Sheersha Media

ব্রেকিং নিউজ

সকাল ১০:৩০ ঢাকা, বুধবার  ২১শে নভেম্বর ২০১৮ ইং

কামাল
স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান, ফাইল ফটো

‘চাঁদাবাজ-হাইজাকার-ছিনতাইকারী কারো বন্ধু নয়’

স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খাঁন, এমপি বলেছেন, সকল ধরনের চাঁদাবাজির ক্ষেত্রে সরকার জিরো টলারেন্স অনুসরণের সিদ্ধান্ত গ্রহণ করেছে এবং ঝুঁকি প্রবণ এলাকাগুলো চিহ্নিতকরণের জন্য গোয়েন্দা সংস্থাসমূহ নিরলসভাবে কাজ করে যাচ্ছে।

তিনি বলেন, চাঁদাবাজ, হাইজাকার, ছিনতাইকারী কারো বন্ধু নয় এবং তাদের বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা নিতে আইন-শৃঙ্খলা বাহিনী বদ্ধপরিকর।

আজ (শনিবার) ঢাকা চেম্বার অব কমার্স অ্যান্ড ইন্ডাস্ট্রি (ডিসিসিআই) অডিটোরিয়ামে অনুষ্ঠিত “রমজান মাসে দ্রব্যমূল্য নিয়ন্ত্রণে ব্যবসায়ী ও আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সহায়ক ভূমিকা” শীর্ষক মতবিনিময় সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে মন্ত্রী এ কথা বলেন।

ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশ (ডিএমপি)’এর কমিশনার আসাদুজ্জামান মিয়া মতবিনিময় সভায় বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন। অনুষ্ঠানের স্বাগত বক্তবে রাখেন ঢাকা চেম্বারের ঊর্ধ্বতন সহ-সভাপতি হুমায়ুন রশিদ।

মতবিনিময় সভায় ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ক্রিমিনোলজি বিভাগের অধ্যাপক ও চেয়ারম্যান ড. মোঃ জিয়া রহমান মূল প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন। ডিসিসিআই সভাপতি হোসেন খালেদ এ মতবিনিময় সভায় সভাপতিত্ব করেন। মুক্ত আলোচনায় ব্যবসায়ী নেতৃবৃন্দ বক্তব্য রাখেন।

স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, পবিত্র রমজান মাস উপলক্ষে পুলিশের পক্ষ হতে নানামুখী ব্যবস্থা গ্রহণ করা হয়েছে এবং তিনি আশাবাদ ব্যক্ত করেন বলেন, দেশের সর্বস্তরের মানুষ নিরাপদ ও স্বস্তিতে রমজান মাস অতিবাহিত করতে পারবে।

তিনি পণ্য পরিবহনে যেকোন ধরনের চাঁদাবাজি এবং যানজট নিরসনে পুলিশের পক্ষ হতে সর্বাত্মক সহযোগিতার আশ্বাস প্রদান করেন।

স্বারাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, রাজধানীতে নিরাপত্তা ব্যবস্থা জোরদার করার লক্ষ্যে ইতোমধ্যে বেশকিছু এলাকায় সিসিটিভি ক্যামেরা স্থাপন করা হয়েছে এবং এ থেকে ইতিবাচক ফল প্রাপ্তির ফলে সরকার ভবিষ্যতে অন্যান্য এলাকায়ও সিসিটিভি ক্যামেরা স্থাপনের উদ্যোগ গ্রহণ করবে।

ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশ (ডিএমপি)’এর কমিশনার আসাদুজ্জামান মিয়া বলেন, আসন্ন রজমান মাস কে সামনে রেখে ডিএমপি’র পক্ষ হতে বাস-ট্রাক ও লঞ্চ টার্মিনালগুলোতে “পুলিশ কন্ট্রোল রুম” স্থাপনের পাশাপাশি পুলিশের পক্ষ হতে সার্বক্ষণিকভাবে বিশেষ নিরাপত্তা ব্যবস্থা গ্রহণ করা হয়েছে।

তিনি জানান, শপিং সেন্টার ও মলগুলোতে মহিলা ক্রেতাদের ভিড় বেশি থাকায়, তাদের নিরাপত্তার কথা বিবেচনায় রেখে এসব এলাকায় এবছর অধিক হারে মহিলা পুলিশ নিয়োগ করা হবে।

তিনি ব্যবসায়ীদের আশ্বস্ত করে বলেন, পণ্য পরিবহনে যে কোন জায়গায় চাঁদাবাজি অথবা ছিনতাইয়ের ঘটনা ঘটলে তাৎক্ষণিকভাবে পুলিশের পক্ষ হতে ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

তিনি এ ধরনের ঘটনার মুখোমুখি হলে পুলিশকে তথ্য প্রদানের মাধ্যমে সহযোগিতা করার জন্য ব্যবসায়ীদের প্রতি আহবান করেন।

তিনি আরোও বলেন, ডিএমপি এর পক্ষ হতে রমজান মাসে প্রতি ১০দিনে অন্তর অন্তর করে ৩টি ভাগে বিশেষ নিরাপত্তা প্রদানের উদ্যোগ গ্রহণ করেছে।

তিনি আরোও জানান, ব্যবসায়ীদের সহযোগিতায় পুরানো ঢাকার মৌলভীবাজার, চকবাজার ও লালবাগ এলাকা সিসিটিভি-এর আওতায় নিয়ে আসা হয়েছে এবং যানজট নিরসনের লক্ষ্যে মৌলভীবাজার এলাকয় ওয়ান-ওয়ে ব্যবস্থা চালু করা হয়েছে।

তিনি আরো বলেন, রাজধানীর মতিঝিল, গুলিস্থান এলাকার রাস্তা শতভাগ দখল মুক্ত করার উদ্যোগ গ্রহণ করা হয়েছে এবং শীঘ্রই ফুটপাত দখলমুক্ত করার উদ্যোগ গ্রহণ করা হবে।

ডিসিসিআই সভাপতি হোসেন খালেদ রমজান মাসে ব্যবসায়ী নগদ টাকা বহনের ক্ষেত্রে পুলিশ সহায়তা গ্রহণ এবং টিসিবি কে ই-কমার্স ব্যবস্থার মাধ্যমে পণ্য বিক্রির প্রস্তাব করেন।

তিনি আরোও বলেন, সরকার ২০১৬-১৭ অর্থবছরে রাজস্ব আদায়ের যে লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করেছে, তা অর্জনে ব্যবসায়ী সম্প্রদায় সর্বাত্মকভাবে সহযোগিতা প্রদান করবে, তবে এ ক্ষেত্রে দেশে ব্যবসা-বান্ধব পরিবেশ তৈরি করা একান্ত আবশ্যক।

মুক্ত আলোচনায় মৌলভীবাজার মার্চেন্ট এসোসিয়েশনের সভাপতি মোহাম্মদ এনায়েত উল্ল্যাহ, বাংলাদেশ পাইকারী ভোজ্যতেল আমদানি সমিতির সভাপতি হাজী মোহাম্মদ গোলাম মওলা, বাংলাদেশ চিনি ব্যবসায়ী সমিতির সহ-সভাপতি হাজী আবুল হাসেম, এফবিসিসিআই’র পরিচালক আবু মোতালেব, ঢাকা চেম্বারের সমন্বয়কারী পরিচালক মোঃ আলাউদ্দিন মালিক এবং প্রাক্তন ঊর্ধ্বতন সহ-সভাপতি আলহাজ্ব আব্দুস সালাম অংশ গ্রহণ করেন।