ব্রেকিং নিউজ

রাত ১২:০৩ ঢাকা, বুধবার  ১৯শে সেপ্টেম্বর ২০১৮ ইং

ফেসবুক

গুজব ছড়ানো অ্যাকাউন্টগুলো ডিলিট করেছে ফেসবুক-টুইটার

গুজব ও ভুয়া তথ্য ছড়ানোর অভিযোগে অসংখ্য অ্যাকাউন্ট মুছে ফেলেছে ফেসবুক ও টুইটার৷ বেশিরভাগ অ্যাকাউন্টই রাশিয়া ও ইরানের৷ অভিযোগ রয়েছে, যুক্তরাষ্ট্রের অন্তবর্তীকালীন নির্বাচনে প্রভাব ফেলতে এরা কাজ করছিল৷

মঙ্গলবার ফেসবুক ঘোষণা দিয়েছে যে, এটি সাড়ে ছয়শ’ পেজ, গ্রুপ ও অ্যাকাউন্ট মুছে দিয়েছে৷ কারণ হিসেবে বলা হয়েছে যে, এদের আচরণ বিশ্বাসযোগ্য নয়৷ তাদের দেয়া তথ্যমতে, এসব অ্যাকাউন্ট বা পেজের অনেকগুলোর সঙ্গেই রাশিয়ার সামরিক গোয়েন্দাদের যোগসাজশ আছে৷ এছাড়া ইরান থেকেও বেশ কিছু অ্যাকাউন্ট পরিচালিত হচ্ছে যাদের আচরণ সন্দেহজনক৷

তবে রাশিয়া ও ইরানের অ্যাকাউন্টগুলো যোগসাজশে কিছু করছে কি তা নিশ্চিত করতে পারেনি ফেসবুক কর্তৃপক্ষ৷ তবে তাদের কৌশল একইরকম বলে জানিয়েছেন স্বয়ং ফেসবুক প্রধান নির্বাহী মার্ক সাকারবার্গ৷

‘‘এই তদন্তে আমরা যুক্তরাষ্ট্রের আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীর সঙ্গে ঘনিষ্ঠভাবে কাজ করছি,” বলেন তিনি৷

এদিকে একইদিন টুইটারও ঘোষণা দিয়েছে, তারা ২৮৪টি অ্যাকাউন্ট বাতিল করেছে৷ এগুলোর বেশিরভাগই ইরান থেকে পরিচালিত হচ্ছিল বলে জানায় তারা৷ তারা একযোগে তথ্যবিভ্রাট করছে বলে অভিযোগ তাদের৷

সাইবার নিরাপত্তা প্রতিষ্ঠান ফায়ারআই ফেসবুক-টুইটারকে তাদের প্ল্যাটফর্মে ইরানের তৎপরতা সম্পর্কে হুঁশিয়ার করে দিয়েছে৷

‘‘তাদের তৎপরতা শুধু যে আসছে যুক্তরাষ্ট্রের অন্তবর্তীকালীন নির্বাচনেই প্রভাব তৈরির জন্য করা হয়েছে, তা নয়, বরং তা মার্কিন জনগণ ও রাজনীতিকেও ছাড়িয়ে আরো গভীরে গিয়েছে৷” বিবৃতি দিয়েছে প্রতিষ্ঠানটি৷নিজেদর রাজনৈতিক অভিসন্ধি বাস্তবায়নের জন্য বিভিন্ন ভুয়া সাইট ও সামাজিক গণমাধ্যম ব্যবহার করে ইরান এসব ভুয়া তথ্য যুক্তরাষ্ট্র ছাড়াও যুক্তরাজ্য, মধ্যপ্রাচ্য ও ল্যাটিন অ্যামেরিকার জনগণকে উদ্দেশ্য করে প্রচার করে বলে দাবি করেছে ফায়ারআই৷

ফেসবুকের তথ্যমতে, যেসব গ্রুপকে তারা চিহ্নিত করেছে তার একটি ‘লিবার্টি ফ্রন্ট প্রেস’৷ এর সাথে সম্পৃক্ত ফেসবুক ও ইনস্টাগ্রামে প্রায় ১ লাখ ৫৫ হাজার অ্যাকাউন্ট আছে৷ এদের ওয়েবসাইট রেজিস্ট্রেশন, আইপি অ্যাড্রেস ও অ্যাডমিনিস্ট্রেটর অ্যাকাউন্টগুলো নিরীক্ষা করে দেখা গেছে, এদের সঙ্গে ইরানের রাষ্ট্রীয় গণমাধ্যমের যোগাযোগ আছে৷

ফায়ারআইয়ের মতে, ইরান থেকে ‘সৌদিবিরোধী, ইসরায়েল বিরোধী ও ফিলিস্তিনের পক্ষে’ প্রপাগান্ডা ছড়ানো হয়৷ফেসবুক ও টুইটার তাদের প্ল্যাটফর্মগুলোতে ভুয়া তথ্য ছড়ানো বন্ধে তৎপরতা ব্যাপক বাড়িয়েছে৷ বিশেষ করে যুক্তরাষ্ট্রের সংসদ সদস্যদের একাংশের অন্তবর্তীকালীন নির্বাচনকে সামনে রেখে এই তৎপরতা অনেক বেড়েছে৷ –ডি ডব্লিও, জেডএ/এসিবি (এপি, রয়টার্স)