ব্রেকিং নিউজ

বিকাল ৪:১৫ ঢাকা, সোমবার  ২৪শে সেপ্টেম্বর ২০১৮ ইং

ফাইল ফটো

গণমাধ্যমকে সেন্সরশিপ আরোপ করা হয়নি

গণমাধ্যমের ওপর নতুন করে সেন্সরশিপ আরোপ করা হচ্ছে খালেদা জিয়ার এমন বক্তব্য প্রসঙ্গে,  বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মাহবুব উল আলম হানিফ বলেছেন, এটা কোনো সেন্সরশিপ নয়। পৃথিবীর কোনো সভ্য দেশে নেতিবাচক খবর প্রচার করা হয় না। এটা চাপিয়ে দেয়া নয়, এটা সমাজের প্রতি নৈতিক দায়িত্ববোধ থেকে করা। নেতিবাচক সংবাদ সম্প্রচার করলে সন্ত্রাসীরা উৎসাহিত বোধ করবে। সন্ত্রাসীরা যাতে উৎসাহিত না হয় সেজন্য নেতিবাচক খবর প্রচার করবে না বলে কথা দিয়েছে কর্তৃপক্ষ।

শুক্রবার বেলা সাড়ে ১১টায় নিজ বাসভবনে দলীয় কর্মীদের সাথে মতবিনিময় শেষে সাংবাদিকদের তিনি এসব কথা বলেন।

হানিফ বলেন, এটার মধ্যে সেন্সরশিপ হলো কিভাবে, কোনো সেন্সরশিপ করা হয়নি। বেগম খালেদা জিয়ার এসব (সেন্সরশীপ) ব্যাপারে জ্ঞানের ঘাটতি আছে। উনাকে কেউ মিথ্যা বুঝিয়ে এসব কথাবার্তা বলাচ্ছেন। নেতিবাচক সংবাদ প্রচার কোনো সাংবাদিক বা সংবাদমাধ্যমের দায়িত্বের মধ্যে পড়ে না।

তারেক জিয়াকে এ অবস্থায় যুক্তরাজ্য দেশে ফেরত পাঠাবেনা এ নিয়ে হানিফ বলেন, বাংলাদেশের কোনো নাগরিক যদি অপরাধ করে বিদেশে পালিয়ে থাকে, সে ফেরারি আসামি হিসেবে বিবেচিত হবে। তাকে ফিরিয়ে আনার দায়িত্ব আছে। এব্যাপারে আন্তর্জাতিক মহল বা বিভিন্ন দেশ সরকারকে সাহায্য করবে এটাই জাতির আশা।

হরতাল অবরোধ নিরসনে বিএনপির সাথে কোনো আলোচনা হবে কিনা এমন প্রশ্নের উত্তরে হানিফ বলেন, যারা প্রেট্রল মেরে, বাসে আগুন দিয়ে,  মানুষ হত্যা করছে এরা সন্ত্রাসী। এই সন্ত্রাসী কর্মকা- বন্ধ করার জন্য কোনো সন্ত্রাসীর সাথে আলোচনার সুযোগ নেই বা যোক্তিকতা নেই। নাশকতা বন্ধ করে সাধারণ মানুষের উদ্বেগ ও উৎকন্ঠা দূর করলেই, সরকার দেশের রাজনৈতিক দলগুলোর সাথে তাদের দাবি-দাওয়া নিয়ে আলোচনা করার জন্য চিন্তা করতে পারে। মানুষকে জিম্মি করে দাবি আদায় করা বরদাশত করা হবে না বলে জানান হানিফ। তিনি বলেন, এটা ভবিষতের জন্য খারাপ দৃষ্টান্ত হয়ে থাকবে।

এসময় জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আজগর আলী, কেন্দ্রীয় সহ সম্পাদক শেখ হাসান মেহেদী, কুষ্টিয়া সদর অফিসার ইনচার্জ (ওসি) আব্দুল খালেকসহ দলীয় নেতা ও প্রশাসনের কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।