ব্রেকিং নিউজ

দুপুর ২:৫১ ঢাকা, মঙ্গলবার  ২৫শে সেপ্টেম্বর ২০১৮ ইং

গণঅভ্যুত্থানের মাধ্যমে সরকারকে বিদায় করতে দোয়া চেয়েছেন খালেদা জিয়া

গণঅভ্যুত্থানের মাধ্যমে জালেম, অত্যাচারী ও দুর্নীতিবাজ সরকারকে বিদায় করতে সবার দোয়া চেয়েছেন বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়া। রোববার ইস্কাটনের লেডিস ক্লাবে বিএনপিপন্থি পেশাজীবী সংগঠন ডক্টর’স অ্যাসোসিয়েশন অব বাংলাদেশ (ড্যাব) আয়োজিত ইফতারে অংশ নিয়ে তিনি এ দোয়া চান।
সাধারণত ইফতারের আগে খালেদা জিয়া বক্তব্য দেন। তবে ড্যাবের ইফতারে আসতে বিলম্ব হওয়ায় ইফতারের পরে সংক্ষিপ্ত বক্তব্য দেন সাবেক এই প্রধানমন্ত্রী। এতে তিনি সরকারের নানা কর্মকাণ্ডের সমালোচনার পাশাপাশি আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সাম্প্রতিক কর্মকাণ্ডেরও কড়া সমালোচনা করেন। কথা বলেন বিচার বিভাগের স্বাধীনতা নিয়েও।
ড্যাবের সভাপতি ডা. একেএম আজিজুল হকের সভাপতিত্বে ইফতার মাহফিলে উপস্থিত ছিলেন সাবেক রাষ্ট্রপতি ও বিকল্পধারা বাংলাদেশের প্রেসিডেন্ট একিউএম বদরুদ্দোজা চৌধুরী, তত্ত্বাবধায়ক সরকারের সাবেক উপদেষ্টা অধ্যাপক ডা. আবদুল মাজেদ, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক ভিসি ড. এমাজউদ্দিন আহমেদ, গণস্বাস্থ্যের প্রতিষ্ঠাতা ডা. জাফরুল্লাহ চৌধুরী, বাংলাদেশ সম্মিলিত পেশাজীবী পরিষদের সাবেক আহ্বান রুহুল আমিন গাজী, বিএফইউজের সভাপতি শওকত মাহমুদ প্রমুখ। এছাড়াও বিএনপি ও ২০ দলের শীর্ষ নেতারা এবং দেশবরেণ্য চিকিৎসকরা উপস্থিত ছিলেন।
ইফতারে অংশ নেয়া বিএনপিপন্থি পেশাজীবী নেতাকর্মীদের উদ্দেশে খালেদা জিয়া বলেন, রমজানে সবাই দোয়া করবেন যাতে জালেমদের দ্রুত বিদায় হয়। জনগণের গণঅভ্যুত্থানে সরকারের বিদায় হয়। তিনি বলেন, দেশে গণতন্ত্র আজ নির্বাসিত। পদে পদে মানবাধিকার লঙ্ঘিত হচ্ছে। জনগণের জানমালের নিরাপত্তা নেই। প্রতিনিয়ত গুম, খুন ও নারী নির্যাতনের ঘটনা ঘটছে। আর এজন্য দায়ী জবর দখলকারী সরকার।
দ্রব্যমূল্যের ঊর্ধ্বগতিতে সাধারণ মানুষের নাভিশ্বাস উঠেছে এমন দাবি করে বিএনপি চেয়ারপারসন বলেন, জিনিসপত্রের দাম অনেক। সাধারণ মানুষকে অনেক কষ্টে রোজা রাখতে হচ্ছে। সরকার বড় বড় বুলি আওড়ায় কিন্তু এদিকে তাদের কোনো নজর নেই। অথচ তারা বড় বড় প্রকল্পের নামে লুটপাট করছে।
পুলিশের সমালোচনা করে তিনি বলেন, পুলিশ হলো জনগণের সেবক। কিছু পুলিশ চরম অত্যাচার, দুর্নীতির সঙ্গে লিপ্ত। তারা এখন সরকারেরও উপরে। এদের হাত অনেক লম্বা হয়ে গেছে। তারা বলছে সরকারকে টিকিয়ে রেখেছি আমরা। তিনি আরো বলেন, বিচার বিভাগে দলীয়করণের কারণে বিরোধী দলের নেতাকর্মী ও সাধারণ মানুষ ন্যায়বিচার পায় না। অথচ আওয়ামী লীগের লোকেরা খুন, লুটপাট করলেও তাদের ধরা হয় না, শাস্তি দেয়া হয় না।
দেশে গণতন্ত্র, আইনের শাসন, সুশাসন নেই এমন দাবি করে খালেদা জিয়া বলেন, বিএনপি দেশে সুশাসন, আইনের শাসন, মানবাধিকার ও জনগণের নিরাপত্তা নিশ্চিত করবে। আমরা গণতন্ত্র প্রতিষ্ঠা করবো।