Sheersha Media

ব্রেকিং নিউজ

ভোর ৫:১৭ ঢাকা, সোমবার  ১৯শে নভেম্বর ২০১৮ ইং

গুলিবিদ্ধ সাবেক মন্ত্রী রিয়াজ রহমান

বিএনপি চেয়ারপরসন খালেদা জিয়ার উপদেষ্টা ও সাবেক পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী রিয়াজ রহমানকে গুলি করেছে দুর্বৃত্তরা। পরে তার ব্যক্তিগত গাড়িতে আগুনও দেয়া হয়। ঘটনার পরপরই গুলিবিদ্ধ রিয়াজ রহমানকে উদ্ধার করে ইউনাইটেড হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। তার অবস্থা আশঙ্কাজনক বলে জানা গেছে। কর্তব্যরত চিকিৎসকরা জানিয়েছেন, রিয়াজ রহমানের শরীরে চারটি গুলিবিদ্ধ হয়েছে। এর মধ্যে দুটি তার পিঠে ও দুটি তার বাম পায়ে লেগেছে। গতকাল রাত সাড়ে পৌনে ৯টার দিকে রাজধানীর গুলশান-২ নম্বর চত্বরের ডরিন টাওয়ারের পাশে এ ঘটনা ঘটে। গতকাল রাতে রিয়াজ রহমান বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়ার সঙ্গে সাক্ষাৎ করতে তার কার্যালয়ে যান। রাত সাড়ে ৮টায় চেয়ারপারসনের কার্যালয় থেকে বেরিয়ে তিনি নিজ বাসায় ফিরছিলেন। গুলশান-২ নম্বর চত্বর থেকে বনানীর দিকে যাওয়ার রাস্তায় ডরিন টাওয়ারের পাশে তার প্রাইভেট কারটি (ঢাকা মেট্রো গ-১৯-৩৬৭৮) যাওয়া মাত্রই তিনটি মোটরসাইকেলযোগে ছয় যুবক তার পথরোধ করে। এসময় দু’যুবক মোটরসাইকেল থেকে নেমে রিয়াজ রহমানের গাড়ির পেছনের দিকের গ্লাস ভেঙে ভেতরে এলোপাতাড়ি গুলি করতে থাকে। রিয়াজ রহমান দ্রুত গাড়ি থেকে নামার সময় তার পিঠের নিচের দিকে দুটি ও বাম পায়ে দুটি গুলিবিদ্ধ হয়। গুলিবিদ্ধ রিয়াজ রহমান গাড়ি থেকে নেমে আসলে দুর্বৃত্তরা তার গাড়িতে পেট্রল ঢেলে আগুন ধরিয়ে দেয়। দুর্বৃত্তরা পালিয়ে গেলে পথচারী ও পুলিশ তাকে উদ্ধার করে দ্রুত ইউনাইটেড হাসপাতালে নিয়ে যান। টিটু নামে প্রত্যক্ষদর্শী এক ব্যক্তি জানান, জ্বালিয়ে দেয়া গাড়িটির পেছনে পেছনে মোটরসাইকেল তিনটি যাচ্ছিল। প্রতিটি মোটরসাইকেলে দু’জন করে যুবক বসা ছিল। গাড়িটি গুলশান দুই নম্বর গোল চত্বর পার হয়ে বনানীর দিকে একটু আগানোর সঙ্গে সঙ্গে মোটরসাইকেল আরোহীরা গাড়িটির পথরোধ করে গুলি ও আগুন লাগিয়ে দেয়। অন্য একজন প্রত্যক্ষদর্শী জানান, দুর্বৃত্তরা গাড়ি আটকে হাতুড়ি দিয়ে গাড়ির পিছনের কাচ ভাঙে। এরপর পরপর কয়েকটি গুলি করে। গুলিবিদ্ধ হওয়ার পর রিয়াজ রহমান হামাগুঁড়ি দিয়ে গাড়ি থেকে বের হয়ে পাশের সেবা হাউজের দিকে যান। সেখানে উপস্থিত ব্যবসায়ীরা তাকে উদ্ধার করে হাসপাতালে নিয়ে যান।
ইউনাইটেড হাসপাতালের কর্তব্যরত চিকিৎসক জানান, রিয়াজ রহমানের পায়ে দুটি এবং কোমরের নিচে দুটি গুলি লেগেছে। এদিকে এ ঘটনার তীব্র নিন্দা জানিয়েছেন বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া। এদিকে কূটনৈতিক পাড়া বলে পরিচিত গুলশান ও বনানী এলাকায় একের পর এক গুলি ও বোমা বিস্ফোরণের ঘটনায় ওই এলাকায় আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়েছে।