ব্রেকিং নিউজ

দুপুর ২:১৯ ঢাকা, বৃহস্পতিবার  ২০শে সেপ্টেম্বর ২০১৮ ইং

‘গ্রেনেড হামলায় খালেদা জিয়া ও বিএনপির বিবেককে নাড়া দেয়নি’- প্রধানমন্ত্রী

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ২১ আগস্টের বর্বরোচিত গ্রেনেড হামলার জন্য পুনরায় বিএনপি-জামায়াত জোটকে অভিযুক্ত করে বলছেন, এই ঘটনা বিশ্ব বিবেককে নাড়া দিলেও বিএনপি নেত্রী বা তাদের জোটের বিবেককে নাড়া দেয়নি।

তিনি বলেন, ‘আমার প্রশ্ন এই যে- এতবড় একটা ঘটনা। যেখানে বিশ্ব বিবেককে নাড়া দিয়েছে। কিন্তু বিএনপি নেত্রী বা তাদের জোট তাদের বিবেককে নাড়া দেয়নি। উল্টা তারা দোষারোপ শুরু করলো এটা আওয়ামী লীগ নিজে নিজেই করেছে।’

প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘আমরা বিরোধীদলে থাকলেও জাতীয় সংসদে এ বিষয়ে কোন কথা তুলতে পারিনি। এনিয়ে সংসদে কোন আলোচনাই হয়নি। একটি শোক প্রস্তাবও আনা হয়নি। .. এ থেকেই বোঝা যায় এই হামলা কারা ঘটিয়েছে।’

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা আজ বিকেলে ২১ আগস্ট বঙ্গবন্ধু এভেনিউ’তে আওয়ামী লীগের সমাবেশে গ্রেনেড হামলার স্মরণে আয়োজিত আলোচনা সভায় এ কথা বলেন।

২০০৪ সালের এদিনে আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় কার্যালয়ের সামনে সন্ত্রাসবিরোধী একটি সমাবেশ শেষে র‌্যালি শুরু হবার পূর্বে বর্বরোচিত গ্রেনেড হামলায় মহিলা আওয়ামী লীগ সভাপতি আইভী রহমান এবং আওয়ামী লীগের ২২ নেতাকর্মীসহ ২৪ জন নিহত এবং অন্তত ৫ শতাধিক আহত হয়।

এই হামলায় অল্পের জন্য প্রাণে রক্ষা পাওয়া তৎকালীন বিরোধীদলের নেতা শেখ হাসিনা ’গ্রেনেড হামলা আওয়ামী লীগ নিজেরাই ঘটিয়েছে’ বলে সে সময়ে বিএনপি নেত্রী এবং তাদের নেতৃবৃন্দের কিছু বিদ্রুপাত্মক মন্তব্য তুলে ধরার পাশাপাশি বেগম জিয়ার পুত্র তারেক রহমানের ক্যান্টনমেন্টের বাসা ছেড়ে ধানমন্ডি ৫ নম্বরে শ্বশুড়ের বাসায় ৮-১০ মাস পড়ে থেকে ষড়যন্ত্রে লিপ্ত থাকার কথা উল্লেখ করেন।

pm496

শেখ হাসিনা বলেন, ‘এর কয়েক দিন আগে বেগম খালেদা জিয়া প্রকাশ্য জনসভায় বলেছেন প্রধানমন্ত্রী তো দূরের কথা, শেখ হাসিনা বিরোধীদলের নেত্রীও কোনদিন হতে পারবে না। তারপরে এই হামলা দেখলে কি দাঁড়ায়। আমাদের ভুললে চলবেনা এরাই জাতির পিতার হত্যাকারীদের পুরস্কৃত করেছে।’

প্রধানমন্ত্রী দিবসটির স্মরণে দলীয় কার্যালের সামনে নির্মিত বেদিতে পুষ্পার্ঘ্য অর্পণ করে সেদিনের শহীদদের স্মৃতির প্রতি শ্রদ্ধা জানান।
পরে আওয়ামী লীগ সভাপতি হিসেবে দলের নেতা-কর্মীদের নিয়ে তিনি আরেকটি শ্রদ্ধার্ঘ্য অর্পণ করেন।

মন্ত্রী পরিষদ সদস্যবৃন্দ, প্রধানমন্ত্রীর উপদেষ্টাবৃন্দ, শীর্ষস্থানীয় আওয়ামী লীগ নেতৃবৃন্দ, ১৪ দলীয় নেতৃবৃন্দ এবং ২১ আগস্ট নিহতদের স্বজন এবং সেদিনের আহতরা এ সময় উপস্থিত ছিলেন।

