Sheersha Media

ব্রেকিং নিউজ

দুপুর ১২:০২ ঢাকা, রবিবার  ১৮ই নভেম্বর ২০১৮ ইং

রাজশাহী প্রকৌশল ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়
রাজশাহী প্রকৌশল ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়

ছাত্রলীগের দুই গ্রুপের সংঘর্ষ: রুয়েট বন্ধ ঘোষণা

ছাত্রলীগের দুই গ্রুপের সংঘর্ষের জের ধরে রাজশাহী প্রকৌশল ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় ১৮ নভেম্বর পর্যন্ত বন্ধ ঘোষণা করেছে কর্তৃপক্ষ।

শুক্রবার বিকাল ৩টার মধ্যে শিক্ষার্থীদের আবাসিক হল ছাড়ারও নির্দেশ দেয়া হয়েছে।

সকালে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনের জরুরি সভায় এ সিদ্ধান্ত নেয়া হয় বলে গণমাধ্যমকে নিশ্চিত করেছেন রুয়েটের নিরাপত্তা কর্মকর্তা মো. জালাল উদ্দিন।

তিনি  জানান, গত তিন দিনে দু’টি অনাকাঙ্ক্ষিত ঘটনা (ছাত্রলীগের সংঘর্ষ) ঘটেছে। ফলে পরিস্থিতি শান্ত রাখতে ১৮ নভেম্বর পর্যন্ত বিশ্ববিদ্যালয়ের কার্যক্রম বন্ধ রাখার সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে।

এ পরিপ্রেক্ষিতে বিকাল ৩টার মধ্যে শিক্ষার্থীদের হল ছাড়ার নির্দেশ দেয়া হয়েছে বলেও জানান জালাল উদ্দিন।

জানা যায়, গত মঙ্গলবার শহীদ হামিদ হলে এবং জিয়াউর রহমান হলে চারটি ল্যাপটপ চুরি হয়। এতে ছাত্রলীগ নেতা শাকিল (গ্লাস এন্ড সিরামিকস বিভাগ) জড়িত বলে সন্দেহ করা হচ্ছে।

এর জের ধরে বৃহস্পতিবার রাতে শহীদ হামিদ হলে সংঘর্ষের সূত্রপাত হয়।

ভুক্তভোগী রাকেশ নামে এক শিক্ষার্থী বিষয়টি পুলিশ ও বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষকদের জানায়। এতে ক্ষিপ্ত হয়ে শাকিলের পক্ষ নিয়ে ছাত্রলীগ কর্মী তপু ১০/১২ জন নেতাকর্মী নিয়ে বৃহস্পতিবার রাতে রাকেশকে মারধর করতে যায়।

রাকেশ বিষয়টি জানতে পেরে দৌড়ে শহীদুল্লাহ হলের ভিতরে ঢুকে পড়ে। সেখান থেকে রাকেশকে ধরে এনে হলের সামনে মারধর শুরু করে তপু গ্রুপের কর্মীরা।

এসময় শহীদুল্লাহ হলের সামনে ছাত্রলীগ কর্মী আবিরের মোটরসাইকেল ভাঙচুরেরও ঘটনাও ঘটে। এতে ক্ষিপ্ত হয়ে আবিরের পক্ষ নিয়ে সাখাওয়াত গ্রুপের কর্মীরা তপু গ্রুপের ওপর হামলা চালায়। এতে সংঘর্ষ বেধে যায়। এতে ৫ ছাত্রলীগ নেতাকর্মী আহত হয়েছেন।

তাদের মধ্যে একজনকে গুরুতর অবস্থায় রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। অন্যদের প্রাথমিক চিকিৎসা দেওয়া হয়েছে। তবে তাদের নাম-পরিচয় জানা যায় নি।

রুয়েট ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক তৌহিদুর রহমান হিমেল গণমাধ্যমকে বলেন, ‘সংঘর্ষের সময় আমি ক্যাম্পাসে ছিলাম না। তবে হলের সাধারণ শিক্ষার্থীদের কাছে জানতে পারলাম- বহিরাগত কিছু অস্ত্রধারী হলে প্রবেশ করে হামলা চালিয়েছে।’

এরআগে গত মঙ্গলবার রাতে ল্যাপটপ চুরির ঘটনাকে কেন্দ্র করে জিয়া হলে ছাত্রলীগের নেতাকর্মীদের মধ্যে ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়ার ঘটনা ঘটে।

এ সময় সহকারী ছাত্রকল্যাণ পরিচালক সিদ্ধার্থ শঙ্কর সাহাকে হলে অবরুদ্ধ করে রাখেন হল ছাত্রলীগের নেতাকর্মীরা।

সিদ্ধার্থ শঙ্কর মহানগর আওয়ামী লীগের শিক্ষাবিষয়ক সম্পাদক হওয়ায় রাজশাহী মহানগর ও রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রলীগের নেতাকর্মীরা তার পক্ষ নিয়ে রুয়েটে যায়। এতে তিন পক্ষের মধ্যে উত্তেজনার সৃষ্টি হয়।

এ নিয়ে রুয়েট ও স্থানীয় ছাত্রলীগের মধ্যে দ্বন্দ্ব চলছিল। এরই মধ্যে বৃহস্পতিবার রাতে ফের সংঘর্ষ হয়।