Sheersha Media

ব্রেকিং নিউজ

রাত ৯:৫৭ ঢাকা, মঙ্গলবার  ১৩ই নভেম্বর ২০১৮ ইং

নৌ পরিবহন মন্ত্রী শাজাহান খান

ঘরে বসেই পাওয়া যাবে নৌযানের সার্ভে সনদ : নৌ-মন্ত্রী

নৌ পরিবহন মন্ত্রী শাজাহান খান বলেছেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ডিজিটাল বাংলাদেশ গড়ার উদ্যোগ সফল হয়েছে। এখন ঘরে বসেই অনলাইনে আবেদনের মাধ্যমে নৌযানের সার্ভে সনদ পাওয়া যাবে। এতে নৌযান মালিকদের ভোগান্তি কমে আসবে।

আজ ঢাকায় বিআইডব্লিউটিএ মিলনায়তনে নৌ পরিবহন অধিদপ্তরের অনলাইন সেবা পূর্ণাঙ্গভাবে চালু করার লক্ষ্যে ‘সফটওয়ার ফর ইনল্যান্ড শিপ ম্যানেজমেন্ট সিস্টেম’ কার্যক্রমের উদ্বোধন অনুষ্ঠানে তিনি এ কথা বলেন।

নৌ-পরিবহন মন্ত্রী বলেন, সরকার নাবিকদের জন্য অনলাইন আইডি প্রবর্তন করেছে। এর ফলে সমুদ্রগামী জাহাজে কর্মরত নাবিকরা পৃথিবীর যে কোন প্রান্তে বসে তাদের সনদসমূহ ভেরিফিকেশন করতে পারছে, ফলশ্রুতিতে বিভিন্ন পোতাশ্রয় ও বিমান বন্দরে বাংলাদেশের নাবিকদের হয়রানি বন্ধ হয়েছে।

শাজাহান খান বলেন, নৌপথ সচল, নৌপথ রক্ষা ও নদীকে কাজে লাগানো এবং নৌপথের নিরাপত্তা ও যাত্রীসেবার মান উন্নয়নের লক্ষ্যে সরকার কাজ করে চলেছে। নৌযান সার্ভে ও পরিদর্শন কাজ তদারকির জন্য নৌপরিবহন অধিদপ্তরকে আধুনিকায়ন করা হয়েছে। সরকারের ঐকান্তিক প্রয়েষ্টায় নৌপরিবহন অধিদপ্তরের জন্য নতুন ১৫৬ টি পদ সৃষ্টি করা হয়েছে জানিয়ে মন্ত্রী আরও বলেন, নৌযান সার্ভের জন্য ২১ টি সার্ভেয়ারের পদ সৃষ্টি করা হয়েছে। আগে সার্ভেয়ারের পদ ছিল মাত্র ৪টি। ১১টি সার্ভেয়ার পদের জন্য পাবলিক সার্ভিস কমিশন ইতিমধ্যে বিজ্ঞপ্তি দিয়েছে। আরো ১০ জন সার্ভেয়ার নিয়োগ করা হবে। পরিদর্শকের পদ ছিল ৮টি। নতুন করে ১২জন পরিদর্শকের নিয়োগের প্রক্রিয়া শেষ পর্যায়ে রয়েছে।

নৌ-পরিবহন মন্ত্রী বলেন, ‘গ্লোবাল মেরিটাইম ডিসট্রেস এন্ড সেইফটি সিস্টেম এন্ড ইন্টিগ্রেটেড মেরিটাইম নেভিগেশন সিস্টেম’ (জিএমডিএসএস এন্ড আইএমএনএস) প্রকল্পের আওতায় কক্সবাজার, সেন্টমার্টিন ও কুতুবদিয়ায় অবস্থিত লাইট হাউজসমূহ আধুুনিকীকরণ এবং নিঝুমদ্বীপ, ঢালচর, দুবলারচর ও কুয়াকাটায় নতুন লাইটহাউজ ও কোস্টাল রেডিও স্টেশন স্থাপন করা হবে। সমুদ্রের যে কোনো স্থানে জাহাজ বিপদগ্রস্ত হলে এবং বাংলাদেশের অভ্যন্তরীণ ও উপকূলীয় এলাকায় সকল ধরণের জাহাজ, নৌকা, ট্রলার ইত্যাদি উদ্ধার কার্যক্রমে সহায়তা প্রদান করা যাবে।