প্রধানমন্ত্রী নিহতদের স্বজনদের সঙ্গে কথা বলেন এবং আহতদের খোঁজ-খবর করেন।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘এই ঘটনার পর তাঁরা সংসদে বসে এ বিষয়ে আলোচনা করতে চাইলেও একটিবার আলোচনার সুযোগ দেয়া হয়নি। একটি শোক প্রস্তাবও আনা হয়নি। উপরন্তু বিএনপি নেত্রীসহ তারা বলল আমাকে (শেখ হাসিনা) আবার কে মারবে। আমরা নিজেরাই নাকি এটা ঘটিয়েছি।’

pm499

ভ্যানিটি ব্যাগে করে গ্রেনেড নিয়ে গিয়ে সমাবেশে নিজেরই মেরেছি এমন কথাও তাদের নেত্রী এবং দলের নেতারা বলেছে উল্লেখ করে প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘এটাকে তারা হাস্যস্পদ একটি বিষয়ে পরিণত করতে চাইল। অন্যদিকে এই হামলাস্থলের আলামত ধ্বংসের জন্য সবরকমের প্রচেষ্টা শুরু করল। একটি গ্রেনেড যেটি অবিস্ফোরিত ছিল সে সবসহ সকল আলামত সিটি কর্পোারেশন থেকে পানির গাড়ি এনে ধুয়ে ফেলা শুরু করল।’

তিনি বলেন, এতবড় একটা ঘটনা ঘটার পর সরকারের পক্ষ থেকে কোন আলামত সংগ্রহ করা হবে না, সংরক্ষণ করা হবে না। সেটা কিভাবে সম্ভব। বরং আমরা দলীয় উদ্যোগে আলামত সংরক্ষণের চেষ্টা করেছি এবং তাদের ওপরও বারবার পুলিশি হামলা হয়েছে। বিএনপি সারা বাংলাদেশে রটালো এটা নাকি আমরাই হামলা করেছি।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, বিএনপি সরকার তারা এই ঘটনার কোন তদন্ত করল না, কোন আলামতও সংগ্রহ করল না, জাতীয় এবং আন্তর্জাতিক চাপের কাছে বাধ্য হয়ে কোথাকার কোন গ্রামের এক ছেলে জজমিয়া তাকে নিয়ে এসে তাকে আসামী সাজিয়ে গ্রেনেড হামলা মামলার নাটক তারা করলো।

শেখ হাসিনা বলেন, ‘আমার প্রশ্ন এইযে এতবড় একটা ঘটনা। যেখানে বিশ্ব বিবেককে নাড়া দিয়েছে। কিন্তুু বিএনপি নেত্রী বা তাদের জোট তাদের বিবেককে নাড়া দেয়নি। উল্টা তারা দোষারোপ শুরু করলো এটা আওয়ামী লীগ নিজে নিজেই করেছে।’

শেখ হাসনিা পুনরায় প্রশ্ন তোলেন-আওয়ামী লীগ কেন এটা করবে, আমরা কি সুইসাইড করতে এসেছিলাম সেখানে। আমরা সেদিন সন্ত্রাসের বিরুদ্ধে র‌্যালি করতে যেয়ে নিজেরা সন্ত্রাসের শিকার হলাম।

২১ আগস্ট গ্রেনেড হামলার দিন পুলিশের তৎপরতায় বিস্ময় প্রকাশ করে প্রধানমন্ত্রী বলেন, এরআগে কোথাও মিটিং করতে চাইলে আমাদের মিটিং করতে দেয়া হত না। হাজার হাজার পুলিশ দিয়ে মিটিংয়ের জায়গা ঘিরে রাখা হত। কিন্তু আশ্চর্যের বিষয় সেদিন কোন পুলিশের তৎপরতাই ছিল না। সেদিন পুলিশের কোন নিরাপত্তা ব্যবস্থাই ছিল না। পুলিশ ছিল নীরব। এমনকি আমাদের নিজস্ব ভলান্টিয়ারদের পর্যন্ত বিএনপি সরকার আশপাশের ভবনের ছাদে উঠে নিরাপত্তার দায়িত্ব পালন করতে দাঁড়াতে দেয় নেই। নিজস্ব কোন নিরাপত্তাবলয় সৃষ্টি করতেও সেদিন দেয়নি। তিনি প্রশ্ন তোলেন- এটি কেন দেয়নি।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, ভাবতে অবাক লাগে যে এতবড় একট ঘটনা ঘটার পরেও সেখানে কোন পুলিশি তৎপরতা বা আহতদের উদ্ধারের কোন তৎপরতা ছিলনা। উপরন্তু যেসব নেতা-কর্মীরা আহতদের উদ্ধার করে হাসপাতালে পাঠাচ্ছিল পুলিশ তাদের ওপর লাঠিচার্জ করে এবং উপুর্যপুরি টিয়ার সেল নিক্ষেপ করে।

তিনি বলেন, আমি জানিনা পৃথিবীতে কেউ এরকম ঘটনা শুনেছে কি না।

শেখ হাসিনা বলেন, শুধু লাঠিচার্জ করে ও টিয়ারসেল মেরেই তারা ক্ষান্ত হয়নি এখানে কোন একটি রিক্সা, ভ্যান কোনকিছুই তারা আসতে দেয়নি।

