ব্রেকিং নিউজ

সকাল ৬:২২ ঢাকা, মঙ্গলবার  ২৫শে সেপ্টেম্বর ২০১৮ ইং

ঘুষকে বৈধ ঘোষণার অভিযোগে অর্থমন্ত্রীর বহিষ্কার দাবি আলেমদের

আজ গণমাধ্যমে পাঠানো এক বিবৃতিতে ঘুষকে বৈধ ঘোষণা দেওয়ায় অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবুল মুহিতকে মন্ত্রিসভা থেকে বহিষ্কার ও তার দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি দাবি করেছেন দেশের শীর্ষস্থানীয় ওলামায়ে কেরাম।বিবৃতিতে শীর্ষ আলেমগণ বলেন, ৯৫ ভাগ মুসলমানের এদেশে কাদের খুশি করার জন্য বা কিসের লোভে আবুল মাল আবুল মুহিত একজন মুসলিম হওয়ার পরও কাণ্ডজ্ঞানহীনভাবে ইসলাম বিদ্বেষী উক্তি করেছেন তা আমরা বুঝতে পারছি না।

যে ঘুষকে দুনিয়ার কোন কাফের-বেঈমানরাও বৈধ বলার দুঃসাহস দেখাইনি! ইতিপূর্বেও তিনি ইসলামি দল ও ইসলামি ব্যক্তিত্বদের নিয়ে ‘রাবিশ’ উক্তি করে বাতিলের পক্ষ নিয়েছিলেন। সরকার যদি এখনি এ সমস্ত ধর্মদ্রোহী মুরতাদদের শায়েস্তা না করে তাহলে তারা পর্যায়ক্রমে বিভিন্ন ইসলাম বিরোধী কটূক্তি করতেই থাকবে।

তারা সরকারকে হুঁশিয়ার করে বলেন- অবিলম্বে নব্য মুরতাদ আবুল মাল আবুল মুহিতকে মন্ত্রীসভা থেকে বহিষ্কার করে তাকে বিচারের আওতায় এনে দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির ব্যবস্থা করতে হবে। মুরতাদদের কঠোর শাস্তি সম্বলিত বিশেষ আইন প্রনয়ণ করে আব্দুল মুহিত ও লতিফ সিদ্দিকীসহ সকল মুরতাদের দৃষ্টাস্তমূলক শাস্তি নিশ্চিত করতে হবে। যাতে আর কোনো ধর্মদ্রোহী নরপশু, কুলাঙ্গাররা ইসলাম ও ইসলামি বিধি বিধান নিয়ে তামাশা করার দু:সাহস দেখাতে না পারে।

উল্লেখ্য , ঘুষ নেওয়া বা দেওয়াকে অবৈধ মনে করেন না অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আব্দুল মুহিত। মঙ্গলবার বাংলাদেশ ব্যাংকের জাহাঙ্গীর আলম হলে পোশাক শ্রমিকদের গৃহ নির্মাণে সহজ শর্তে ঋণ পেতে বাংলাদেশের পোশাক প্রস্তুতকারী ও রপ্তানিকারকদের সংগঠন বিজিএমইএ ও কেন্দ্রীয় ব্যাংকের মধ্যে সমঝোতা স্মারক সই উপলক্ষে আয়োজিত অনুষ্ঠানে তিনি এমন অভিমত ব্যক্ত করেন। ঘুষের প্রতি ইঙ্গিত করে অর্থমন্ত্রী বলেছেন, ‘যেটা কোনো কাজের গতি আনে, আমি মনে করি সেটা অবৈধ নয়। উন্নত দেশগুলোতে এটাকে বৈধ করে দেওয়া হয়েছে, তবে ভিন্ন নামে। স্পিড মানি নামে।  অর্থাৎ যে টাকা কোনো কাজে গতি সঞ্চার করে।

এই প্রতিবেদন Like & Share করুন।