মন্ত্রণালয় থেকে জানানো হয়েছে, অনলাইন সেবা কার্যক্রম চালু হলে একজন নৌযান মালিক তার নৌযান সার্ভের লক্ষ্যে নৌপরিবহণ অধিদপ্তরের ওয়েবসাইটwww.dos.gov.bd-এ গিয়ে ‘অনলাইনে আবেদন’ অংশে ক্লিক করে নিবন্ধনভুক্ত হবেন। এরপর জাহাজ মালিক অনলাইন আবেদন ফরমটি পূরণ করে তার পছন্দ মোতাবেক সার্ভেয়ারের নিকট দাখিল করবেন এবং পূরণকৃত আবেদনের একটি কপি প্রিন্ট করে তাতে স্বাক্ষর দিয়ে আনুসংগিক কাগজপত্রসহ সার্ভে অফিসে জমা দিবেন। নৌযানটি সরেজমিনে সার্ভের পর সংশ্লিষ্ট সার্ভেয়ার ওই আবেদনের ‘সার্ভেয়ারের জন্য প্রযোজ্য’ অংশটি পূরণ করে প্রধান কার্যালয়ে দাখিল করবেন। প্রধান কার্যালয়ে আবেদনটি পাওয়ার পর প্রথমে ‘অপারেটর’ অনলাইন আবেদনটি যথাযথ আছে কিনা তা যাচাই বাছাই করে সঠিক পেলে দ্বিতীয় পর্যায়ে ‘চীফ ইন্সপেক্টর’ এর নিকট দাখিল করবেন। চীফ ইন্সপেক্টর আবেদনটি পরীক্ষা করে যথাযথ পেলে তৃতীয় পর্যায়ে ‘চীফ ইঞ্জিনিয়ার এন্ড শিপ সার্ভেয়ার’ বরাবর দাখিল করবেন। চীফ ইঞ্জিনিয়ার এন্ড শিপ সার্ভেয়ার আবেদনটি যথাযথ পেলে ‘মহাপরিচালক’ বরাবর দাখিল করবেন। মহাপরিচালক স্বয়ংক্রিয়ভাবে তৈরি আলোচ্য নৌযানটির সার্ভে সনদের নির্ধারিত স্থানে অনুমোদন প্রদান এবং সাবমিট করলে সার্ভে সনদটি স্বাক্ষরসহ আবেদনকারীর নিকট ফেরৎ যাবে এবং তিনি সাথে সাথে মোবাইল মেসেজের মাধ্যমে বিষয়টি জানতে পারবেন। সবশেষে আবেদনকারি ঘরে বসে তার নৌযানের সার্ভে সনদটি প্রিন্ট করে প্রয়োজনীয় কার্যাদি সম্পন্ন করতে পারবেন।

নৌপরিবহন অধিদপ্তরের মহাপরিচালক কমডোর সৈয়দ আরিফুল ইসলামের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে অন্যান্যের মধ্যে বক্তব্য রাখেন নৌপরিবহন মন্ত্রণালয়ের সচিব মোঃ আবদুস সামাদ, বাংলাদেশ অভ্যন্তরীণ নৌ-চলাচল (যাত্রী পরিবহন) কর্তৃপক্ষের সহ-সভাপতি সাইদুর রহমান রিন্টু, বাংলাদেশ কার্গো ভেসেল ওনার্স এসোসিয়েশনের সভাপতি নুরুল হক এবং নৌপরিবহন অধিদপ্তরের চীফ ইঞ্জিনিয়ার এন্ড শিপ সার্ভেয়ার মো. মঞ্জুরুল কবীর।