তিনি বলেন, যারা হামলাকারি তারা যেন নিরাপদে এই জায়গা থেকে চলে যেতে পারে সে সুযোগ সৃষ্টির জন্যই তখন বিএনপি সরকারের নির্দেশে পুলিশ একান্ড ঘটিয়েছে।

তিনি সেদিনের কথা স্মরণ করে বলেন, আমি যে মুহুর্তে আমার বক্তব্য কেবল শেষ করে জয়বাংলা বলে হাতের মাইকটা টেবিলে রেখেছি এরমধ্যেই সে গ্রেনেড হামলা শুরু হল। একটার পর এক গ্রেনেড মারা হচ্ছে। আমরা তখন ট্রাকে দাঁড়িয়ে ছিলাম, ঐ ট্রাকেই বক্তৃতা দিয়ে আমরা তখন র‌্যালি নিয়ে রওয়ানা হবার জন্য প্রস্তুত হচ্ছিলাম। প্রথম তিনটা গ্রেনেড মারার পরে কয়েক সেকেন্ড সময় যায়, এরপর আবার একটার পর একটা গ্রেনেড। প্রকাশ্য দিবালোকে এই ভাবে গ্রেনেড ছুড়ে মানুষ হত্যা, তখন আমি জাতীয় সংসদের বিরোধী দলের নেতা, এ ট্রাকে আমাদের সকল নেতা-কর্মীরা ছিলেন। আমাদের হাজার হাজার নেতা-কর্মীরা তাঁরা ঐ র‌্যালিতে সমবেত। একটার পর একটা গ্রেনেড ছোঁড়া হচ্ছে।

তিনি বলেন, জানি না আমার কি ভাগ্য গ্রেনেড ঐ ট্যাকের ওপরই পড়ার কথা কিন্তুু ডালায় লেগে পাশে পড়ে যায়। আমাকে সাবেক মেয়র হানিফসহ আমাদের যে নেতা-কর্মীরা ছিলেন তাঁরা আমাকে ঘিরে ধরে। আমি টের পাচ্ছিলাম সমস্ত স্প্রিন্টারগুলি হানিফ ভাইয়ের মাথায় এসে পড়ছে আর তাঁর শরীরের রক্ত এসে পড়ছে আমার গায়ে। ১৩টা গ্রেনেড তারা ছুঁড়েছিল। তারমধ্যে ১২টি গ্রেনেডই বিস্ফোরিত হয়।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, ঐ অবস্থা যখন চলে মনে হয়েছিল কেয়ামত এসে গেছে। আমার চোখের চশমা ছিটকে যায়, দূরে কিছু দেখা যাচ্ছিল না ঐ অবস্থা কিছুটা কাটলে শুরু হল গুলি। আমার সঙ্গেও নিরাপত্তাকর্মীরা যারা ছিল তারা পাল্টা গুলি ছোঁড়ার পরই সেটা থামলো। আমার গায়ে যে পরিমাণ রক্ত লেগেছিল, অনেকে ভেবেছিল আমি আহত। কিন্তু আল্লাহরই রহমত আমার গায়ে কোন স্প্রিন্টার লাগেনি কিন্তু আমাকে আগলে যারা ছিল হানিফ ভাইয়ের সারা মাথা, অন্যদের সারা শরীর তখন স্প্রিন্টারের রক্ত ঝড়ছিল।
সে অবস্থায় গাড়িতে উঠতে গেলে পুনরায় গুলি করলে বুলেটপ্রুফ গাড়ির জন্য গুলি লাগেনি কিন্তু আমার দেহরক্ষি আর্মির সাবেক সিপাই মাহবুব সেই গুলিতে মারা যায়।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, সেই গাড়ি নিয়ে যখন বের হই চারিদিকে শুধু লাশ পড়ে আছে। আমার দূরে দেখার ক্ষেত্রে সমস্যা থাকায় আরও আমি কিছু দেখতেই পাচ্ছিলাম না। যাবার সময় মাইক নিয়ে আামি রাস্তায় বলে যাই এখানে হামলা হয়েছে। রাস্তায় যেতে যেতে সকলের সহযোগিতা চেয়েছি। গাড়িটি যখন ধানমন্ডি ৫ নম্বরের পৌঁছল গাড়িটিও তখন বসে গেল। কারণ স্প্রিন্টারে গাড়িটিও ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছিল ।

প্রধানমস্ত্রী বলেন, আমাদের প্রেসিডিয়াম সদস্য জিল্লুর রহমান সাহেবও ঐট্রাকে ছিলেন কিন্তু বুঝতে পারেননি যে তাঁর প্রাণপিয় সহধর্মিনী আর নেই। আইভি রহমানসহ আওয়ামী লীগের ২২ জন নিহত, ২ জন অজ্ঞাতনামা নিহত এবং অন্তত হাজার খানেক নেতা-কর্মী আহত হয়। যাদের অনেকে এখনও শরীরে স্প্রিন্টারের দুঃসহ যন্ত্রণা নিয়ে বেঁচে আছেন। সারা জীবনের মত পঙ্গুত্ববরণ করেছেন।