরতে, শপিং করতে, কারো বাসায় যেতে বা বন্ধুদের সঙ্গে সময় কাটাতে পারেন। যা মানসিক স্বাস্থ্যের জন্য খুবই ভালো হবে। একঘেয়েমী কেটে যাবে একেবারেই।

এই প্রতিবেদন Like & Share করুন।