ব্রেকিং নিউজ

ভোর ৫:০৭ ঢাকা, শনিবার  ১৭ই নভেম্বর ২০১৮ ইং

ডোনাল্ড ট্রাম্প
যুক্তরাষ্ট্রের রিপাবলিকান দল থেকে প্রেসিডেন্ট পদে প্রার্থী ডোনাল্ড ট্রাম্প

গর্ভপাত করানো নারীদের শাস্তি দেয়া উচিত বলে সমালোচনার মুখে ট্রাম্প

গর্ভপাত করালে নারীদের শাস্তি দেয়া উচিত, এমন মন্তব্য করে ব্যপক সমালোচনার মুখে পড়েছেন যুক্তরাষ্ট্রে প্রেসিডেন্ট পদে মনোনয়ন প্রত্যাশী ডোনাল্ড ট্রাম্প।

একটি টেলিভিশনে দেয়া সাক্ষাৎকারে ঐ মন্তব্য করার সাথে সাথে এমনকি রিপাবলিকান দলের ভেতরেই বিরূপ প্রতিক্রিয়ার প্রেক্ষাপটে কয়েক ঘণ্টা পরেই নিজের বক্তব্য থেকে সরে আসেন মি. ট্রাম্প।

তার বদলে এখন মি. ট্রাম্প বলছেন, গর্ভপাত করাতে সাহায্য করেন যেসব চিকিৎসক তাদের শাস্তি দেয়া উচিত।

এক টেলিভিশন সাক্ষাৎকারে প্রশ্নোত্তরের এক পর্যায়ে অনুষ্ঠানের উপস্থাপক মি. ট্রাম্পকে জিজ্ঞেস করেন, গর্ভপাতের জন্য শাস্তি দেয়ার বিষয়টি কি আপনি বিশ্বাস করেন?

জবাবে মি. ট্রাম্প বলেন, এজন্য অবশ্যই নারীদের শাস্তি দেয়া উচিত।

মি. ট্রাম্পের ঐ মন্তব্যের সমালোচনা করেছেন রিপাবলিকান দলের আরেক গভর্নর জন কেইসেক।

তিনি বলেছেন, ধর্ষণ, পরিবারের সদস্যদের দ্বারা নিপীড়নের শিকার, বা অন্য কোন অপরাধে নারী-পুরুষ যে কারো শাস্তি হতে পারে।

কিন্তু গর্ভপাতের জন্য কোন নারীকে শাস্তি দেবার কথা ভাবাও যায়না।

১৯৭৩ সাল থেকে যুক্তরাষ্ট্রে গর্ভপাত বৈধ।

তবে, মি. ট্রাম্প যখন ডেমোক্রেট দলে ছিলেন তখন নারীদের গর্ভপাতের অধিকারের পক্ষে ছিলেন।

প্রেসিডেন্ট পদে মনোনয়নের জন্য প্রচারনার শুরু থেকেই বিতর্কিত মন্তব্যের জন্য খ্যাতি পান ডোনাল্ড ট্রাম্প। বিবিসি